ডোমারে প্রাচীন বৌদ্ধ মূর্তি উদ্ধার

আগের সংবাদ

এবারও মন্ত্রণালয় পরিদর্শন করবেন প্রধানমন্ত্রী

পরের সংবাদ

বেশকিছু স্মরণীয় কনসার্ট আছে – প্রতীক হাসান

প্রকাশিত হয়েছে: জানুয়ারি ১৩, ২০১৯ , ৪:৫৮ অপরাহ্ণ | আপডেট: জানুয়ারি ১৩, ২০১৯, ৪:৫৮ অপরাহ্ণ

Avatar

বছরজুড়েই দেশে ও দেশের বাইরে কনসার্ট নিয়ে ব্যস্ত থাকেন সঙ্গীত তারকারা। কনসার্টকে তারা শ্রোতাদের সঙ্গে যোগাযোগের সেরা মাধ্যম বলে মনে করেন। এই কনসার্টকে ঘিরে তাদের নানা রকম আনন্দ-বেদনার অভিজ্ঞতা নিয়ে ‘মেলা’র নতুন বিভাগ ‘আমার সেরা কনসার্ট’

সেরা কনসার্ট নির্বাচন কষ্টকর
এত এত কনসার্টে গান গাইবার সৌভাগ্য হয়েছে আমার তার মধ্যে কোন প্রোগ্রামকে সেরা বলব তা নির্বাচন করাটা কষ্টকর। বছরজুড়েই তো দেশে-বিদেশে বিভিন্ন কনসার্টে গান গেয়ে থাকি। তার মধ্যে বেশকিছুই স্মরণীয় কনসার্ট। সেসব কনসার্ট আজীবন মনে রাখার মতো। যেগুলোতে দর্শক- শ্রোতাদের ফিডব্যাক দেখে রীতিমতো মুগ্ধ হয়েছি। সেরা কনসার্ট যদি বিবেচনা করি তবে একবার আমি ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় একটা প্রোগ্রামে পারফর্ম করেছিলাম সেটার কথা শুরুতে বলব। এ ছাড়াও ইতালির ভেনিসে এবং রাশিয়ার মস্কোর কনসার্ট দুটো ছিল সেরা।

যে কারণে সেরা
দর্শক-শ্রোতারা যখন কনসার্টে আমার সঙ্গে সঙ্গে গান গাওয়া শুরু করে তখন নিজের পরিশ্রমকে অনেকটা সার্থক বলে মনে হয়। মনে হয়, জীবনটা বুঝি ধন্য। শ্রোতাদের জন্যই তো আমরা শিল্পীরা গান করি। ব্রাহ্মণবাড়িয়াতে যে কনসার্টে পারফর্ম করেছিলাম তা ছিল তৃতীয় লিঙ্গদের অধিকার সচেতনতামূলক একটা কনসার্ট। গত বছর গেয়েছিলাম সে কনসার্টে। ওই কনসার্টের স্লোগানটা ছিল চমৎকার- ‘ফিজিক্যালি চ্যালেঞ্জড পিপল আর নট বার্ডেন অব সোসাইটি। তাদের জন্য কিছু করতে পারাটা সত্যিই আনন্দদায়ক ছিল।’

বাবার গাওয়া গান গেয়েছিলাম
ইতালির ভেনিসে বাবার (খালিদ হাসান মিলু) গাওয়া ‘কতদিন দেহি না মায়ের মুখ’ গানটা করেছিলাম। প্রবাসী বাঙালিরা এই গান শুনে খুবই আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন। সেইসঙ্গে আমিও। ওই মুহূর্তটা আমার প্রায়ই মনে পড়ে। আর মস্কোতে গান গাইতে গিয়ে আমার নতুন একটা অভিজ্ঞতা হয়। সেখানে আমরা যারা বাংলাদেশ থেকে পারফর্ম করেছিলাম তাদের বাংলা গানগুলোক রাশিয়ান ভাষায় অনুবাদ করা হয়েছিল। রাশিয়ানরা ও আমরা সেই গানগুলো শুনে বিস্মিত। এটা আমাদের সবার জন্য বড় একটা অর্জন, যে নিজের দেশকে রিপ্রেজেন্ট করতে পেরেছি।

যেখানেই যাই সবাই একসঙ্গে যাই
কনসার্টে যারা আমার সঙ্গে ইন্সট্রুমেন্টে কাজ করেন, তাদের জন্যই আমি ‘আমি’ হয়ে উঠতে পেরেছি। আমার সঙ্গে যারা স্টুডিওতে বাজান তারা সব সময় এক সঙ্গেই পারফর্ম করি। স্টুডিওতে যারা কাজ করেন, তারাই কিন্তু আমার সঙ্গে কনসার্টেও পারফর্ম করেন। যেখানেই যাই সবাই একসঙ্গে যাই।

কনসার্টে বেশি বেশি গাইতে চাই
সব সময়ই আমার যারা শ্রোতা আছেন, তাদের সামনাসামনি গাইতে পছন্দ করি। আসলে শ্রোতারা আমার গানকে কীভাবে নিয়েছেন সেটা একমাত্র কনসার্টেই অনুভব করা যায়। কনসার্টে তাদের ফিডব্যাক পেলে আমার খুব ভালো লাগে। তাই অন্য প্রোগ্রামগুলোর চেয়ে কনসার্ট বেশি উপভোগ করি। কনসার্টে বেশি বেশি গাইতে চাই। কনসার্টে শ্রোতাদের সরাসরি পাওয়া যায়। তবে টেলিভিশন লাইভও আমার ভালো লাগে।