দ্বিতীয় ধাপে ১২২ প্রার্থীর নাম ঘোষণা করল আওয়ামী লীগ

আগের সংবাদ

পয়সা থাকলেই কি সব পাওয়া যায়!

পরের সংবাদ

নতুন নির্মাতায় নজর

প্রকাশিত হয়েছে: ফেব্রুয়ারি ১০, ২০১৯ , ৩:২০ অপরাহ্ণ | আপডেট: ফেব্রুয়ারি ১০, ২০১৯, ৩:৩৮ অপরাহ্ণ

২০১২ সালে ডিজিটাল ছবি প্রদর্শন শুরু হওয়ার পর থেকে চিত্রপরিচালকের খাতায় নাম উঠতে থাকে নতুন নতুন মুখের। হঠাৎ করেই পরিচালকের সংখ্যা বেড়ে যায়। এক ডজনের বেশি পরিচালকেরও অভিষেক ঘটেছে, এমন বছরও গেছে। সংখ্যায় বাড়লেও সাফল্যে নতুন পরিচালকদের অধিকাংশের ঝুলি শূন্য। চলচ্চিত্র ব্যবসার সার্বিক মন্দার দায় নিতে হয়েছে নতুন পরিচালকদেরও।
নতুন পরিচালকদের গড়পড়তা সাফল্য সিনেমাওয়ালাদের দুশ্চিন্তার কারণ হলেও গত কয়েক বছরের বড় হিট ছবিগুলো এসেছে নতুন পরিচালকদের হাত থেকেই। ২০১৬ সালের সর্বাধিক সফল ছবি ‘আয়নাবাজি’ ছিল অমিতাভ রেজার প্রথম ছবি। ২০১৭ সালের অন্যতম সফল ছবি ‘ঢাকা অ্যাটাক’ও ছিল দীপংকর দীপনের প্রথম ছবি।
পরপর দুই বছর দুজন নতুন নির্মাতা অনেকটা ‘ভিনি ভিডি ভিসি’ স্টাইলে এলেন, দেখলেন এবং জয় করলেন। প্রতিষ্ঠিত নির্মাতারা যেখানে হিমশিম খেয়েছেন একটি হিট ছবি বক্স অফিসে উপহার দিতে, এই দুই নির্মাতা যেন ব্যবসায়ের বর পেয়ে অপ্রত্যাশিত চমক দেখান।
নতুন নির্মাতাদের আলোচনায় থাকার রেকর্ডটি গত বছরও অক্ষুণ্ণ ছিল। ‘আয়নাবাজি’র কাহিনীকার অনম বিশ্বাস আসেন পরিচালনায়। প্রথম ছবির বিষয় হিসেবে ‘মিসির আলী’কে বেছে নিয়ে প্রশংসার পাশাপাশি পান ব্যবসায়িক সফলতাও। গত বছরের সেরা ছবি বলে একবাক্যে সবাই ‘দেবী’কেই রায় দিয়েছেন।
গত বছরটি রায়হান রাফির জন্যও ছিল মাইলফলক। প্রথম ছবি ‘পোড়ামন টু’তে তিনি পরিচালক হিসেবে সফলতার স্বাদ পেয়েছেন। ‘পোড়ামন টু’র মধ্য দিয়ে তিনি নতুন একটি জুটি সিয়াম-পূজাকেও দর্শকদের অন্তরে গেঁথে দিয়েছেন। অনেক নতুন নির্মাতার ভিড়ে তার সাফল্য নজর কেড়েছে।
নতুন বছরের দ্বিতীয় মাসেই পরীক্ষায় বসছেন অন্তত তিনজন নির্মাতা। তারা হচ্ছেন তারেক শিকদার, শামীমুল ইসলাম শামীম এবং হাবিবুল ইসলাম হাবিব। তিন নবীন নির্মাতা নিজেদের প্রথম ছবি তুলে দিচ্ছেন দর্শকদের হাতে। দর্শকদের বিচারের আশায়ই এখন তাদের অহর্নিশ প্রতীক্ষা।
তারেক শিকদারের প্রথম ছবি ‘দাগ হৃদয়ে’। বাপ্পি চৌধুরী, বিদ্যা সিনহা মিম ও আঁচল তার ছবির তারকা। এই শিল্পীদের নিয়েই তিনি যুদ্ধের মাঠে নেমেছেন। প্রচুণ্ড মন্দা এই সময়ে তিনি কতটুকু কী করে দেখাতে পারেন, তার দিকে আছে চোখ। ‘দাগ হৃদয়ে’ মুক্তি পেয়েছে গতকাল শুক্রবার।
একই দিনে মুক্তি পেয়েছে শামীমুল ইসলাম শামীমের প্রথম ছবি ‘আমার প্রেম আমার প্রিয়া’। কায়েস আরজু তার নায়ক, পরীমণি তার নায়িকা। এই দুজনকে প্রথমবারের মতো জুটিবদ্ধ করে শামীম নেমে পড়েছেন লড়াইয়ে। প্রতিযোগী ছবিকে পেছনে ফেলে তবেই তাকে লক্ষ্যে পৌঁছতে হবে।
হাবিবুল ইসলাম হাবিব আসছেন আগামী শুক্রবার। তার প্রথম ছবির নাম ‘রাত্রির যাত্রী’। মৌসুমীকে অবলম্বন করে তিনি ময়দানে নেমেছেন। গল্পপ্রধান এই ছবির পেছনে দীর্ঘ সময় দিয়েছেন হাবিব। এখন তিনি দর্শকদের অপেক্ষায় সিনেমা হলের দুয়ারে দাঁড়িয়ে আছেন।
উল্লিখিত তিনটি ছবির নির্মাতাই ছবি বানাতে গিয়ে কাক্সিক্ষত সময়ের চেয়ে অনেক বেশি সময় নিয়েছেন। বারবার শুটিংয়ের তারিখ ফেলেও কথা রাখতে পারেননি। অবশেষে ভালোবাসার মাস ফেব্রæয়ারিতে প্রিয় ছবিটি নিয়ে হাজির হয়েছেন। দর্শকরা তাদের বরণ করে নেবেন নাকি ফিরিয়ে দেবেন, তা সময়ই বলে দেবে।