বাগেরহাটে বাস-ট্রাকের মুখোমুখি সংর্ঘষ: নিহত ৩

আগের সংবাদ

খাশোগি হত্যাকাণ্ড: আন্তর্জাতিক তদন্ত কমিটি গঠন করছে তুরস্ক

পরের সংবাদ

সুনামগঞ্জে সাড়ে তিন কোটি টাকার মাদক ধ্বংস

প্রকাশিত হয়েছে: জানুয়ারি ২২, ২০১৯ , ৭:৪৫ অপরাহ্ণ | আপডেট: জানুয়ারি ২২, ২০১৯, ৭:৪৫ অপরাহ্ণ

সুনামগঞ্জের সীমান্তসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে গত দুই বছরে জব্দকৃত প্রায় সাড়ে ৩ কোটি টাকা মূল্যের বিভিন্ন প্রজাতির মাদক ধ্বংস করেছে বিজিবি। মঙ্গলবার দুপুরে সুনামগঞ্জ-২৮ বিজিবি ক্যাম্পাসে জব্দকৃত মাদক বোলডোজার ও আগুনে ধ্বংস করা হয়। এ উপলক্ষে সুনামগঞ্জ-২৮ বিজিবি প্রশাসন ও বিভিন্ন স্তরের সুধীজনদের নিয়ে মতবিনিময় সভা করে। মাদক বিরোধী সঙ্গীত পরিবেশনাসহ স্থানীয় নাট্যকর্মীরা মাদকবিরোধী নাটিকা মঞ্চায়ন করেন।

মতবিনিময় সভায় ২৮ বিজিবির সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, ২০১৬ সনের ২০ জানুয়ারি থেকে ২০১৯ সনের ২০ জানুয়ারি পর্যন্ত সুনামগঞ্জ জেলার সীমান্ত এলাকাসহ বিভিন্ন মাদক জোন থেকে ৩ কোটি ৬৬ লক্ষ ৭৬ হাজার ৫৪৩ টাকা মূল্যের বিভিন্ন প্রজাতির মাদক জব্দ করা হয়েছিল। এই সময়ে শতাধিক মাদক কারবারিকেও গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। বিজিবির বিভিন্ন ইউনিট জব্দকৃত মাদক জড়ো করে দুই বছর পর মঙ্গলবার সবগুলো ধ্বংস করে।

ধ্বংসকৃত মাদকদ্রব্যের মধ্যে রয়েছে ৩ কোটি ১৩ লক্ষ ৩৯ হাজার ৫০০ টাকা মূল্যের ২০ হাজার ৮ শত ৯৩ বোতল বিদেশি মদ, ১ হাজার ৬৫০ টাকা মূল্যের ৫.৫ লিটার বাংলা মদ, ১ লক্ষ ৬২ হাজার ২৫০ টাকা মূল্যের ৬ শ ৪৯ বোতল বিভিন্ন প্রকার বিয়ার, ৪১ হাজার ৩১০ টাকা মূল্যের ১১.৮০০ কেজি গাঁজা, ৪১ লক্ষ ৯০ হাজার ১৪৩ লক্ষ টাকা মূল্যের ২৪ লক্ষ ৬৪ হাজার ৭৯০ পিস বিড়ি, ৯ লক্ষ ৪১ হাজার ৭০০ টাকা মূল্যের ৩ হাজার ১৩৯ পিস ইয়াবা।

২৮ ব্যাটালিয়ানের অধিনায়ক লে. কর্নেল মো. মাকসুদুল আলমের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন বিজিবি সিলেট সদর দপ্তরের সেক্টর কমান্ডার কর্ণেল মো. শহিদুল ইসলাম (পিএসসি)। মেজর মো. জালাল উদ্দিন জায়গীরদারের সঞ্চালনায় মতবিনিময়সভায় বিশিষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ, পুলিশ সুপার মো. বরকতুল্লাহ, প্রেসক্লাবের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বিজন সেন রায়, সাধারণ সম্পাদক শেরগুল আহমদ, রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি লতিফুর রহামন রাজু প্রমুখ। এছাড়াও উন্মুক্ত আলোচনাপর্বেও অনেকে বক্তব্য দেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে সিলেট সদর দপ্তরের সেক্টর কমান্ডার কর্নেল মো. শহিদুল ইসলাম (পিএসসি) বলেন, বর্তমানে আমরা বিশ্বের ৪১তম অর্থনৈতিক শক্তির সম্ভাবনাময় দেশ। ২০৩০ বা ২০৩১ সালে আমরা ২৫ বা ২৬ তম অর্থনৈতিক শক্তির দেশ হবো। তাই আমাদের অর্থনৈতিক এই উত্থান আমাদের পার্শবর্তী দেশগুলো মেনে নিতে নাও পারে। তারা অত্যন্ত সুপরিকল্পিতভাবে এই সাফল্যকে ধ্বংস করতে সকল চেষ্টা করবে।

তিনি বলেন, হঠাৎ করে আমাদের সীমান্তে এত ব্যাপক মাত্রায় ইয়াবা ডুকার কারণ অনুসন্ধান করছিলাম। এর একটা সম্ভাব্য উত্তর হলো- তাহলে এগুলো কি আমাদের পার্শবর্তী দেশে তৈরি হচেছ, আমাদের ভেতরে পুষিং করা জন্য। কারণ এত বড় সাফল্য পার্শবর্তী দেশ ঈর্ষান্বিত হবেন না তা বলা যায় না। আমাদের দেশ পরিচালনায় নিয়োজিত যুবশক্তিকে ধ্বংস করতেই এই ষড়যন্ত্র চলছে।

তিনি বলেন, যাদের বয়স এখন ২০-২৫ বছর ২০৩০ সালে তারাই হবে দেশ চালিকা শক্তি। এখন এই যুবসমাজকে ধ্বংস করতে পারলেই চক্রান্তকারীদের ভিশন সফল হবে। তাই আমাদের সন্তান কোথায় যায়, কাদের সাথে মিশে, তাদেরকে পর্যবেক্ষণে রাখতেত হবে। আমাদের সবাইকে একজন সচেতন নাগরিক হিসেবে চোখকান খোলা রেখে মাদক কারবারিদের ব্যবসা বন্ধে কাজ করতে হবে।