একুশে একাডেমী’র আয়োজনে সিডনিতে বইমেলা

আগের সংবাদ

বোরহানউদ্দিনে আন্তজার্তিক মাতৃভাষা দিবস পালন উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা

পরের সংবাদ

জাবি অফিসার সমিতির নির্বাচন ৬ ফেব্রুয়ারি

প্রকাশিত হয়েছে: ফেব্রুয়ারি ৪, ২০১৯ , ১১:৪৩ পূর্বাহ্ণ | আপডেট: ফেব্রুয়ারি ৪, ২০১৯, ১১:৪৫ পূর্বাহ্ণ

Avatar

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মচারি সমিতি, কর্মচারি ইউনিয়ন ও শিক্ষক সমিতি নির্বাচনের পর এবার অফিসার সমিতির নির্বাচনে উৎসব মুখর পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। বিশ^বিদ্যালয়ের অফিস, বিভাগ সহ আশেপাশের এলাকাতে ব্যাপক প্রচারনায় ব্যস্ত প্রতদ্ব›দ্বী প্রার্থীরা। এর ফলে উৎসব মুখর পরিবেশ বিরাজ করছে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে। আওয়ামীপন্থী ১৫ সদস্য বিশিষ্ট প্যানেলে দুসময়ের ত্যাগী সাবেক ছাত্রনেতাদের নিয়ে ‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী’ হাসান-নাহিদ পরিষদ গঠন করা হয়েছে। যাদের অনেকই বিএনপি-জামাত জোট সরকারের আমলে গুলিবিদ্ধ ও মারাত্মক আহত হয়েছিলেন। এছাড়াও দীর্ঘদিন ধরে ছাত্রলীগের রাজনীতি ও রাজপথে লড়াই সংগ্রামে যুক্ত ছিলেন। অপর দিকে বিএনপিপন্থীরা আজমল আমীন ও আ: রহমান প্যানেল নামে নির্বাচনে প্রতিযোগীতা করছে।
আওয়ামীপন্থী হাসান-নাহিদ পরিষদে সভাপতি হিসাবে ডেপুটি রেজিস্ট্রার (শিক্ষা) মো: আবু হাসান, সাধারণ সম্পাদক হিসাবে নাহিদুর রহমান খান (সাগর), সহ-সভাপতি-মোহাম্মাদ আজীম উদ্দিন, যুগ্ন সম্পাদক- মাহাতাব-উজ-জাহিদ, কোষাধ্যক্ষ – বলাই চন্দ্র পাল, সাংগঠিনক সম্পাদক- মো: আ: সাত্তার, প্রচার সম্পাদক- এলিজা সুলতানা, সদস্য পদে- মোঃ সারোয়ার হোসেন, নুর এ কামাল, খন্দকার আবু সৈয়দ (জিন্নাহ), রাজিব চক্রবতী, মো: ফকরুল ইসলাম, নজরুল ইসলাম, মো: আব্দুর রাজ্জাক, মো: আ: মান্নান।
খোজ নিয়ে জানা যায় ‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী’ প্যানেলের সভাপতি প্রার্থী মো: আবু হাসান ১৯৮৪-৮৫ সালের শাখা ছাত্রলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ছিলেন। এছাড়াও মীর মশাররফ হোসেন হলের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছিলেন। এদিকে সম্পাদক পদপ্রার্থী নাহিদুর রহমন সাগর দুঃসময়ে বাংলাদেশ ছাত্রলীগে কান্ডারী হিসাবে পরিচিত। তিনি সোহেল- জনি কমিটির উপ গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক ছিলেন। এছাড়াও ১/১১ সময় শেখ হাসিনার মুক্তির দাবিতে রাজপথে অগ্রনী ভুমিকা পালন করে। এ দলের অন্যান্নদের মধ্যে সহ- সভাপতি প্রার্থী