রোহিঙ্গাদের কাছে ক্ষমা চান : হাছান মামুদ

আগের সংবাদ

গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠার বক্তব্য তথ্যভিত্তিক : সিইসি

পরের সংবাদ

মতবিনিময় সভায় বক্তারা- সিপিসিতে রোহিঙ্গা ইস্যু তোলা হবো

প্রকাশিত: অক্টোবর ২৬, ২০১৭ , ৭:০০ অপরাহ্ণ আপডেট: অক্টোবর ২৬, ২০১৭ , ৭:১৩ অপরাহ্ণ

কমনওয়েলথ পার্লামেন্টারি সম্মেলনে (সিপিসি) রোহিঙ্গা ইস্যুটিকে নিশ্চয় তোলা হবে। তবে কিভাবে তোলা যায় তা আমাদের বসে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। কেননা, ৬৩তম সিপিসি সম্মেলনে এটি একটি নতুন ইস্যু। সিপিসির আলোচনার ইস্যুতে এটি অন্তর্ভূক্ত করা হয়নি। নতুন করে নিজেরা আলোচনা করে উত্থাপনের পথ বের করতে হবে। তবে সম্মেলনের ৬ষ্ট দিনে ওয়াকশপ এইচ-এ ‘হোয়াট ফ্যাক্টরস ফুয়েল দি রাইস অব ডিফারেন্ট কাইন্ডস অব ন্যাশানালিজম’ শীর্ষক একটি বিষয়ে আলোচনা হবে, ওখানে রোহিঙ্গা সমস্যার বিষয়ে আলোচনার সুযোগ রয়েছে বলে জানিয়েছেন ৬৩ তম সিপিএ সম্মেলনের মিডিয়া তত্বাবধান কমিটির সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ এমপি।

বৃহষ্পতিবার জাতীয় সংসদের পার্লামেন্ট মেম্বারস ক্লাবে আয়োজিত এক মতবিনিময় সভায় তিনি এমন মন্তব্য করেন। আগামী ১-৮ নভেম্বর রাজধানী ঢাকায় কমনওয়েল্থ পার্লামেন্টারী এসোসিয়েশনের ৬৩ তম সম্মেলন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।

এসময় মত বিনিময় সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন, কমিটির সদস্য সাবেক তথ্যমন্ত্রী আবুল কালাম আজাদ এমপি, তানভীর ইমাম এমপি ও ফজিলাতুন ন্নেসা বাপ্পি, সংসদ জনসংযোগ পরিচালক মোতাহার হোসেন, তারিক মাহমুদ, উপ পরিচারক নুরুল হুদা প্রমূখ।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে নাবিল আহমেদ বলেন, গত আগস্ট মাসে ৬৩তম সিপিসি সম্মেলনের আলোচ্য বিষয় ঠিক হয়ে যায়। তখন রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ বিষয়টি ঘটেনি। তাই এটি অন্তর্ভূক্ত করা যায়নি, এখন আর সম্ভব নয়। তবে সম্মেলনের ৬ষ্ট দিনে ওয়াকশপ এইচ-এ ‘হোয়াট ফ্যাক্টরস ফুয়েল দি রাইস অব ডিফারেন্ট কাইন্ডস অব ন্যাশানালিজম’ শীর্ষক একটি বিষয়ে আলোচনা হবে। এখানে সিপিএর একটি পার্ট হিসেবে বাংলাদেশ রোহিঙ্গা ইস্যুটিকে সম্মেলনে উত্থাপণ করতে পারবে বলে জানান তিনি।

অন্য সদস্য তানভীর ইমাম বলেন, তবে কি ভাবে আমরা ইস্যুটিকে তুলবো তা আমাদের আলোচনা করে ঠিক করতে হবে। এটি এখন দু দেশের সমস্যা নয়, এটি মাল্টিলেটারাল সমস্যা। তাই সবাই এ বিষয়টি ওয়াকিবহাল। সম্মেলনে এটি নিয়ে সিপিএ ভ’ক্ত দেশগুলোর দৃষ্টি আকর্ষন করা হবে।

লিখিত বক্তব্যে নাবিল আহমেদ জানান, আগামী ৬৩তম সিপিএ সম্মেলনে সদস্য হিসেবে ৫২ টি রাষ্ট্র, এদের নিয়ে ৯ টি রিজিওন, এসব দেশের একাধিক সংসদ কক্ষ নিয়ে মোট ৬৫০ জন অতিথি আসবেন। এর মধ্যে বিভিন্ন দেশের ১৮০ জন স্পিকার ও ডেপুটি স্পিকার এ সম্মেলনে অংশ নিচ্ছেন। ইতিমধ্যে ১৫০ জন রেজিস্ট্রেশন করে ফেলেছেন। তাই আমাদের চলমান সমস্যা রোহিঙ্গা সমস্যা, জলবায়ু বিষয়ক ইস্যূ, নারীর ক্ষমতায়নসহ চলমান গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো নিয়ে সিপিসিতে আলোচনা হবে।

আবুল কালাম আজাদ বলেন, সম্মেলন উপলক্ষে নিরাপত্তা ব্যবস্থা ঢেলে সাজান হচ্ছে। নিরাপত্তা বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়েছে। আশা করি নির্বিঘেœ আমরা এ সম্মেলন শেষ করতে পরবো। যাতে করে বাংলাদেশের গণতন্ত্র চর্চাসহ উন্নয়নের নানান বিষয়ে সিপিএ ভুক্ত দেশগুলো জানতে পারবে। এর ফলে প্রতিনিধিদের কাছে বাংলাদেশের সুনাম বাড়বে বলে জানান তিনি।

সম্মেলন কভার করতে আসা সাংবাদিকদের বিভিন্ন অসুবিধার কথার প্রেক্ষিতে নাবিল আহমেদ জানান, এবারে যাতে প্রতিটি সেশনের পরে প্রেস ব্রিফিং হয়, সাংবাদিকরা কাজ্রে জন্য পর্যাপ্ত ল্যাবটপ ও ইন্টারনেট সেবা পায় এবং দুপুরের খাবারসহ সব ধরনের সহযোগিতার বিষয়টি তারা নিশ্চিত করার চেষ্টা করবেন।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়