জার্সির ভিত্তি মূল্য ২ লাখ টাকা

সোমবার, ২৭ এপ্রিল ২০২০

কাগজ প্রতিবেদক : বাংলাদেশের ফিফা রেফারি তৈয়ব হাসান বাবুর জার্সিটির দাম উঠেছে ৫ লাখ ৫৫ হাজার টাকা। এর আগে ২ লাখ টাকায় সাতক্ষীরার এক তরুণ ব্যবসায়ী শেখ তানজিম কালাম তমাল কেনার আগ্রহ দেখিয়েছিলেন, যা ছিল জার্সিটির নিলামের ভিত্তিমূল্য। করোনার প্রভাবে কর্মহীন শ্রমজীবী অসহায় ও দুস্থ মানুষদের সাহায্যার্থে নিজের ইতিহাস গড়া জার্সিটি নিলামে তোলার ঘোষণা দেন এই ফিফা রেফারি। ২০১৩ সালে কাঠমান্ডুতে সাফ ফুটবলের ফাইনাল ম্যাচ পরিচালনা করার সময় পড়া ওই জার্সিটি ৫ লাখ ৫৫ হাজার টাকায় কিনতে যাচ্ছেন সাতক্ষীরা চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রির সভাপতি নাছিম ফারুক খান মিঠু।

এ প্রসঙ্গে তৈয়ব হাসান বলেন, আমি হয়তো কোনো ক্রীড়াবিদ নই। নামি দামিও কেউ নই। কিন্তু তারপর ভেবেছি এই সময়ে করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের জন্য কিছু করা উচিত। আমার সামান্য আর্থিক অনুদানে যদি একটি মানুষও উপকৃত হয় সেটিই হবে আমার স্বার্থকতা। তাই সাফ ফাইনালের জার্সিটি নিলামে তোলার ঘোষণা দিয়েছি। সেটা থেকে প্রাপ্ত সব অর্থ করোনায় ক্ষতিগ্রস্তদের দিয়ে দেব।

অবশ্য করোনা যুদ্ধে আগে থেকেই লড়ে যাচ্ছেন বিশ^কাপ বাছাই ও এএফসি চ্যাম্পিয়ন্স লিগে দায়িত্ব পালন করা রেফারি তৈয়ব হাসান। সমস্যাগ্রস্ত ভাড়াটিয়াদের প্রতি দিয়েছেন মানবিক দৃষ্টি। বাড়িওয়ালা হয়েও এপ্রিল থেকে কোনো ভাড়া নিচ্ছেন না বাংলাদেশের সাবেক এই ফিফা রেফারি। কেননা, সাতক্ষীরায় তার টিন শেডের বাড়িতে নি¤œবিত্ত মানুষ যে নিদারুণ আর্থিক কষ্টে আছেন।

জার্সিটি নিলামে বিক্রির ঘোষণা দেয়ার পর সর্বপ্রথম কেনার আগ্রহ প্রকাশ করেন সাতক্ষীরার ব্যবসায়ী ডা আবুল কালাম বাবলার ছেলে তোফান কোস্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তরুণ ব্যবসায়ী শেখ তানজিম কালাম তমাল। তিনি বলেন, জার্সি বিক্রির যাবতীয় টাকা করোনা আক্রান্ত বা ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য ব্যয় করার ঘোষণা দিয়েছেন তৈয়ব হাসান। আমি তার এ মহৎ কাজে সাড়া দিয়ে ২ লাখ টাকায় ইতিহাস গড়া ওই জার্সিটি কিনতে অগ্রহ প্রকাশ করেছি।

একই সঙ্গে তানজিম কালাম তমাল তৈয়ব হাসান বাবুর উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে মানবতার কল্যাণে এগিয়ে এসে জার্সিটির নিলামে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করার জন্য দেশ-বিদেশের ব্যবসায়ী ও ক্রীড়া সংগঠকসহ আগ্রহীদের আহ্বান জানানো হয়েছে। এ বিষয়ে তৈয়ব হাসান বলেন, ‘এখন নিলামে কেউ এর চেয়ে বেশি দামে জার্সিটি কেনার ঘোষণা দিতে পারে। কবে জার্সিটি নিলামে ওঠাব তা ঠিক হয়নি। অকশন ফর অ্যাকশন- নামের একটি প্রতিষ্ঠান আমার সঙ্গে যোগাযোগ করেছিল। এখনো চূড়ান্ত কিছু হয়নি।’

সাতক্ষীরা জেলারই কৃতী সন্তান তৈয়ব হাসান আন্তর্জাতিক রেফারি ছিলেন ১৯৯৯-২০১৬ পর্যন্ত। দীর্ঘ ১৮ বছরে শতাধিক আন্তর্জাতিক ম্যাচ পরিচালনা করেছেন তিনি। বাংলাদেশে কোনো রেফারি হিসেবে সবচেয়ে বেশি আন্তর্জাতিক ম্যাচ পরিচালনা করার রেকর্ড এটি। টানা ১০ বছর এএফসির এলিট প্যানেলে ছিলেন। এশিয়ার সেরা ২৫ রেফারির তালিকায় ছিলেন। বিশ^কাপ বাছাই, অলিম্পিক বাছাই, এএফসি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ, এএফসি কাপ, দুটি এশিয়ান গেমস, এএফসি বিভিন্ন টুর্নামেন্টের ফাইনাল রাউন্ড, সাফ, সাফ গেমসসহ অনেক ম্যাচ পরিচালনার অভিজ্ঞতা আছে তার।

তৈয়ব হাসান ২০১৩ সালে নেপালের কাঠমান্ডুতে অনুষ্ঠিত দক্ষিণ এশিয়ার প্রথম রেফারি হিসেবে সাফের ফাইনাল ম্যাচ পরিচালনা করেন। সে ম্যাচে ভারতকে ২-০ গোলে হারিয়ে আফগানিস্তান চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে।

শেষ পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj