ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর : গণস্বাস্থ্যের মন্তব্য অসৌজন্যমূলক

মঙ্গলবার, ২৮ এপ্রিল ২০২০

কাগজ প্রতিবেদক : ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মাহবুবুর রহমান বলেছেন, সব কিছু ফয়সালা হয়ে যাওয়ার পর গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র সংবাদ সম্মেলন করে অযাচিত ও কটু মন্তব্য করেছে। যদিও শুরু থেকেই অধিদপ্তর গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রকে সব ধরনের সহযোগিতা দিয়ে আসছে।

গণস্বাস্থ্য উদ্ভাবিত করোনা নির্ণায়ক জিআর কোভিড-১৯ র‌্যাপিড টেস্টিং কিট নিয়ে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে গতকাল সোমবার স্বাস্থ্য মিডিয়া সেল সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। এতে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মাহবুবুর রহমান অসহযোগিতার অভিযোগ অস্বীকার করেন। তিনি বলেন, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র এখন পর্যন্ত ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরকে সহযোগিতা করার জন্য ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়ে যে তিনটি চিঠি দিয়েছে। গত রবিবারও তাদের বৈঠকটি ‘সৌহার্দ্যপূর্ণ’ ছিল।

অনুমোদনের শর্ত হিসেবে একটি ফার্মের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হওয়ার বাধ্যবাধকতা আছে। এর মাধ্যমে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের ঘুষ খাওয়ার সুযোগ আছে বলে গতকাল রবিবার সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের জাফরুল্লাহ চৌধুরী। এই মন্তব্যকে অত্যন্ত আপত্তিকর (অবজেকশনেবল) বলে উল্লেখ করেন মাহবুবুর রহমান।

গত রবিবার জরুরি সংবাদ সম্মেলনে জাফরুল্লাহ চৌধুরী অভিযোগ করেন, ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরে গিয়েও গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র কিট জমা দিতে পারেনি। অনুমোদনের শর্ত হিসেবে তাদের একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হতে বলা হচ্ছে। অধিদপ্তরের উচিত ছিল কিটগুলো বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) পাঠিয়ে পরীক্ষা করে দেখা।

তিনি বলেন, নিয়ম অনুযায়ী, একটি কন্ট্রাক্ট রিসার্চ ফার্মের (সিআরও) সঙ্গে উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানকে চুক্তিবদ্ধ হয়ে প্রটোকল তৈরি করতে হয়। প্রটোকলে কিটটি কার্যকর কিনা, সেটির ট্রায়াল কিভাবে হবে, কতজনের ওপর হবে, কত সময়ের মধ্যে হবে, সে বিষয়গুলোর উল্লেখ থাকে। বাংলাদেশ মেডিকেল রিসার্চ সেন্টার (বিএমআরসি) থেকে উৎপাদন প্রক্রিয়া যথাযথ ছিল কিনা, সে সম্পর্কিত মূল্যায়ন হওয়ার বাধ্যবাধকতা আছে। ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর ট্রায়ালের কাগজপত্র ও বিএআরসির মূল্যায়নপত্র খতিয়ে দেখে বিপণন বা বাজারজাতকরণের অনুমতি দেবে।

ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বলেন, অধিদপ্তরের যে কমিটি অনুমোদন করে থাকে, সে কমিটির সদস্যরা বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় বিজ্ঞানী ও সংশ্লিষ্ট বিষয়ে দক্ষ। গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র সিআরও হিসেবে কার সঙ্গে কাজ করতে পারে, জানতে চাইলে মহাপরিচালক আইসিডিআর,বি, আইইডিসিআর ও আইপিএইচ এর কথা বলেন। জোর দেন আইসিডিডিআর,বির ওপর।

তিনি বলেন, পরে প্রতিনিধিদল বলে, আইসিডিডিআর,বি লকডডাউন। যদিও আইসিডিডিআর,বির আংশিক লকডাউন এবং গবেষণা কাজ চলছে। পরে তাদের নয়টি প্রতিষ্ঠানের কথা বলা হয়। চিঠি চাইলে হাতে হাতে চিঠিও দেয়া হয়। বেসরকারি সংস্থা এমিনেন্সের কথাও তিনি বলেছেন বলে উল্লেখ করেন।

তিনি বলেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা র‌্যাপিড টেস্ট সুপারিশ করে না। তারপরও বাংলাদেশের বিজ্ঞানীরা করছেন বলে তারা সহযোগিতা করেছেন। রিএজেন্ট আনার অনুমতি ১৮ মার্চ চান, ২০ তারিখে অনুমতি দেয়া হয়। অধিদপ্তর ২২ মার্চ অনুমোদন প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে গবেষণাগার দেখতে চায়। গবেষণাগার দেখে এসে কিছু সংশোধনের পরামর্শ দেয়। ৬ এপ্রিল তারা আবারো পরিদর্শনে যান এবং দেখেন সুপারিশ অনুসারে গবেষণাগারে প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি এনেছেন।

হস্তান্তর অনুষ্ঠান প্রসঙ্গে মহাপরিচালক বলেন, আমরা অনুমোদনের পর অনুষ্ঠান করার অনুরোধ করেছিলাম। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, কিট ভালো কি মন্দ, তা নিয়ে পরীক্ষার আগে কোনো মন্তব্য করব না। জাফরুল্লাহ চৌধুরীকে সম্মান করি। আশা করি, তিনি বিজ্ঞানভিত্তিক ও সৌজন্যমূলক আচরণ করবেন।

প্রথম পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj