নিউজিল্যান্ডের কোচ হিসেবে থাকছেন না ম্যাকমিলান

আগের সংবাদ

রাখাইনে আইন লঙ্ঘনের নতুন প্রমাণ: অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল

পরের সংবাদ

পাহাড়ে ছিনতাই: চক্রের ৫ সদস্য গ্রেপ্তার

প্রকাশিত হয়েছে: ফেব্রুয়ারি ১১, ২০১৯ , ৭:০৭ অপরাহ্ণ | আপডেট: ফেব্রুয়ারি ১১, ২০১৯, ৭:০৭ অপরাহ্ণ

অনলাইন প্রতিবেদক

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড মহাতীর্থের চন্দ্রনাথ ধামের প্রাকৃতিক সোন্দর্য্য দর্শনে গিয়ে তিন সেনাসদস্যসহ এক দল দর্শনার্থী ছিনতাইয়ের শিকার হওয়ার ঘটনায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। ফলে বিষয়টি নিয়ে অভিযান জোরদার করে দুই দিনে মোট ৫ ছিনতাইকারীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এদিকে ছিনতাইকারীদের গ্রেপ্তার করার পর আসন্ন শিব চতুর্দশী মেলায় গনছিনতাইয়ের লক্ষে একটি বড় ছিনতাইকারীদল সংগঠিত হচ্ছিল বলে তথ্য পেয়েছে পুলিশ।

থানা সূত্রে জানা গেছে, গত শনিবার বিকালে সীতাকুণ্ড পৌরসদরের চন্দ্রনাথ পাহাড়ে স্থানীয় বাসিন্দা তিন সেনাবাহিনীর সদস্য ও তাদের কিছু বন্ধুবান্ধব বেড়াতে যান। সেখানে ১০-১৫ জনের একটি ছিনতাইকারী দল অস্ত্রের মুখে তাদেরকে জিম্মি করে বেশ কয়েকটি মোবাইল, নগদ টাকা প্রভৃতি লুটে নেয়।

তবে ছিনতাইকারীদের মধ্যে একজনকে চিনে ফেলেন সেনা সদস্যরা। পরে তার প্রতি নজরদারি রেখে রবিবার রাতে তাদের দুই জন জীবন ত্রিপুরা (১৮) ও নকুল ত্রিপুরা (২০) কে ছিনতাই করা একটি মোবাইল সেটসহ ধরে ফেলেন তারা। তাদেরকে থানায় আনা হলে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে নিজেদের অপরাধ শিকার করে এ ঘটনায় জড়িতদের সম্পর্কে তথ্য দেয়।

তাদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী সোমবার পুলিশ আবারো পাহাড়ে অভিযান চালিয়ে আরো তিনজনকে গ্রেপ্তার করে। তারা হলো সাইমং মারমা (২৫), সুরেশ ত্রিপুরা (২৩) ও পাইরুইমাং মারমা (২৭)।

এদিকে সীতাকুণ্ড থানার ওসি মোঃ দেলওয়ার হোসেন বলেন গ্রেপ্তারকৃত ৫ জনকে থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তারা নিজ অপরাধ স্বীকার করে জানায়, স্থানীয় ও বহিরাগত কিছু যুবক একত্রিত হয়ে দীর্ঘদিন ধরে পাহাড়ে ছিনতাই করে আসছে। সেই চক্রটিই শনিবার বিকালে সেনা সদস্য ও তাদের বন্ধুদের জিম্মি করে ছিনতাই করেছে।

আমরা সেই খবর পেয়ে অভিযান চালিয়ে এ পর্যন্ত ৫ জনকে গ্রেপ্তার করেছি। গ্রেপ্তারকৃতরা নিজেদের অপরাধ শিকার করে জানিয়েছে যে, বহিরাগত এবং স্থানীয় মিলে অন্তত ৫০-৬০ জনের একটি ছিনতাইকারী দল আগামী ৩ মার্চ থেকে শুরু হওয়া শিব চতুর্দশী মেলায় আগত লাখ লাখ দর্শনার্থীদেরকে মধ্য থেকে সুযোগ বুঝে গণছিনতাই করার পরিকল্পনা নিয়েছিলো।

এরই মধ্যে ওই দলের কিছু কিছু সদস্য পাহাড়ে এসে আশ্রয় নেয়। অন্যরা এখনো আসেনি। এর মধ্যে ৫ জন গ্রেপ্তার হয়েছে। অন্যদেরও গ্রেপ্তারের চেষ্টা করা হবে। গ্রেপ্তারকৃতদের কাছ থেকে ছিনতাইকৃত ৫টি মোবাইল, দুইটি খেলনা পিস্তল, লোহার রড, দা, ৪টি কিরিচসহ বিভিন্ন সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়েছে।