অন্দরসজ্জায় বাঙালিয়ানা

রবিবার, ২৬ এপ্রিল ২০২০

সোহেল শামসুদ্দোহা

স্থপতি, সেভেন এস ইন্টেরিয়র

অন্দরসজ্জায় বাঙালিয়ানা টিকিয়ে রাখা আজকাল কঠিন হয়ে পড়েছে। বিদেশি পণ্যের আধিপত্যে হারিয়ে যাচ্ছে আমাদের ভূ-সাংস্কৃতিক অবস্থানের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ উপকরণ। গতানুগতিক প্রতি বৈশাখ পরবর্তী সময়ে ফ্যাশন ট্রেন্ডের ক্ষেত্রে পোশাক থেকে অন্দরসজ্জা সব কিছুতেই আসে বৈচিত্র্য। পোশাকে পরিবর্তন আসার পাশাপাশি আপন নিবাসে বৈচিত্র্য তুলে আনতে এসময়টায় অনেকেই দেশীয় আমেজে ফুটিয়ে তোলেন অন্দরসজ্জা। কল্পনার সব ইচ্ছাগুলো দিয়ে যদি রাঙানো যেত ঘরের প্রতিটি দেয়াল! কেমন হতো যদি আসবাবে থাকত খানিকটা সনাতনী আমেজের মিশেলে ফিউশন।

রৌদ্রজ্বল ঝলমল আকাশে হঠাৎ করেই বৈশাখী ঝড়ের আভাস না থাকলেও হুটহাট এক পশলা বৃষ্টি এ যেন জানিয়ে দিচ্ছে বৈশাখের বার্তা। চিরচেনা বৈশাখের আমেজ এবার বন্দি পালন হলো চারদেয়ালে। প্রাণের এই উৎসবের অনুপ্রেরণায় তাই বাড়িতে বসেই চিন্তা করতে পারেন অন্দরমহলের সাজসজ্জা নিয়ে। নিরবে কেটে গেল বাঙালিয়ানার বৈশাখ। এক মাস পরেই ঈদ। তাই চিন্তা নতুনত্বের। কী কী পরিবর্তন করে অন্দরসজ্জায় আনা যায় নতুনত্ব?

গৃহশৈলীতে নতুন পর্দা ও দেয়ালে নতুন রং এনে দেয় নান্দনিকতার ছোঁয়া। সেই সাথে নানা দেশীয় শৌখিন উপকরন দিয়েও ঘর সাজানো যায়। বৈশাখ বাঙালির নিজস্ব সংস্কৃতির উৎসব তাই অন্দরের সাজে দেশীয় জিনিসের ব্যবহারে সহজেই আনা যায় বৈশাখী আমেজ। বালিশ, কুশন করা যেতে পারে জোড়াতালি কাপড়ের ফিউশনে তৈরি। ম্যাচিং বিছানার চাদর ও কুশন কভার আপনার ঘরের সৌন্দর্য বাড়িয়ে দিবে দ্বিগুন এছাড়াও বাটিক, টাইডাই, নকশীকাথা, হ্যান্ডপেইন্টকেও প্রধান্য দিতে পারেন অন্দরে বাঙালিয়ানা ফুটিয়ে তোলতে। চিরাচরিত রঙ থেকে বেড়িয়ে আসতে বেছে নিন প্রতি বছরের আন্তর্জাতিক কালার ট্রেন্ডকে।

দেয়ালে খানিকটা বৈচিত্র্যতা আনতে রিকশা পেইন্ট করতে পারেন। আসবাব পত্রে খুবই সাধারণ ডিজাইনে খানিকটা ভিনটেজ আবহ আনতে পারেন। খাবার ঘরে সবুজ ইনডোর প্ল্যান্টস দিতে পারেন। বৈশাখের দিনে শুধু বসার ঘরেই নয় বরং খাবারের টেবিলেও থাকা চাই দেশীয় আমেজ, এ ক্ষেত্রে খাবার পরিবেশনে মাটির বাসনের বিকল্প কিছু নেই। পাশাপাশি বিভিন্ন আকৃতির মাটির পটারিতে নানা ধরনের ফুল এবং ইনডোর প্ল্যান্টস এর সংযোগ সুগন্ধি এবং সবুজের ছোঁয়া মনকে ভরিয়ে দেয় প্রশান্তিতে। ফ্লোরে বিছিয়ে রাখতে পারেন মাদুর, শীতল পাটি অথবা শতরঞ্জি।

ছোট বড় কিছু পটারি দিয়ে সাজাতে পারেন সিড়ি ঘরকে। প্রবেশ পথের মুখে দেয়ালে টাঙ্গিয়ে দিতে পারেন মাটির, বেতের অথবা কাঠের কারুকার্য করা আয়না। আজকাল বাজারে মাটির তৈরি অনেক সুন্দর-সুন্দর শোপিছ পাওয়া যায় সেগুলো দিয়েও সাজাতে পারেন ঘরের দেয়ালগুলোকে।

পাশাপাশি ওয়াশরুম বা বাথরুমেও একটু সেকেলে পেইন্ট ব্যবহার করে চমকে দিতে পারেন যেকাউকেই। আসলে কল্পনার রাজ্যের সুরুচির বহি:প্রকাশ যদি হয় চারদেয়ালে তো হোক না! শৈল্পিকতার এই পরশে আপনার মন ভরে উঠবে সেই বাঙালিয়ানার ছোঁয়া।

ফ্যাশন (ট্যাবলয়েড)'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj