কোটা বহাল রাখার দাবিতে বগুড়ায় রেলপথ অবরোধ

আগের সংবাদ

পাহাড়ি নারীর সংগ্রাম

পরের সংবাদ

আজিয়াটা গ্লোবাল চ্যাম্পিয়ন সাবরিনা

প্রকাশিত হয়েছে: অক্টোবর ৮, ২০১৮ , ৪:১৩ অপরাহ্ণ | আপডেট: অক্টোবর ৮, ২০১৮, ৪:১৩ অপরাহ্ণ

Avatar

সাবরিনা হক। কাজ করেন টেলিফোন সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান রবির জেনারেল ম্যানেজার পদে। সম্প্রতি তিন আজিয়াটা গ্লোবাল চ্যাম্পিয়ন হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছেন। বাংলাদেশ থেকে এ বছর একমাত্র নারী হিসেবে তিনি এই স্বীকৃতি লাভ করেন।
আজিয়াটা একটা আন্তর্জাতিক টেলিকমিউনিকেশন প্রতিষ্ঠান। যারা বাংলাদেশসহ ৭টি দেশে ভিন্ন ভিন্ন কোম্পানির নামে তাদের ব্যবসা পরিচালনা করে। বাংলাদেশে আজিয়াটা গ্রুপের মালিকনাধীন প্রতিষ্ঠান হলো ‘রবি’। প্রতি বছর প্রতি দেশ থেকে সেরা কর্মদক্ষ এবং কোম্পানিতে জোরালো ভ‚মিকা রেখেছে এমন কর্মীদের মাঝ থেকে গ্লোবাল চ্যাম্পিয়ন নির্বাচন করা হয়। এ বছর বাংলাদেশ থেকে একাধিক পুরুষ এ সম্মাননা পেলেও একমাত্র নারী হিসেবে এ সম্মাননা পান সাবরিনা হক। সব দেশের বিজয়ীদের সম্মান জানাতে চলতি বছরের ২৬ থেকে ২৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত জাপানের ওসাকা শহরে আয়োজন করা হয় বর্ণিল অনুষ্ঠান। এই বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানেই বিজয়ীদের হাতে তুলে দেয়া হয় সম্মাননা স্মারক।
সম্মাননা প্রাপ্তির অনুভ‚তির কথা বলতে গিয়ে সাবরিনা বলেন, এতে আমার দায়িত্ব যেমন বেড়েছে; তেমনি নারী সামাজের ওপর কর্পোরেট সেক্টরের আস্থা আরো শক্তিশালী হয়েছে।
সাবরিনা বলেন, এখনো আমাদের দেশে কর্পোরেট সেক্টরে বড় পদগুলোতে নারী কর্মকর্তার সংখ্যা সীমিত। এর প্রধান কারণগুলো হলো মূলত নারীর ক্যারিয়ারের গুরুত্ব নিয়ে সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গি, নারীর নিজের অদম্য চেষ্টার অভাব এবং কোনো কোনো কর্মস্থলে নারীকে যথাযথ যোগ্যতার মাপকাঠি দিয়ে না দেখার প্রবণতা।
তিনি বলেন, নিষ্ঠা, সততা আর পরিশ্রম দিয়ে সব বাধাকে জয় করতে হবে নারীকে এটা মনে রেখেই ক্যারিয়ার গড়তে হবে। এও মনে রাখতে হবে তার চলার পথ অন্য সবার চেয়ে দুর্গম ও কঠিন। ক্যারিয়ারে সফলতা আসতে কখনো কখনো দেরী হতে পারে, কিন্তু কোনো অবস্থাতেই হাল ছাড়া যাবে না। কর্পোরেট সেক্টরে ক্যারিয়ার গড়তে হলে দক্ষতার পাশাপাশি প্রয়োজন অদম্য লড়াকু মনোভাব।
ব্যক্তি জীবনে এক কন্যা সন্তানের জননী সাবরিনা। সংসার এবং কর্মক্ষেত্র কীভাবে সমন্বয় করেন এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমি আমার পারিবারিক জীবন আর কর্মজীবনের মাঝে একটা নিয়মতান্ত্রিক সমন্বয় তৈরি করার চেষ্টা করেছি যেখানে আমার স্বামী আর পাঁচ বছরের কন্যার ভ‚মিকাও গুরুত্বপূর্ণ। তারা আমার ক্যারিয়ার নিয়ে সব সময় উৎসাহব্যঞ্জক আচরণ করেন।
ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথা বলতে গিয়ে সাবরিনা জানান, আগামী দিনের কর্মজীবী কর্পোরেট নারীদের জন্য রোল মডেল হিসেবে এগিয়ে নিতে চান সাবরিনা। যাতে তাকে দেখে আরো অনেক নারী এই সেক্টরে কাজ করতে এগিয়ে আসে এবং পুরুষের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে জাতীয় উন্নয়নে অবদান রাখে। পাশাপাশি এই সেক্টরে নারীদের ক্যারিয়ার গঠনে সহায়ক বিভিন্ন উদ্যোগের সঙ্গে নিজেকে তিনি সম্পৃক্ত করতে চান।

  • আরও পড়ুন
  • লেখকের অন্যান্য লেখা