পরিচালনায় শূন্যতা প্রযোজনায় সফলতা

আগের সংবাদ

মৌসুমী-ফেরদৌস জুটির ২০ বছর

পরের সংবাদ

কবিতা পড়ে ৫০০ টাকা পেয়েছিলাম-মারিয়া নূর

প্রকাশিত হয়েছে: মার্চ ৯, ২০১৯ , ৪:০৪ অপরাহ্ণ | আপডেট: মার্চ ৯, ২০১৯, ৫:৩৬ অপরাহ্ণ

Avatar

একদিনেই জন্ম হয় না তারকার। জনপ্রিয়তার পেছনে থাকে পরিশ্রমের গল্প। কারো বেশি কারো কম। পরিশ্রমের সঙ্গেই জড়িয়ে থাকে পারিশ্রমিকের কথা। প্রথম রোজগার সব তারকার কাছেই আবেগতাড়িত একটি ব্যাপার। এই বিভাগে তারকারা জানাচ্ছেন তাদের প্রথম আয় নিয়ে অনুভূতির কথা

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ
আমি তখন অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী। লালমাটিয়া গার্লস স্কুলে পড়ি। পড়াশোনার পাশাপাশি স্কুলের বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করি। কবিতা আবৃত্তি করতাম তখন। একদিন হঠাৎ বিটিভিতে কবিতাপাঠের আমন্ত্রণ পাই। কবিতা পড়ে সম্মানী স্বরূপ ৫০০ টাকাও পেয়েছিলাম। বলতে গেলে, তা-ই ছিল আমার জীবনে প্রথম রোজগার।
টাকা দেয়া হবে ভাবিনি
সে অনুষ্ঠানের স্মৃতি এখনো অমলিন। ছোট ছিলাম; তারপর কবিতা পড়ার জন্য যে আমাকে টাকা দেয়া হবে তা কখনো ভাবিনি। সেদিনই প্রথম আমাকে কোনো অনুষ্ঠানের জন্য মেকআপ করতে হয়। তা এক অন্যরকম অভিজ্ঞতা। এখন যেমন মেকআপ রুমে অভ্যস্ত তখন কিন্তু তেমন ছিলাম না। এ ছাড়া ওই অনুষ্ঠানে যারা ছিল, সেদিন থেকে তারা আমাকে দেখে ‘অপি করিম’ বলে ডাকতে শুরু করল। এসব আমারও খুব ভালো লাগত, উপভোগ করতাম।
আম্মু ছিল আমার ব্যাংক!
টাকা-পয়সা পেলে সাধারণত আমি আমার আত্মীয়-স্বজনকে বিভিন্ন গিফট্ কিনে দিই। কিন্তু তখন তা করা হয়নি। সেই সময় এত অল্প বয়সে ৫০০ টাকা দিয়ে কী করা যায়, তা ভেবে পাচ্ছিলাম না। তখন টাকা-পয়সা জমিয়ে রাখার একটা শখ ছিল। আম্মু ছিল আমার ব্যাংক! তার কাছে আমার সব টাকা রেখে দিতাম। আবার যখন প্রয়োজন হতো, তার কাছ থেকেই অল্প করে তুলে নিতাম।