ত্রাণের অপেক্ষায় সোনাগাজীর আশ্রয়ণে গৃহবন্দি মানুষ

সোমবার, ৩০ মার্চ ২০২০

সৈয়দ মনির আহমদ, সোনাগাজী (ফেনী) থেকে : করোনা ভাইরাসের আতঙ্কে থেমে গেছে শ্রমজীবী মানুষের জীবন-জীবিকার চাকা। সোনাগাজী উপজেলার উপক‚লীয় দক্ষিণ চর দরবেশ ইউনিয়নের আদর্শ গ্রাম আশ্রয়ণ প্রকল্প, চর সাহাভিকারী আশ্রয়ণ প্রকল্প ও শাহাপুর আশ্রয়ণ প্রকল্পে বসবাসরত ভূমিহীন নি¤œ আয়ের মানুষ এখন দিশেহারা।

আশ্রয়ণ প্রকল্পগুলো ঘুরে দেখা গেছে, বেশির ভাগ জনসাধারণের করোনা ভাইরাস সুরক্ষা সরঞ্জাম নেই। জিজ্ঞেস করলে তারা বলেন, যেখানে দুই মুঠো ভাত জোটাতে হিমশিম খাচ্ছি সেখানে কীভাবে স্যানিটাইজার ও মাস্ক কিনব?

কথা বলে জানা যায়, নভেল করোনা ভাইরাস আতঙ্কের মধ্যে আমাদের উদ্বেগের বিষয়, কীভাবে আমরা ডাল-ভাত খেয়ে পরিবার-পরিজন নিয়ে বেঁচে থাকব। হোটেল শ্রমিক জামশেদ আলম বলেন, আয় নেই, চলতে পারছি না। সামনে যে কী হবে তাও বুঝতে পারছি না। ছেলেমেয়ে-বউ নিয়ে প্রায়ই না খেয়ে থাকতে হয়। এসব কষ্ট বলে বোঝানো যাবে না। সিএনজিচালিত অটোরিকশা চালক আবদুল কাইয়ুম বলেন, করোনা ভাইরাসের কথা শুনলে শরীর শিউরে ওঠে। আয়-রোজগার নাই, দিন আনি দিন খাই। এভাবে কত দিন চলবে জানি না। রিকশাচালক নুরুল হক বলেন, আমি গরিব মানুষ, রিকশা চালিয়ে সংসার চালাতে হয়। লকডাউনের মধ্যে আমাদের বাঁচার উপায় নাই। একই অবস্থা সাহাভিকারী আশ্রয়ণ প্রকল্প ও সাহাপুর আশ্রয়ণ প্রকল্পে। চরম দুর্ভোগে এসব আশ্রয়ণ এলাকার নি¤œ আয়ের মানুষের।

পল্লী চিকিৎসক মোহাম্মদ মোস্তফা বলেন, এখানকার নি¤œ আয়ের মানুষ খাবারের অভাবে নানান রোগে ভুগছেন। শিশুরাও পুষ্টিহীনতায় ভুগছে। এদের চিকিৎসা নেয়ার সামর্থ্য নেই। চর দরবেশ ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম ভুট্টো বলেন, আমরা পরিষদের পক্ষ থেকে সাধ্যমতো সহযোগিতা করছি। বরাদ্দ পেলে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে তাদের মাঝে বণ্টনের ব্যবস্থা করব। ওই সব আশ্রয়ণ প্রকল্পের গরিব, ভূমিহীন, অসহায়, সুবিধাবঞ্চিত মানুষের পাশে দাঁড়ানো এবং জরুরি ভিত্তিতে খাদ্যসামগ্রী ও করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সুরক্ষা সরঞ্জামাদি সরবরাহ করা এখন সময়ের দাবি।

স্থানীয় সংসদ সদস্য মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী বলেন, সরকার প্রতিটি উপজেলায় এক লাখ টন চাল ও নগদ এক লাখ টাকা করে বরাদ্দ দিয়েছে। অবস্থার পরিবর্তন না হলে আরো বরাদ্দ দেয়া হবে।

সারাদেশ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj