শীতের সকাল : রমেন্দ্র চন্দ্র বর্মণ

চারদিক আজ শিশির সমুদ্র আকাশে নেই রবি আবির আলপনায় রাঙা আলো দেখিনি রক্তিম ছবি। কুয়াশায় ঢাকা সবুজ ক্ষেত জনশূন্য জনপদ জড়োসড়ো হয়ে পশুর পাল সবাই হয়েছে বধ। দেখি শুধু সব বদ্ধ দুয়ার... বিস্তারিত

মিতার জন্মদিন : রণজিৎ সরকার

মিতা রুমে ঢুকল। টেবিলের পাশে গেল। কেক রাখা। চারপাশে মোমবাতি। বেশ কয়েকটা মোমবাতি। এদিক-ওদিক তাকাল। রুমে কেউ নেই। ও অবাক হলো। আজ টেবিলে এসব রাখা কেন! হঠাৎ একটা মোমবাতি বলে, ‘মিতা, কেমন... বিস্তারিত

ডিসেম্বরের ষোলো : শামীম খান যুবরাজ

আমরা ছিলাম খুব পরাধীন একাত্তরের আগে, শেখ মুজিবের ডাক শুনে ভাই বীর জনতা জাগে। বীরের বেশে যুদ্ধ শেষে সুখের সেদিন এল, লাল সবুজের টগবগানো ঝাণ্ডা হাতে পেল। সেদিন ছিল ষোলো তারিখ ডিসেম্বরের... বিস্তারিত

বিজয় মাসে : আব্দুস সালাম

এই দেশেরই জল মাটিতে করছে বসত যারা ভিন্ন দেশের স্বপ্ন কেন দেখছে আবার তারা? একাত্তরের ডিসেম্বরে আমরা বিজয় আনি হায়েনাদের দোসর আজও দিচ্ছে যে হাতছানি। যাদের আজও আদর্শটা এ দেশ থেকে ভিন্ন... বিস্তারিত

অদ্ভুত ছড়া : জাহাঙ্গীর ডালিম

একটা ছড়া চালাক চতুর একটা ছড়া বোকা, একটা ছড়া লেবুর বনে খায় জোনাকি পোকা। একটা ছড়া দৌড়ে ছোটে একটা চলে হেঁটে, একটা ছড়া আবাস গড়ে পাহাড় কেটে কেটে। একটা ছড়া আসবে কাছে... বিস্তারিত

হেমন্ত এলো : ফরিদ আহমেদ হৃদয়

পাকা ধানের গন্ধে হেমন্ত আসে ক্ষেত ভরা ধান দেখে চাষি ভাই হাসে। কাস্তেটা হাতে নিয়ে গায় কত গান মুঠি মুঠি ধরে চাষি কাটে পাকা ধান। বোঝা করে নিয়ে আসে উঠানোর মাঝে কৃষাণীরা... বিস্তারিত

পরী : কে এইচ মাহাবুব

লাল পরী নীল পরী এসো সবাই খেলা করি ইটের কণায় চাল আর ইটের গুঁড়ায় ডাল, কচুর ডাগে মাছ আর বাঁশের পাতায় ঝাল। লাল পরী নীল পরী এসো সবাই খেলা করি সাপের গোটায়... বিস্তারিত

হেমন্তের কালে : জাহাঙ্গীর ডালিম

ভোরের পাখি গান ধরেছে গাছের ডালে ডালে শিশির ঝরে টাপুর টুপুর হেমন্তের কালে। চাষির চোখে ঘুম বেশি নেই নানান চিন্তা করে সোনালি ধান মাঠ ভরা চোখ যত দূর পড়ে। সবার মুখে ফুলের... বিস্তারিত

জলভূত : মোতাহার হোসেন তালুকদার

পিতলের একটা কলসি। কলসির রঙ তামাটে। তাতে আবার নানা রঙের কারুকাজ। কিন্তু কেমন করে যেন কলসিটা নদীর জলে ভাসছে। পিতলের জিনিস কিন্তু পানিতে ভাসার কথা না। বড়ই আশ্চর্যের ব্যাপার, তাই না? মিতা... বিস্তারিত

গ্রামের কুটির : সঞ্জয় দেবনাথ

দেখেছি নগরে থরে থরে আছে রাস্তা, গলির মোড় অলিতে গলিতে রাশি রাশি মুখ যান্ত্রিকতায় বিভোর। দালানের ভিড়ে যায় নাতো দেখা আকাশের নীল বেশ ফুল পাখি নদী পাই নাকো আর কোথায় নিরুদ্দেশ? হাসি... বিস্তারিত

জঙ্গিভূতের ছড়া : তৌহিদ-উল ইসলাম

খোকা বলে, জঙ্গি আবার কারা? খুকু বলে, খুব সহজে যায় না যাদের ধরা। খোকা বলে, তাহলে সে বন্যহাতি নয় তো পাগলা ঘোড়া। খুকু বলে, ঠিক ধরেছো খোকা! তবে এদের বনবাদাড়ে যায় না... বিস্তারিত

পুতুল বিয়ে : জাকির আহ্মেদ খান

কালকে খুকির পুতুল বিয়ে তাইতো এমন সাজ ঢাক কুড়কুড় বাজনা বাজে সকাল দুপুর আজ। বাড়ি জুড়ে খুশির জোয়ার কাল পুতুলের বিয়ে বর আসবে পালকি নিয়ে টোপর মাথায় দিয়ে। সোনা দানার গয়না দিয়ে... বিস্তারিত

পদ্মমধু : আব্দুস সালাম

বনের পাশে ছিল একটি রাজ্য। সেই রাজ্যটি ছিল খুবই সুন্দর। ধনী-গরিব সবাই সুখে-দুঃখে বাস করত। সেই রাজ্যের রাজার ছিল একটি মাত্র মেয়ে। মেয়েটি ছিল খুবই সুন্দরী। রাজা মেয়েকে খুব আদর করতেন। এই... বিস্তারিত

বিজয়ের গান : ফজলে রাব্বী দ্বীন

আমরা স্বাধীন বীরের জাতি সৃষ্টিমাঝে বিস্ময়! বন্দি শিকল ভেঙে আনি স্বাধীনতা নিশ্চয়। দেশের প্রেমে করল যারা উজাড় জনম, কর্ম; পরের দুপা চাটতে হবে মানেনি কুধর্ম। লাখো সালাম, বরকতেরা তন্দ্রালোকের পুলক, বুকের রক্তে... বিস্তারিত

স্মৃতি : মিজানুর রহমান মিথুন

আমার একটা স্মৃতি ছিল ভীষণ ভালো, ইচ্ছে হলেই মনের কোঠায়, জ্বালতো আলো, মুছতো মনের আঁধার কালো, উঠতো জ্বলে ঝলমলিয়ে, উঠতো হেসে খলখলিয়ে। এখন আমার সেই স্মৃতিটা যায় হারিয়েছে চুপে, খুঁজে বেড়াই স্মৃতিটাকে... বিস্তারিত

হরিণ ছানা : মীর রবি

সবুজ বনে হরিণ ছানা সবুজ পাতা খায়, বানর ছানার সাথে আবার সুরের গান গায় । হরিণ ছানা বানর ছানা বন্ধু হলো বেশ, হন্য হয়ে ছুটে বেড়ায় সবুজ বনের দেশ । হঠাৎ একদিন... বিস্তারিত

মেঘলা আকাশ : মণিকাঞ্চন ঘোষ প্রজীৎ

সকাল থেকে আজকে আকাশ মেঘলা হয়ে আছে সুন্দরবনে পেখম মেলে মন ময়ূরী নাচে। চাতক বসে বাজায় বাঁশি মন ভোলানো সুর ছুটির দিনে খোকা খুকু যাচ্ছে অনেক দূর। আজ আমাদের পড়া নেই শুধুই... বিস্তারিত

এক চোখা রাক্ষস : সোহেল রানা

গ্রামের মানুষ আজ খুবই আতঙ্কগ্রস্ত। সবার একটাই ভয়, কখন জানি প্রাণটা চলে যায়। সেই ভয়ে গ্রামবাসী কোনো কাজকর্ম করতে পারছে না। বাচ্চাদের স্কুলে যাওয়া বন্ধ। খাওয়া দাওয়া ছেড়ে দিয়ে সবাই যার যার... বিস্তারিত

মাছের হাসি : সাঈদ সাহেদুল ইসলাম

টেংরা-মাগুর-শিং হাসেতো কাঁটার অহঙ্কার করে, চিংড়ি হাসেন তিড়িং বিড়িং ষোলটি পা দাঁড় করে। চিতল-কাতল-মৃগেল-ইলিশ রুই’র হাসির ভার আছে, বোয়াল-পাঙ্গাশ-আড়ের মতো বিশাল হাসি কার আছে? গজার-টাকির চুটকি লাফিং শোলে হাসে গোল করে, মলা-ঢেলা-ফলি-পুঁটি... বিস্তারিত

ডাইনি বুড়ি : আব্দুস সালাম

গ্রামের নাম মায়াকানন। সে গ্রামে ছিল নদী, দিঘি, ফুল বাগান, সবুজ মাঠ, চারদিকে নানা রঙের পাখি। ধনী ও দরিদ্র সবাই একসঙ্গে সুখে-দুঃখে বাস করত। ছোট ছোট ছেলেমেয়েরা মনের আনন্দে খেলাধুলা করত। হঠাৎ... বিস্তারিত

Bhorerkagoj