আর্য্য ও সোনালি ডানার পাখি : শরদিন্দু ভট্টাচার্য্য টুটুল

আমাদের আর্য্য যখন ঘুম থেকে উঠেই জানলো ওর সোনালি ডানার পাখিটা ভোর বেলা উড়ে গেছে অসীম আকাশের ঠিকানায়, তখনই তার মন খারাপ হয়ে গেল। আর্য্যরে মন খারাপ হওয়া মানেই হলো, বাসার সবার... বিস্তারিত

আম কাঁঠালের স্মৃতি : বাসুদেব খাস্তগীর

আম কাঁঠালের পাগল করা সুবাসিত ঘ্রাণে, গাঁয়ের স্মৃতি আসে ফিরে দোল দিয়ে যায় প্রাণে। আনছি কত গাছে উঠে এসব মুঠি মুঠি, উঠোন বসে খেয়ে সবাই খেলছি লুটোপুটি। আম কাঁঠালের মাঝেই খেলে হাজার... বিস্তারিত

ফিরে এল টিংটং : শামীম খান যুবরাজ

‘মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে এল টিংটং।’ পত্রিকার প্রধান শিরোনাম। মাছেদের পত্রিকা। ‘টিংটং’ একটি চিংড়ি মাছের নাম। যুবক চিংড়ি। সাহসী। শিকারির হাতে ধরা পড়ে সে। তারপর কৌশলে পালিয়ে আসে পুকুরে। আজ পুকুরজুড়ে বেশ... বিস্তারিত

রোদ্দুর : রওশন মতিন

সোনাঝরা হাসি হেসে রোদশিশু রোদ্দুর, ডানপিঠে খেলে যায় চোখ যায় যদ্দুর! রোদশিশু বন্ধু যে কড়া নাড়ে দরজায়, ঝিকিমিকি হাসিমুখে কাছে ডাকে আয় আয়! দিনগুলো রঙিন ইস্কুলে ছুটে যাই, বর্ণিল হাসি খুশি রোদশিশু... বিস্তারিত

কুহেলিয়া নদী : মিজান মনির

বাড়ি থেকে একটু দূরে কুহেলিয়া নদী ছলাৎ ছলাৎ কলতানে বহে নিরবধি। নদীর ধারেই কাশেরই বন সমীরণে নাচছে ফেলে আসা স্মৃতিরা হায় প্রতিটা দিন ডাকছে।... বিস্তারিত

রং-বেরঙের স্বপ্ন : আজিম হোসেন

আমরা কিশোর- রং-বেরঙের স্বপ্ন নিয়ে ঘুড়ির মতো উড়ব, হাওয়ায় হাওয়ায় অতি সুখে সপ্ত আকাশ ঘুরব। আমরা কিশোর- রঙিন আশায় গড়তে জীবন পাঠশালাতে পড়ব, সত্য ন্যায়ের পথটি ধরে সুখী সমাজ গড়ব। আমরা কিশোর-... বিস্তারিত

বিষ্টি ঝরে : পৃথ্বীশ চক্রবর্ত্তী

বিষ্টি ঝরে মিষ্টি স্বরে আমার সবুজ গাঁয় ছাতা মাথায় গায়ের পথে টিটু-নিটু যায়। বিষ্টি ঝরে ঝম ঝম করে ইষ্টিকুটুম গায় পাল টানিয়ে নায়ের মাঝি ভাটির দেশে যায়। বিষ্টি ঝরে সৃষ্টি নড়ে হাসে... বিস্তারিত

চেতনার ফুল : দিলারা সামস্ দিলু

কবিতা, গানে বুলবুল বাঁশিতে চেতনার ফুল ডাগর চোখ, ঝাঁকড়া চুল দ্রোহের কবি নজরুল। তুমি বীর সৈনিক মেহনতি মানুষের প্রতীক পরাধীনতার শিকল ভাঙার গান প্রেরণায় অগ্নিবীণার তান। জেল, জুলুম, অত্যাচার নির্ভীক সেজে মানোনি... বিস্তারিত

সাইকেল রহস্য : সাইফুল ইসলাম জুয়েল

মফস্বলের ছোট্ট শহর থেকে ঢাকায় আসার পরে একটা বড়সড় ধরনেরই ধাক্কা খেল রাফিন। শহুরে কাজিনরা ওকে মোটেও পাত্তা দেয় না। এখন স্কুল ছুটি চলছে। মা বলেছিলেন, কোথাও বেড়িয়ে আয় রাফিন। ভালো লাগবে।... বিস্তারিত

জ্যৈষ্ঠের দুপুরে : হাসান ইকবাল

জ্যৈষ্ঠের দুপুরে ঘুম নেই ছোট খোকাখুকির, রোদের সাথে চলছে খেলা হলুদ সূর্যমুখীর। চাতক ডাকছে জলের জন্যে পাতার ওই আড়ালে, কি আর ক্ষতি আম কাঁঠালের গন্ধে মন হারালে। গ্রীষ্মের গরমে কেউ বা সাধছে... বিস্তারিত

পিপলু : শিবশঙ্কর পাল

সপ্তাহের দু-তিনদিন পিপলুকে বাবার সঙ্গে ব্যাগ হাতে বাজারে যেতে হয়। বাবা বাজারে গিয়ে মাছ-তরকারি ইত্যাদি কিনে দিলে তা বাড়িতে বয়ে নিয়ে আসতে হয়। বাবা দোকানে যাওয়ার পথে পিপলুকে সঙ্গে নিয়ে যায়। বাজারটা... বিস্তারিত

বাবা : মিজানুর রহমান

বাবা আমার প্রিয় মানুষ আমার আপনজন, বাবার জন্য মনটা আমার পাগল সারাক্ষণ। বাবা আমার স্বপ্নছায়া নিবিড় ভালোবাসা, বাবার হাতেই পূর্ণতা পায় আমার সকল আশা।... বিস্তারিত

প্রজাপতি : আজিম হোসেন

ঐ সুদূরের নীল আকাশে রঙের ছড়াছড়ি, প্রজাপতির রঙিন ডানায় স্বপ্নের গড়াগড়ি। রংবেরঙের ফুলের মাঝে ঘুরে সারাক্ষণ, যেথায় সেখায় উড়ে বেড়ায় চঞ্চলা তার মন। হিজল তলার সবুজ ঘাসে প্রজাপতির আসর, মিষ্টি রোদে ফুল... বিস্তারিত

দূর নক্ষত্র থেকে এসেছিল কেউ! : শরদিন্দু ভট্টাচার্য্য টুটুল

ঘরের এক কোনায় অদ্ভুত এক প্রাণীকে মানুষের মতো বসে থাকতে দেখে অমলেশ কিছুটা ভয় পেয়ে গিয়েছিল। প্রাণীটা মানুষের মতো বসে থাকলেও এটা ঠিক মানুষের মতো নয়। কেমন যেন অন্যরকম। অমলেশ সাধারণত এসব... বিস্তারিত

চড়ুই পাখি : আজিম হোসেন

তিড়িং বিড়িং চড়–ই পাখি গাছের ডালে ঘুরে, ফুড়ুৎ-ফাড়–ৎ যখন-তখন যেখায়-সেথায় উড়ে। দুষ্ট চড়–ই সারাক্ষণই থাকে অতি ব্যস্ত, ছোটখাটো পোকা পেলে গিলে ফেলে আস্ত। সরু ডালের চিরল পাতায় কিচির মিচির ডাকে, ইচ্ছে হলেই... বিস্তারিত

বিশ্বকবি : মীর রবিউল ইসলাম রবি

দাড়ি আর গোঁফে আমি রবিকে চিনি, কবিতায় জগৎ জোড়া বিশ্বকবি তিনি । গল্প লেখে জমিয়ে বেশ রবি ঠাকুর কবি, রং তুলিতে আঁকেন তিনি কত রকম ছবি।... বিস্তারিত

বকুলতলা : মণিকাঞ্চন ঘোষ প্রজীৎ

ফুলে ফুলে প্রজাপতি নাচছে নতুন ছন্দে; ছোট্ট এ মন ভরে গেল বকুল ফুলের গন্ধে। বকুলতলায় বকুল ডাকে চায় সে নিতে ছুটি; আমরা সকল খোকাখুকু বকুলতলায় জুটি। ভ্রমরগুলো কোমর বেঁধে আসছে ধেয়ে ধেয়ে... বিস্তারিত

শ্রেষ্ঠ কবিকুল : রেজাউল করিম জীবন

লিখেছো কবিতা, লিখেছো ছড়া লিখেছো সাম্যের গান, গল্প উপন্যাস সমান তালে করেছো তুমি দান। মানুষে মানুষে তফাৎ নাই একই রক্তে গড়া, নীতিতে অটল, কর্মই সব সৃষ্টিতে নবধরা। সাহিত্য আকাশ উজ্জ্বল করে আছো... বিস্তারিত

গ্রীষ্মের গরমে : মির্জা আদিপ

গ্রীষ্মের গরমে টসটসে আম পাকে, তাই দেখে অপলক দুই চোখ চেয়ে থাকে। ডালে ডালে কুচকুচে পাকা পাকা জাম রয়, ছেলেগুলো জোট বেঁধে গাছ থেকে ছিঁড়ে লয়। ঝোপা-ঝোপা লিচু দেখে বুড়োটাও থেমে যায়,... বিস্তারিত

জিত : হোসেন শওকত

– ওই ছেলেটার কান মলে দিয়ে আয় তো। – কেন? – তোর সাহস কতোটুকু দেখি। পরীক্ষা নিচ্ছি। তেঁতুলগাছের ডালে বসা দুজন। একজন লম্বা, একজন পিচ্চি। ঝট করে নেমে যায় পিচ্চি। হাওয়ায় ভেসে... বিস্তারিত

Bhorerkagoj