মানিকগঞ্জে ট্রাক ও পিকআপ ভ্যান সংঘর্ষে নিহত ২

আগের সংবাদ

নিউজিল্যান্ডে মসজিদে বন্দুকধারীর হামলায় ২৭ জনের মৃত্যু

পরের সংবাদ

সর্বোচ্চ ম্যাচ পরিচালনাকারী আম্পায়ার

প্রকাশিত হয়েছে: মার্চ ১৫, ২০১৯ , ১০:৫৮ পূর্বাহ্ণ | আপডেট: মার্চ ১৫, ২০১৯, ৪:০০ অপরাহ্ণ

Avatar

১৯৭৫ সালে ইংল্যান্ডে বসেছিল ওয়ানডে বিশ্বকাপের প্রথম আসর। এবার ইংল্যান্ড এবং ওয়েলসে পর্দা উঠতে যাচ্ছে টুর্নামেন্টটির ১২তম আসরের। ১০ দেশের অংশগ্রহণে মে মাসে অনুষ্ঠিত হবে এ টুর্নামেন্ট। এবারের আসরেও ম্যাচ হবে মোট ৪৮টি। আসন্ন এই বিশ্বকাপকে সামনে রেখে শুরু হয়েছে কাউন্টডাউন পর্ব। সে ধারাবাহিকতায় আমাদের আজকের পর্বে থাকছে বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ পরিচালনা করা তিন আম্পায়ারের কথা।
ওয়ানডে বিশ্বকাপের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ পরিচালনা করার রেকর্ডটি দখলে রেখেছেন ইংল্যান্ডের ডেভিড শেফার্ড। টুর্নামেন্টে তিনি মোট ৪৬টি ম্যাচে আম্পায়ার ছিলেন। শেফার্ড প্রথম আম্পায়ারিং করেছিলেন ১৯৮৩ সালের বিশ^কাপে। ওই আসরে গ্রুপ পর্বে পাকিস্তান এবং শ্রীলঙ্কার মধ্যকার প্রথম সাক্ষাতে আম্পায়ার ছিলেন তিনি। লঙ্কানদের ৫০ রানে হারিয়ে ওই ম্যাচটি জিতেছিল ইমরান খানের নেতৃত্বাধীন পাকিস্তান। শেফার্ড সর্বশেষ আম্পায়ারিংয়ের দায়িত্ব পালন করেছেন ২০০৩ সালের বিশ্বকাপের ফাইনাল ম্যাচে। ওই আসরের ফাইনালে শুরুতে ব্যাট করে ভারতকে ৩৬০ রানের বিশাল টার্গেট দেয় অস্ট্রেলিয়া। জবাব দিতে নেমে মাত্র ২৩৪ রানে গুটিয়ে যায় ভারতের ইনিংস। ফলে ১২৫ রানের বিশাল এক জয় দিয়ে অজিরা বিশ্বকাপের মুকুট জিতে নেয়। শেফার্ডের পর বিশ্বকাপ মঞ্চে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ পরিচালনা করেছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের স্টিভ বাকনার। ১৯৯২ সাল থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত বিশ্বকাপের পাঁচ আসরে তার ম্যাচ পরিচালনার সংখ্যা ৪৫টি। স্টিভ বাকনার সর্বপ্রথম আম্পায়ার ছিলেন ১৯৯৩ সালের বিশ্বকাপের অস্ট্রেলিয়া এবং দক্ষিণ আফ্রিকার মধ্যকার গ্রুপ পর্বের ম্যাচে। ওই ম্যাচে মাত্র ১৭০ রানে থেমেছিল অজিদের ইনিংস। জবাবে ১৩ বল বাকি থাকতে ৯ উইকেটের জয় পায় প্রোটিয়ারা। ২০০৭ সালের অস্ট্রেলিয়া-শ্রীলঙ্কার মধ্যকার ফাইনাল ম্যাচটি ছিল তার পরিচালনায় সর্বশেষ ম্যাচ। সর্বোচ্চ ম্যাচ পরিচালনাকারীর দিক দিয়ে তৃতীয় স্থানে রয়েছেন পাকিস্তানের আলিম দার। এই মঞ্চে তিনি ২৮ ম্যাচে আম্পায়ারিং করেছেন। আলিম সর্বপ্রথম আম্পায়ারিংয়ের দায়িত্বে ছিলেন ২০০৩ সালে অস্ট্রেলিয়া এবং নেদারল্যান্ডসের মধ্যকার গ্রুপ পর্বের ম্যাচে। সর্বশেষ ২০১৫ সালের বিশ^কাপেও আম্পায়ারিং করেছেন তিনি। এ আসরে দ্বিতীয় কোয়ার্টার ফাইনালে বাংলাদেশ এবং ভারতের মধ্যকার ম্যাচ পরিচালনা করেন পাকিস্তানের এ আম্পায়ার। ওই ম্যাচে প্রথমে ব্যাট করে ভারত টাইগারদের ৩০৩ রানের লক্ষ্য ছুড়ে দেয়। জবাবে মাত্র ১৯৩ রানে অলআউট হয় মাশরাফি বিন মুর্তজার দল। ফলে ১০৯ রানের বড় ব্যবধানের জয় দিয়ে সেমিফাইনালে উঠে মহেন্দ্র সিং ধোনির নেতৃত্বাধীন ভারত।

  • আরও পড়ুন
  • লেখকের অন্যান্য লেখা