মাদক মামলাগুলো ছয় মাসের মধ্যে নিষ্পত্তির নির্দেশ

আগের সংবাদ

জন্মদিনে বাপ্পাকে স্ত্রীর উপহার

পরের সংবাদ

পশ্চিম আফ্রিকান দেশ বুরকিনা ফাসোতে জিহাদি হামলায় নিহত ১৪

প্রকাশিত হয়েছে: ফেব্রুয়ারি ৫, ২০১৯ , ৪:৩৪ অপরাহ্ণ | আপডেট: ফেব্রুয়ারি ৫, ২০১৯, ৪:৩৪ অপরাহ্ণ

Avatar

পশ্চিম আফ্রিকান দেশ বুরকিনা ফাসোর উত্তরে মালি সীমান্তের উত্তরে উত্তর বুর্কিনা ফাসোতে জিহাদি হামলায় ১৪ বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছেন

মঙ্গলবার (০৫ ফেব্রুয়ারি) দেশটির রাজধানী উয়াগাদুগুতে জি-৫ সাহেলের আওতাধীন পাঁচটি দেশ নিয়ে গঠিত জি ৫ সাহেল শীর্ষ সম্মেলন চলাকালে এ হামলা হয়।

দেশটির সেনাবাহিনীর মুখপাত্র কর্নেল লামোসা ফোফানা বিবৃতিতে বলেন, জিহাদি হামলায় ১৪ বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছেন। হামলার পরপরই জাতীয় প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তা বাহিনী কাইন শহর, লোরাম প্রদেশের উত্তরের বানহ এবং কসি প্রদেশের উত্তর-পশ্চিমের বম্বোরো এলাকায় অভিযান চালায়।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম বলছে, সেনাবাহিনী উত্তরাঞ্চলের তিনটি প্রদেশে অভিযান চালিয়ে প্রায় ১৪৬ জঙ্গিকে প্রতিহত করতে সক্ষম হয়েছে।

সেনাবাহিনীও বলছে, পাল্টা হামলায় অনেকেই আহত হয়েছেন। এসব এলাকায় নিরাপত্তা বাহিনীর অভিযান অব্যাহত রাখার কথাও জানায় তারা।

বিগত বছরগুলোতে দেশটিতে জিহাদি হামলায় বহু বেসামরিক নাগরিক এবং নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য নিহত হয়েছেন। ২০১৫ সাল থেকে এখন পর্যন্ত মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩০০ তে।

এ বছর জিহাদিদের হামলায় ১০ জানুয়ারি দেশটির গেসেলিকি গ্রামে ১২ জন, ২৭ জানুয়ারি সিকিরেতে ১০ বেসামরিক নাগরিক এবং ২৮ জানুয়ারি নাসোম্বোতে চার সৈন্য নিহত হয়েছেন।

২০১৬ সাল থেকে শুধু রাজধানীতে তিনবার হামলা করেছে জিহাদিরা। এতে প্রায় ৬০ জন নিহত হয়েছেন। সর্বশেষ ২০১৮ সালের মার্চে তারা সেনাবাহিনীর সদর দফতরেও হামলা করেছিল।

দেশটিতে জিহাদি হামলা প্রতিহত করতে সামরিক বাহিনীর একটি বিশেষ দল গঠন করা হয়েছে। যারা এখনও লড়াই করছে।

রোববার (০৩ ফেব্রুয়ারি) বিশেষ দলটির প্রধান মওরিটানিয়ান জেনারেল হানেনা অল্ড সিডি বলেন, দলটি ১৫ জানুয়ারি থেকে এখন পর্যন্ত তিনটি অভিযান চালিয়েছে। তবে অভিযানের ব্যাপারে বিস্তারিত কিছু বলেননি তিনি।

ঘন ঘন এই জিহাদি হামলার বিরুদ্ধে লড়াই করতে হিমশিম খাচ্ছে বুরকিনা ফাসো পুলিশও। হামলা প্রতিহত করতে ১ জানুয়ারি থেকে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করে দেশটির ৪৫ রাজ্যের মধ্যে ১৪টিতেই নিরাপত্তা বাহিনীকে অতিরিক্ত ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে।

অন্যদিকে, দেশটির প্রেসিডেন্ট রুচ মার্ক ক্রিশ্চিয়ান কাবোরি এই মাসেই সেনাপ্রধানকে বরখাস্ত করেছেন এবং প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তা মন্ত্রিপরিষদেও পরিবর্তন এনেছেন।

ফেব্রুয়ারির শেষ দিকে বুরকিনা ফাসো শহরে ‘উয়াগাদুগু প্যানাফ্রিকান ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন ফেস্টিভ্যাল’ শিরোনামে আফ্রিকার সবচেয়ে বড় চলচ্চিত্র উত্সব অনুষ্ঠিত হবে। এ বছর উত্সবটির ৫০তম বার্ষিকী। আর এখন এর নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বিগ্ন সংশ্লিষ্টরা।