মোহাম্মাদ আজীম উদ্দিন আ ফ ম কামাল উদ্দিন হল শাখার যুগ্ন- সম্পাদক, প্রচার সম্পাদক প্রার্থী এলিজা সুলতানা ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন। এছাড়াও সদস্য প্রার্থী মোহাম্মাদ আবু সৈয়দ জিন্নাহ, রাজীব চক্রবর্তী শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি ছিলেন। রাজীব চক্রবর্তী নিজ দলের কোন্দলের শিকার হন। ২০১০ সালে সহিংস ঘটনায় আল-বেরুনী হলের ছাদ থেকে ফেলে দেওয়া হয়। এতে একটি পা ক্ষতিগ্রস্থ হয়, যা এখনও তাকে বয়ে বেড়াতে হচ্ছে। এভাবে আওয়ামীপন্থী হাসান-নাহিদ পরিষদে কর্মকর্তাদের অধিকাংশই ছাত্রজীবনে ছাত্রলীগের রাজনীতি করেছেন। কেউবা দিয়েছেন রাজপথে নেতৃত্ব। আবার কেউ ১/১১ শেখ হাসিনার মুক্তির দাবিতে কঠোর সংগ্রাম করেছে। ছাত্রলীগের পরিক্ষিত এসকল নেতারা বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়ে সুনামের সাথে কাজ করে চলছে। বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারে সকলেই সমাধিক পরিচিত। তাই সাগর- নাহিদ প্যানেলের পরিচিতি, সুনামে সকলেই ধারাণা করছে নিরুঙ্কুশ জয় লাভ করবে ‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী’ প্যানেল ।
সভাপতি প্রার্থী আবু হাসান বলেন, একাডেমিক ও প্রশাসনিক উন্নয়নে কাজ করবো। এছাড়াও কর্মকর্দাদের সার্বিক উন্নয়নে র্সবোচ্চ কাজ করবো।নির্বাচনে অপর প্যানেলে জাতীয়তাবাদী দল আজমল -আঃ রহমান প্যানেল নামে প্রতিযোগীতা করছে। নির্বাচনে সম্পাদক প্রাার্থী নাহিদুর রহমান সাগর বলেন, নির্বাচনে বিজয়ী হলে অফিসারদের নীতিমালা ও উচ্চতর বেতন স্কেল নিয়ে কাজ করবো। পাশাপাশি সকল অফিসারের যৌক্তিক সমস্যার সমাধানে এবং বিশ্ববিদালয়ের শিক্ষার সুষ্ট পরিবেশ বজায় রাখতে সকলকে নিয়ে একসাথে কাজ করবো।
বিএনপিপন্থীরা আজমল আমীন ও আ: রহমান প্যানেলে সভাপতি হিসাবে আজমল আমীন (টুটুল), সাধারণ সম্পাদক হিসাবে- মো: আ: রহমান (বাবুল), সহ-সভাপতি-মো: রবিউল্লাহ, যুগ্ন সম্পাদক- মো: ইয়ার হোসেন, কোষাধ্যক্ষ- মো: আনোয়ার হোসেন, সাংগঠিনক সম্পাদক- মো: শফিকুল ইসলাম, প্রচার সম্পাদক- আকতারুজ্জামান, সদস্য পদে- গোলাম মোস্তফা, বেগম নাছরিন, আবুল কাশেম, খায়ের উদ্দিন, এহতেশামুল হক, আলী হাসান মাসুদ, মুহাম্মদ বোরশেদ আলম, আবুল কালাম আজাদ।
প্রধান নির্বাচন কমিশনার ডেপুটি রেজিস্ট্রার (টিচিং) মোহাম্মাদ আলী বলেন, সুষ্টভাবে নির্বাচন পরিচালনার জন্য প্রয়োজনীয় সার্বিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। আশা করি সকলে সুষ্ঠভাবে ভোট প্রদান করতে পারবে। উল্লেখ্য, আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।