প্রাণ ফিরেছে উহানে : চীনে বিয়ের ধুম!

শনিবার, ১১ এপ্রিল ২০২০

কাগজ ডেস্ক : চীনের যে উহান শহর থেকে করোনাভাইরাসের উৎপত্তি টানা সেই শহরেই এখন লেগেছে বিয়ের ধুম। এদিকে ইউরোপ-আমেরিকায় যখন করোনা ভাইরাসে মৃত্যুর মিছিল তখন স্বাভাবিক কর্মচাঞ্চল্য ফিরেছে চীনের উহানে। প্রদেশটির উহান শহর কোভিড ১৯-এর উৎপত্তিস্থল হলেও এত দ্রুত সংকট কেটে যাওয়ায় বিস্ময় স্থানীয়দের মধ্যেই। এদিকে চীনের কারখানাগুলোতে ভেন্টিলেটর, মাস্ক-পিপিইর উৎপাদন পুরো দমে চলছে। যা রপ্তানি হচ্ছে ইউরোপের বাজারে। চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে এখন প্রতিদিনই নতুন আশার আলো নিয়ে ওঠে সূর্য। কেটে গেছে অন্ধকার। এখানকার বাসিন্দারাও তাই মুক্ত বাতাসে রোজকার কাজকর্ম করছেন। শহরের বাসিন্দারা বলেন, করোনা ভাইরাসের উৎপত্তিস্থলে আর কোনো করোনা নেই। ভাবতেই ভালো লাগছে। এই ভাইরাস আমাদের সচেতন করে দিয়েছে। মুখে মাস্ক পরেছি সাধারণ সচেতনতার জন্য। তারা আরো বলেন, দুই মাসের বেশি সময় ঘরে থাকতে থাকতে হাঁপিয়ে উঠেছিলাম। এখন মুক্ত বাতাসে শ্বাস নিতে পারছি। খুব ভালো লাগছে।

চীনের ৭৭ শতাংশ করোনা-মৃত্যুই উহানে। ইয়ংতজে নদীর তীরের এ শহর দেশটির অন্যতম শিল্পাঞ্চল। এক সপ্তাহ এখানে কোনো সংক্রমণের খবর মেলেনি, তাই অন্তত ৭৬ দিন পর লকডাউন খুলেছে, সঙ্গে শপিংমল-রাস্তাঘাট। গেল ২৫ জানুয়ারি থেকে সরকারি নির্দেশে বন্ধ ছিল মৃতদেহ সৎকার। এখন যা ফের শুরু হয়েছে। এদিকে চীনের অন্যান্য স্থানের পরিস্থিতিও স্বাভাবিক হচ্ছে। চলছে পুরোদমে মাস্ক, ভেন্টিলেটর ও ব্যক্তিগত সুরক্ষা সামগ্রী-পিপিই উৎপাদন। যা ইউরোপ ও আমেরিকায় রপ্তানি করছে বেইজিং।

এদিকে ভিয়েতনাম করোনা মোকাবিলায় উল্লেখযোগ্য সাফল্য দেখিয়েছে। চীনের সঙ্গে সীমান্ত থাকলেও দেশটিতে করোনায় মারা যাননি কেউ। চীন সীমান্তবর্তী দক্ষিণ কোরিয়া, মঙ্গোলিয়া, নেপাল, ভুটান, মিয়ানমার, লাওসের পরিস্থিতিও বেশ ভালো। রাশিয়ার অবস্থাও ততটা মন্দ নয়। কেবল পশ্চিমা দেশগুলোতেই আক্রান্ত ও মৃত্যু হার সবচেয়ে বেশি।

এদিকে উহান শহরে এখন লেগেছে বিয়ের ধুম। দুই মাস লকডাউন থাকার পর বুধবার সেটা প্রত্যাহার করে নেয়া হয়েছে। মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন বৃহস্পতিবারের এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, টানা দুই মাসের অবরুদ্ধ দশা কাটার পর উহানের যেসব জুটি প্রাণে বেঁচে গেছেন তারা বিয়ের কাজটা সেরে ফেলতে চাইছেন দ্রুত। তাইতো বিয়ের পিঁড়িতে বসে তারা তাদের এই ‘নতুন জীবনকে’ উদযাপন করছেন। চীনের রাষ্ট্রায়ত্ত দৈনিক গ্লোবাল টাইমসের প্রতিবেদন এসব নবদম্পতিকে নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে। যেমন লকডাউন প্রত্যাহারের পর সেদিনই বিয়ে করেছেন জু লিন। তিনি বলেন, আজ বিশেষ একটি দিন। আমার এবং উহানের জন্য আজ থেকে নতুন এক জীবন শুরু হলো। গত শুক্রবার থেকে হুবেই প্রদেশের উহানের সরকারি কর্তৃপক্ষ বিয়ের নিবন্ধন পুনরায় চালু করে। কিন্তু লকডাউন থাকায় বিয়ের কাজটা সারতে পারছিলেন না অনেকে। অবশেষে বুধবার লকডাউন প্রত্যাহার হলে অনেকেই বিয়ের কাজটা সম্পন্ন করতে শুরু করেছেন। উহানে সরকারি নানা অ্যাপ পরিচালনা করে টেক জায়ান্ট আলিবাবার সহযোগী প্রতিষ্ঠান আলি পে। তারাই জানিয়েছে, উহানে বিবাহ নিবন্ধনের গতি ৩০০ গুণ বেড়েছে।

দূরের জানালা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj