আট বছরে রাজস্ব আদায় সাড়ে ১০ হাজার কোটি টাকা

আগের সংবাদ

শিল্পভিত্তিক অর্থনীতির পথে বাংলাদেশ

পরের সংবাদ

চাচি-ভাতিজার মনোনয়ন লড়াই

প্রকাশিত: নভেম্বর ১৩, ২০১৮ , ২:৩১ অপরাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ১৩, ২০১৮ , ২:৩১ অপরাহ্ণ

কুষ্টিয়া-৪ (খোকসা-কুমারখালী) আসনে দলীয় মনোনয়ন নিয়ে লড়াই করছেন চাচি ও ভাতিজা। ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রধানের কার্যালয়ে গত শনিবার তারা মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন। তারা হলেন বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর, মহান মুক্তিযুদ্ধের আঞ্চলিক সংগঠক শহীদ গোলাম কিবরিয়ার পুত্রবধূ ও সাবেক সংসদ সদস্য সুলতানা তরুণ এবং তার দৌহিদ্র ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জ।
সুলতানা তরুণের স্বামী হলেন আবুল হোসেন তরুণ। তিনি খোকসা ও কুমারখালী উপজেলার সর্বস্তরের মানুষের কাছে মিয়াভাই হিসেবে জনপ্রিয় নেতা ও সংসদ সদস্য ছিলেন। তার মৃত্যুর পর ২০০১ সালে এই আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পান তার স্ত্রী সুলতানা তরুণ। সে সময়ে বর্তমান সংসদ সদস্য আব্দুর রউফ বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ায় বিএনপির প্রার্থী বিজয়ী হয়। পরবর্তীতে ২০০৮ সালে পুনরায় সুলতানা তরুণকে দলীয় মনোনয়ন দেয়া হলে তিনি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তবে ২০১৪ সালের নির্বাচনে তাকে দলীয় মনোনয়ন দেয়া হয়নি। তবে এবার তিনি দলীয় মনোনয়ন পেতে আগে থেকেই মাঠে নামেন। সরকারের বিভিন্ন উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরে নির্বাচনী গণসংযোগ করছেন।
একই আসনে গত শনিবার তার দেবর কুমারখালী পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. সামছুজ্জামান অরুন দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করে জমা দিয়েছেন।
অন্যদিকে, সুলতানা তরুণের স্বামী আবুল হোসেন তরুণের ভাই আলতাফ হোসেন কিরণ। বীর মুক্তিযোদ্ধা আলতাফ হোসেন কিরণের মেজো ছেলে ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জ একই আসনে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী। পেশাগত কারণে বেশির ভাগ সময় ঢাকায় থাকেন তিনি। যে কারণে খুব একটা সময় তিনি নির্বাচনী মাঠে ব্যয় করতে পারেননি। তবে শহর ও গ্রামাঞ্চলে তার ছবি সংবলিত ব্যানার-ফেস্টুন শোভা পাচ্ছে।
ঐতিহ্যবাহী আওয়ামী লীগ পরিবারের সদস্য ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জ হলেন শহীদ গোলাম কিবরিয়া ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান। তিনি দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশায় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করে সমর্থকদের নিয়ে জমাও দিয়েছেন। কুমারখালী মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ সমিতির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এ টি এম আবুল মনছুর মজনু বলেন, শুনেছি ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জসহ অনেকে দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করে জমাও দিয়েছেন।
কিন্তু যার গায়ে দাগ কিংবা গন্ধ নেই, এমন নতুন কেউ প্রার্থী হোক, এমনটাই প্রত্যাশা করি।
উল্লেখ্য, ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জের মা মমতাজ বেগম বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ কুমারখালী শাখার সভানেত্রী ও পাবলিক লাইব্রেরির সাধারণ সম্পাদক।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়