এম এ খান ফাউন্ডেশনের মেধা বৃত্তি পেলো গোলাপগঞ্জের ৫০ শিক্ষার্থী

আগের সংবাদ

গরমেও যদি ফাটে পা

পরের সংবাদ

রাজৈর উপজেলা পরিষদ নির্বাচন

আ’লীগ প্রার্থীর বিরুদ্ধে আচারণ বিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ

প্রকাশিত হয়েছে: মার্চ ২১, ২০১৯ , ৪:৫২ অপরাহ্ণ | আপডেট: মার্চ ২১, ২০১৯, ৪:৫২ অপরাহ্ণ

Avatar

মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী এম এ মোতালেব মিয়ার বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থীর ব্যানার-পোষ্টার পুড়িয়ে ফেলাসহ নির্বাচনী বিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ উঠেছে। তার বিরুদ্ধে গত বুধবার রির্টানিং কর্মকর্তার কাছে দুটি লিখিত অভিযোগ দেয় স্বতন্ত্র চেয়াম্যান প্রার্থী মহসিন মিয়া।
লিখিত অভিযোগে বলা হয়, গত ১৮ তারিখ থেকে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী এম এ মোতালেব মিয়ার নেতৃত্বে তার সমর্থকরা দুটি নির্বাচনী কার্যালয় ভাঙচুর, পথসভায় হামলা, পোষ্টার-ব্যানার ছিড়ে পুড়িয়ে দিয়েছে। এছাড়াও তারা প্রতিপক্ষের নেতাকর্মীদের হুমকি-ধামকিসহ সাধারণ ভোটারদেও হুমকি দিয়ে যাচ্ছে।
অভিযোগে আরো বলা হয়, ‘সাবেক নৌ-মন্ত্রী ও মাদারীপুর-২ আসনের সাংসদ শাজাহান খানের বিরুদ্ধে সরকারি প্রটোকল ব্যবহার করে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে কৌশলে দলীয় প্রার্থীর পক্ষে ভোট চাইছেন। যা নির্বাচনী আচারণ বিধি লঙ্ঘন।’
স্বতন্ত্র প্রার্থী মহসিন মিয়া তার অভিযোগে আরো বলেন, ‘গত বুধবার রাজৈর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কার্যালয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের এক মতবিনিময় সভায় কৌশলে নৌকার প্রার্থী এম এ মোতালেব মিয়ার পক্ষে ভোট চেয়ে বক্তব্য রাখেন। এ সময় নৌকার প্রার্থী এম এ মোতালেব মিয়া ও সাংসদের উপস্থিতিতে নৌকা প্রতীকে ভোট প্রার্থণা করেন। এছাড়াও মতবিনিময় সভায় অন্যান্যরাও সাংসদের সামনে ভোট চান। ওইদিন শাজাহান খান এম এ মোতালেব মিয়াকে সঙ্গে নিয়ে রাজৈর উপজেলার একটি বেসরকারি ব্যাংকের শাখা উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দেন। এ সময় সুধি সমাবেশে সাংসদের সাথে একই মঞ্চে দাঁড়িয়ে সরকার দলীয় প্রার্থী এম এ মোতালেব মিয়া নৌকা প্রতীকে ভোট প্রার্থনা করেন।’
স্বতন্ত্র প্রার্থী মহসিন মিয়া অভিযোগ করে আরো বলেন, ‘গত ৪-৫ দিন ধরে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মোতালেব মিয়া ও তার সমর্থকরা আচরণবিধি লঙ্ঘন করে নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছে। তারা ওয়ার্ডে একাধিক নির্বাচনী ক্যাম্প বসিয়েছেন। এছাড়াও তারা আমার পোষ্টার ছিড়ে ফেলছে। ভোটার ও আমার লোকদের ভয়ভীতি ও প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছি। যার রেকর্ড প্রমাণ আমার কাছে আছে। আমি এসব বিষয় একাধিকবার লিখিত অভিযোগ জেলা নির্বাচন কমিশনার ও রির্টানিং কর্মকর্তার কাছে দিয়েছি।’
অভিযোগের বিষয় জানতে চাইলে এম এ মোতালেব মিয়া মুঠোফোনে বলেন, ‘আমার টাকা নেই। মহসিন মিয়ার বহু টাকা। কথায় আছে চোরের মার বড় গলা। সে নিজেই তো আমার লোকদের উপর হামলা করছে, নির্বাচনী ক্যাম্প ভাংচুর করছে। মাহসিন মিয়া টাকা দিয়ে সন্ত্রাসী লালন করছে। আমার বিরুদ্ধে তার অভিযোগ উদ্দেশ্যেমূলক।’
জানতে চাইলে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. মনিরুজ্জামান জানান, ‘আমরা স্বতন্ত্র প্রার্থী মহসিন মিয়ার কাছ থেকে এই পর্যন্ত দুইটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। অভিযোগ পাওয়ার সাথে সাথে আমরা পুলিশ প্রশাসন ও উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তাকে দ্রুত পদক্ষেপ নিতে বলা হয়েছে। এছাড়াও নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ করতে সব ধরণের ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ বিষয় কাউকেই ছাড় দেয়া হবে না।’
আগামী ২৪ তারিখ তৃতীয় ধাপে হবে অনুষ্ঠিত হবে রাজৈর উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। এতে চেয়াম্যান পদে লড়ছেন তিন প্রার্থী। আর ভাইস চেয়াম্যান পদে লড়ছেন ৫ জন এবং মহিল ভাইস চেয়াম্যান পদে লড়ছেন ৩ প্রার্থী।