সরিষাবাড়ীতে জীবন দিয়ে ইফটিজিংয়ের প্রতিবাদ করলো ছোয়া

আগের সংবাদ

শ্রীলঙ্কায় হামলা: আইএসের দায় স্বীকার

পরের সংবাদ

১০ বছরে বিনিয়োগ আয়ে সর্বনিম্ন প্রবৃদ্ধি

প্রকাশিত হয়েছে: এপ্রিল ২৩, ২০১৯ , ৪:৫৯ অপরাহ্ণ | আপডেট: এপ্রিল ২৩, ২০১৯, ৪:৫৯ অপরাহ্ণ

Avatar

বিগত ১০ বছরে নন-লাইফ বিমা খাতের বিনিয়োগ আয়ে সর্বনিম্ন প্রবৃদ্ধি হয়েছে ২০১৮ সালে। যা ছিল মোট বিনিয়োগের ৬ দশমিক ৫৮ শতাংশ। আর সর্বোচ্চ প্রবৃদ্ধি ছিল ২০১০ সালে, ১৩ দশমিক ৯৯ শতাংশ। বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ (আইডিআরএ) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
বিমা কোম্পানিগুলো বলছে, ব্যাংকের ইন্টারেস্ট রেট কমে যাওয়া এবং পুঁজিবাজারে নাজুক পরিস্থিতি এ অবস্থার জন্য দায়ী। যার কারণে সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে বিমা কোম্পানিগুলোকে। তবে বিনিয়োগ থেকে বর্তমানে যে হারে আয় আসছে সেটা অব্যাহত থাকলেও বিমা কোম্পানিগুলো এগিয়ে যেতে পারবে।
জানা যায়, ২০১৮ সালে নন-লাইফ বিমা কোম্পানিগুলোর বিনিয়োগ ছিল ৫ হাজার ৬৮৩ কোটি টাকা। আর এ থেকে আয় হয়েছে ৫ হাজার ৬৮৩ কোটি টাকা। যা মোট বিনিয়োগের ৬ দশমিক ৫৮ শতাংশ। এর আগের বছর বিনিয়োগ ছিল ৫ হাজার ৮০৬ কোটি টাকা। সে বছর বিনিয়োগ থেকে আয় হয় ৪১৫ কোটি টাকা, যা মোট বিনিয়োগের ৭ দশমিক ১৬ শতাংশ। ২০১৬ সালে নন-লাইফ বিমা কোম্পানিগুলোর বিনিয়োগ ছিল ৫ হাজার ১৮৯ কোটি টাকা এবং আয় ৪০০ কোটি টাকা, যা বিনিয়োগের ৭ দশমিক ৭১ শতাংশ। ২০১৫ সালে বিনিয়োগ ৪ হাজার ৮৮৪ কোটি টাকা এবং আয় ৩৮৯ কোটি টাকা, যা বিনিয়োগের ৭ দশমিক ৯৬ শতাংশ। ২০১৪ সালে বিনিয়োগ ছিল ৪ হাজার ৬২৮ কোটি টাকা এবং আয় ৪৩২ কোটি টাকা, যা মোট বিনিয়োগের ৯ দশমিক ৩৪ শতাংশ। এদিকে ২০১৩ সালে বিনিয়োগ ছিল ৪ হাজার ১৯৩ কোটি টাকা এবং বিনিয়োগ থেকে আয় ৩৭১ কোটি টাকা, যা মোট বিনিয়োগের ৮ দশমিক ৮৫ শতাংশ। ২০১২ সালে বিনিয়োগ ছিল ৩ হাজার ৭২১ কোটি টাকা ও বিনিয়োগ থেকে আয় ৩১০ কোটি টাকা, যা মোট বিনিয়োগের ৮ দশমিক ৮৫ শতাংশ। ২০১১ সালে ৩ হাজার ৪৪ কোটি টাকা বিনিয়োগ থেকে আয় ২৭০ কোটি টাকা, যা মোট বিনিয়োগের ৮ দশমিক ৮৬ শতাংশ। ২০১০ সালে ২ হাজার ৭২৯ কোটি টাকা বিনিয়োগ থেকে আয় হয় ৩৮২ কোটি টাকা, যা মোট বিনিয়োগের ১৩ দশমিক ৯৯ শতাংশ। আর ২০০৯ সালে ২ হাজার ৪৬ কোটি টাকা বিনিয়োগ থেকে আয় হয় ২০৯ কোটি টাকা, যা মোট বিনিয়োগের ১০ দশমিক ২৩ শতাংশ।এ বিষয়ে সেনাকল্যাণ ইন্স্যুরেন্সের মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) মো. শফিক শামিম বলেন, নন-লাইফ বিমা খাতের বেশিরভাগ বিনিয়োগ থাকে এফডিআর ও বন্ডে। বর্তমানে ব্যাংকের ইন্টারেস্ট রেট ২০১০-১১ সালের তুলনায় অর্ধেকে নেমে এসেছে। এর ফলে কোম্পানিগুলোর বিনিয়োগ আয়ও কমে গেছে। তা ছাড়া শেয়ারবাজারের অবস্থাও ভালো না। মূলত এ দুটি কারণে নন-লাইফ বিমা খাতের বিনিয়োগ আয় কমেছে। বিনিয়োগ আয়ের ধারা এমন চলতে থাকলে নন-লাইফ বিমা কোম্পানিগুলোর পরিস্থিতি কী দাঁড়াতে পারে এমন প্রশ্নে শফিক শামিম বলেন, বর্তমানে বিনিয়োগ আয় যা রয়েছে সেই অবস্থাতেই যদি স্থির থাকে তা হলেও বড় কোনো সমস্যা হবে না।
কারণ বিনিয়োগ আয়ের হার স্থির থাকলে বিমা কোম্পানিগুলো তার ভিত্তিতে পরিকল্পনা নিয়ে এগিয়ে যাবে। কিন্তু অস্থিরতা বিরাজ করলে কোম্পানিগুলোর জন্য সমস্যা হয়ে দাঁড়ায়।