তাড়াইলে মাদক বিরোধী র‍্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

আগের সংবাদ

সংস্কারের দাবিতে গৌরীপুর-হোমনা সড়ক অবরোধ

পরের সংবাদ

পারলেন না সিদ্দিকুর

প্রকাশিত হয়েছে: এপ্রিল ৭, ২০১৯ , ৩:৩৩ অপরাহ্ণ | আপডেট: এপ্রিল ৭, ২০১৯, ৩:৩৩ অপরাহ্ণ

Avatar

বঙ্গবন্ধু কাপ গলফ ওপেনে প্রথম রাউন্ড শেষে সপ্তম স্থানে ছিলেন বাংলাদেশের সেরা গলফার সিদ্দিকুর রহমান। তৃতীয় রাউন্ডে তিন ধাপ এগিয়ে চলে এসেছিলেন চতুর্থ স্থানে। তিন ধাপ এগুনোয় শিরোপার স্বপ্ন দেখতে থাকেন এশিয়ান ট্যুরের দুটি শিরোপাজয়ী এই খেলোয়াড়। কিন্তু শিরোপা ফয়সালার দিন আর নিজের ছন্দ ধরে রাখতে পারলেন না তিনি। শেষ রাউন্ডে এসে সব মিলিয়ে পারের চেয়ে আট শট কম খেলে সিদ্দিকুর যৌথভাবে দ্বাদশ হয়েছেন। তার চেয়ে দুই ধাপ আগে স্থান করে নিয়েছেন স্থানীয় আরেক গলফার জামাল হোসেন মোল্লা। তিনি সব মিলিয়ে পারের চেয়ে ৯ শট কম খেলে যৌথভাবে দশম হয়েছেন। যৌথভাবে ২৪তম স্থানে থেকে চতুর্থ রাউন্ড শুরু করেছিলেন তিনি। দিন শেষে তিনিই দেশি গলফারদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি উজ্জ্বল। তিন লাখ পঞ্চাশ হাজার ডলার প্রাইজমানির এ টুর্নামেন্টে প্রথম হয়েছেন থাইল্যান্ডের স্যাডোম কায়েওকানজানা। তিনি পারের চেয়ে ১৯ শট কম খেলেছেন। তৃতীয় রাউন্ড শেষেও প্রথম স্থানে ছিলেন তিনি। এ ছাড়া পারের চেয়ে ১৮ শট কম নিয়ে ভারতের অজিতেশ দ্বিতীয় ও ১৭ শট কম নিয়ে রশিদ খান তৃতীয় হয়েছেন। গতকাল কুর্মিটোলা গলফ কোর্সে শিরোপার স্বপ্ন নিয়েই খেলতে নেমেছিলেন সিদ্দিকুর। তৃতীয় রাউন্ডে যেহেতু প্রথম রাউন্ডের থেকে তিনধাপ এগুতে পেরেছেন তাই প্রথম হওয়াও অসম্ভব কিছু ছিল না তার জন্য। সিদ্দিকুরের তিন ধাপ এগুনোর ফলে শিরোপার আশা করেছিলেন বাংলাদেশি গলফপ্রেমীরাও। তবে তাদের হতাশ করে সিদ্দিকুর হয়েছেন ১২তম। এ নিয়ে দেশের কোর্সে হওয়া এশিয়ান ট্যুরের এ প্রতিযোগিতার পাঁচ আসরেই সেরা হলেন বাইরের দেশের গলফাররা। দেশি গলফারদের মধ্যে সিদ্দিকুরের ২০১৭ সালে রানার্সআপ হওয়াই সেরা সাফল্য হয়ে থাকল। আগের রাউন্ডে যৌথভাবে সপ্তম স্থানে থাকা আকবর হোসেন চতুর্থ রাউন্ডে পারের চেয়ে দুই শট বেশি খেলেছেন। সব মিলিয়ে পারের চেয়ে সাত শট কম নিয়ে যৌথভাবে ১৫তম হয়েছেন তিনি। পারের চেয়ে সাত শট কম খেলেছেন স্থানীয় আরেক গলফার সজীব। এ ছাড়া পাঁচ শট কম খেলে মোহাম্মদ নাজিম যৌথভাবে ২৫তম, চার শট কম খেলে বাদল হোসেন যৌথভাবে ৩১তম, শাখাওয়াত সোহেল পারের চেয়ে ৬ শট বেশি, মোহাম্মদ সাইয়ুম ও নুর জামাল ৮ শট বেশি, মোহাম্মদ শাহ আলম ৯ শট বেশি ও দিল মোহাম্মদ ১০ শট বেশি খেলে এবারের আসর শেষ করেছেন। দুই শট কম খেলে মুহাম্মদ মুয়াজ যৌথভাবে ৩৫তম হয়েছেন। প্রথম রাউন্ড শেষে মুয়াজ ছিলেন সিদ্দিকুরের ওপরে। বাংলাদেশের সেরা পেশাদার গলফার নির্বাচিত হয়েছেন দশম হওয়া জামাল হোসেন। সেরা অ্যামেচার গলফার নির্বাচিত হয়েছেন শফিক বাঘা।
খেলা শেষে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। এ ছাড়াও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ গলফ ফেডারেশনের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মেজর জেনারেল মো. এনায়েত উল্লাহ, সেক্রেটারি জেনারেল ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. সাঈদ সিদ্দিকি, টুর্নামেন্ট ডিরেক্টর ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আবিদুর রেজা খান (অব.), জয়েন্ট সেক্রেটারি ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জি এস এম হামিদুর রহমান (অব.), ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেডের পরিচালক রিক হক শিকদার ও রণ হক শিকদার, ব্যবস্থাপনা পরিচালক চৌধুরী মোস্তাক আহমেদ, এশিয়ান ট্যুরের ম্যানেজার ট্যুর এন্ড প্লেয়ার অ্যাফেয়ার্স উনহু পার্ক, সেলিব্রিটি কাথবার্ট গর্ডন গ্রিনিজ এবং বঙ্গবন্ধু কাপ গলফ ওপেন ২০১৯-এর বিভিন্ন কমিটির চেয়ারম্যানসহ উচ্চপদস্থ সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তারা।