যুগ্ম সচিব হলেন ১৫৪ কর্মকর্তা

আগের সংবাদ

শুরুতেই দুই ওপেনারকে হারিয়ে বিপাকে বাংলাদেশ

পরের সংবাদ

বাংলাদেশকে ২৫৬ রানের লক্ষ্য দিল আফগানরা

প্রকাশিত হয়েছে: September 20, 2018 , 9:30 pm | আপডেট: September 20, 2018, 9:30 pm

অনলাইন ডেস্ক

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক

বল হাতে নিজের অভিষেক ম্যাচে দারুণ শুরু করেন বাঁ-হাতি পেসার আবু হায়দার রনি। এছাড়া সাকিবের স্পিন ঘূর্ণিতে আফগানিস্তান শুরুতে চাপেই ছিল। কিন্তু শেষে রশিদ খান এবং গুলবাদিন নাইবের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৭ উইকেটে ২৫৫ রান তুলে ফেলে আফগানরা। জয়ের জন্য বাংলাদেশ লক্ষ্য পায় ২৫৬ রানের।

প্রথমে টস জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন আফগান অধিনায়ক আসগর আফগান। কিন্তু ভালো শুরু করতে পারেনি তারা। নিজের প্রথম ওভারেই উইকেট তুলে নেন আবু হায়দার রনি। এরপর তার তৃতীয় ওভারে আবার উইকেট নিয়ে আফগান শিবিরে দেন বড় আঘাত। আফগানরা ৫.৫ ওভারে এহসানউল্লাহ জানাত এবং রহমত শাহকে হারিয়ে চাপে পড়ে যায়।

এরপর ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করেন আফগান ওপেনার মোহাম্মদ শাহজাদ এবং টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান হাসমতউল্লাহ শাহেদির ব্যাটে। তারা দু’জন ৫১ রানের জুটি গড়েন। এরপর সাকিব এসে আবার আঘাত হানেন। নিজের প্রথম ওভারে শাহজাদকে ৩৭ রানে ফেরান বাঁ-হাতি অলরাউন্ডার। তাদের দলীয় রান তখন ৭৯। সীমানায় দুর্দান্ত ক্যাচ ধরেন পেসার রনি। এরপর ১০১ এবং ১৩৯ রানে আফগান অধিনায়ক আসগর আফগান এবং অলরাউন্ডার সামিউল্লাহ সেনওয়ারিকে বোল্ড করেন সাকিব।

আফগানদের শুরুর ৫ উইকেটের তিনটিই যায় সাকিবের ঝুলিতে। তবে ফিফটি করে ব্যাট করছিলেন হাসমতউল্লাহ শাহেদি। তিনি রুবেলের বলে ৫৮ রানে উইকেটের পেছেনে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন। আফগানিস্তান ১৫০ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে চাপেই থাকে।

এরপর আবার আঘাত হানেন সাকিব। তিনি ৪১তম ওভারে বল হাতে নিয়ে আফগানদের ১৬০ রানের মাথায় সপ্তম উইকেট তুলে নেন। সাকিব পান তার চতুর্থ উইকেট। কিন্তু লোয়ার অর্ডারে গুলবাদিন নাইব এবং রশিদ খানের ব্যাটিং হিসেব উল্টে দেয়। রশিদ খান খেলেন মাত্র ৩২ বলে ৫৭ রানের ঝড়ো এক ইনিংস। এছাড়া গুলবাদিন নাইব করেন ৩৮ বলে ৪২ রান। দুই অপরাজিত ব্যাটনম্যান অষ্টম উইকেট জুটিতে ৯৫ রান যোগ করে। তাদের শেষ ঝড়ে আফগানদের স্কোর ফুলে-ফেপে দাঁড়ায় ২৫৫ রানে।

বাংলাদেশের পক্ষে এ ম্যাচে সাকিব ১০ ওভার হাত ঘুরিয়ে ৪২ রানে নেন ৪ উইকেট। এছাড়া রনি ৯ ওভারে ৫০ রান দিয়ে পান ২ উইকেট। রুবেল হোসেন পান ১ উইকেট।

বাংলাদেশ ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি এ ম্যাচের আগে দারুণ এক মাইলফলকের সামনে ছিলেন। আর মাত্র ৪ উইকেট পেলে বাংলাদেশের প্রথম বোলার হিসেবে ২৫০ উইকেট বসবে তার নামের পাশে। এছাড়া পেসারদের মধ্যে তিনি হবেন ১৭তম ২৫০ উইকেট পাওয়া পেসার। কিন্তু মাশরাফি ৮ ওভার হাত ঘুরিয়ে কোন উইকেট পাননি। দিয়ে ফেলেন ৬৭ রান।

  • আরও পড়ুন
  • লেখকের অন্যান্য লেখা