করোনার প্রভাব : বলিউডে ক্ষতি ৯০০ কোটি রুপি

শনিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২০

নভেল করোনা ভাইরাসের তাণ্ডবে স্থবির হয়ে পড়েছে গোটা বিশে^র অর্থনীতি। ইতোমধ্যে ভেঙে পড়েছে বিভিন্ন অর্থনৈতিক খাত। এ ধ্বংসলীলায় অন্যান্য খাতের মতো বিনোদন জগতেও ধস নেমেছে। চলচ্চিত্র সমালোচক ও বাণিজ্য বিশ্লেষক তারান আদর্শের মতে, বিশ^ব্যাপী মহামারি করোনা ভাইরাসে ৬০০ থেকে ৯০০ কোটি রুপি ক্ষতি হবে বলিউডে। করোনার কারণে ভারতে বন্ধ আছে প্রায় ৩৫০০-এর বেশি সিনেমা হল। এমনকি যে সব সিনেমা সম্প্রতি মুক্তি পেয়েছে সেগুলোতেও পড়েছে ছোঁয়াছে ভাইরাস করোনার থাবা। ব্যবসা সফল হয়নি একটি সিনেমাও। গত ১৩ মার্চ মুক্তি পেয়েছিল ইরফান খান ও কারিনা কাপুর অভিনীত ‘আংরেজি মিডিয়াম’। এ সিনেমার নির্মাণ ব্যয় ছিল ৩৬ কোটি রুপি, কিন্তু আয় করেছে মাত্র ১৩.৫৪ কোটি রুপি। এর আগে গত ৬ মার্চ মুক্তি পেয়েছিল টাইগার শ্রæফ অভিনীত ‘বাঘি থ্রি’। মার্চের প্রথম থেকেই করোনা সংক্রমণে উদ্বিগ্ন ছিল হলমুখী দর্শকরা, ফলে সিনেমা হলগুলোতে দর্শক সংখ্যাও ছিল কম। এ সিনেমা মুক্তির দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকেই একে একে বন্ধ হতে শুরু হয় সিনেমা হলগুলো। তারান আদর্শ বলেন, মুক্তির দ্বিতীয় সপ্তাহে থিয়েটারগুলো বন্ধ হয়ে যাওয়ায় এ সিনেমার (বাঘি থ্রি) ক্ষতি হয়েছে ১৫ থেকে ২০ কোটি রুপি। বলিউড বক্স অফিসের হিসেবে, এ সিনেমার ব্যয় ছিল ১৩৭.০৫ কোটি রুপি; আয় হয়েছে মাত্র ৮৫ কোটি রুপি। অন্যদিকে ২৪ মার্চ মুক্তির প্রতীক্ষায় ছিল অক্ষয় কুমার ও ক্যাটরিনা কাইফের ‘সূর্যবংশী’। করোনার কারণে অনির্দিষ্টকালের জন্য পিছিয়ে গেছে এ সিনেমা মুক্তির তারিখ। এছাড়া ১০ এপ্রিল মুক্তির কথা ছিল কবির খান পরিচালিত রণবীর সিংয়ের ‘এইটি থ্রি’, কিন্তু তা আর সম্ভব হলো কোথায়! ২২ মে মুক্তির কথা রয়েছে সালমান খান অভিনীত ‘রাধে : ইওর মোস্ট ওয়ান্টেড ভাই’। এখন এ সিনেমার মুক্তি নিয়েও পরিচালক রয়েছেন দ্বিধাদ্ব›েদ্ব। ভারতের আরেকজন চলচ্চিত্র বাণিজ্য বিশ্লেষক গিরিশ জোহর বলেছিলেন, গত বছরের তুলনায় এ বছরের প্রথম তিন মাসেই বলিউডে ৪৫০ কোটি রুপি ক্ষতি হয়েছে। এ বছরে মুক্তি পাওয়া সিনেমাগুলোর আয়ের সঙ্গে গত বছর প্রথম তিন মাসে মুক্তিপ্রাপ্ত সিনেমাগুলোর আয় বিশ্লেষণ করে তুলনামূলক ক্ষতির পরিমাণ নির্ণয় করেছেন তিনি। করোনা ভাইরাসের প্রকোপে এই ক্ষতির পরিমাণ আরো বাড়তে পারে। এমনই ইঙ্গিত দিয়েছেন চলচ্চিত্র বাণিজ্য বিশ্লেষক তারান আদর্শ। ভারতীয় গণমাধ্যম এবিপিকে তিনি বলেন, আমি বিশ^াস করি, আগের স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে যেতে সময় লাগবে। সামনের মাসে যদি পরিস্থিতির একটু উন্নতি হয়, তবুও এটা ভাববেন না যে মানুষজন একেবারে থিয়েটারমুখী হবে। প্রত্যেকেই বর্তমানে একটা ভীতিকর পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যাচ্ছে; তাই সিনেমা দেখতে সিনেমাপ্রেমীদের প্রেক্ষাগৃহে আসতে আরো সময় লাগবে।

:: মেলা ডেস্ক

মেলা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj