প্রয়োজনীয় অ্যাপে হোম অফিস

রবিবার, ২৯ মার্চ ২০২০

সম্প্রতি আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক তার বাসা থেকে প্রায় একশ আইসিটি বিশেষজ্ঞ, আইসিটি সংগঠনগুলোর নেতা, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি কোম্পানির শীর্ষ নির্বাহী এবং গণমাধ্যম কর্মীদের নিয়ে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মতবিনিময় করেছেন। এ জন্য তিনি ব্যবহার করেছেন জনপ্রিয় অ্যাপ জুম। প্রতিবন্ধকতা কাটিয়ে প্রযুক্তিগত সহায়তায় বাড়ি/বাসায় বসে কীভাবে সবকিছু সচল রাখা যায় এ নিয়ে প্রায় আড়াই ঘণ্টার সেশন পরিচালনা করেন তিনি। বাড়িতে বসে অফিসের কাজ করা বেশ কঠিন হলেও উন্নত প্রযুক্তি তা অনেকটা সম্ভব করে তুলেছে। ডটনেটে এবার হোম অফিস ধারণা নিয়েই থাকছে প্রধান প্রতিবেদন।

করোনা আতঙ্কের কারণে সারাবিশ্বে নতুন একটি ধারণা বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে, সেটি হলো হোম অফিস। বাড়িতে কাজের ক্ষেত্রে এগিয়ে আছে প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলো। গুগল, মাইক্রোসফট, টুইটার, হিটাচি, অ্যাপল, আমাজন, শেভরন, সেলসফোর্স, স্পটিফাইয়ের মতো কোম্পানি কর্মীদের বাড়ি থেকেই কাজের অনুমতি দিয়েছে। বাংলাদেশে গ্রামীণফোন, রবি ও বাংলালিংক, ইফনিলিভারসহ অনেক বেসরকারি কর্পোরেট প্রতিষ্ঠান নিজেদের কর্মীদের এ অনুমতি দিয়েছে।

অফিসের কাজ টিম ওয়ার্কে আরো সহজভাবে সম্পন্ন করতে দারস্থ হতে পারেন নানা ধরনের অ্যাপসের।

টিমভিউয়ার

ইন্টারনেট সংযোগ দিয়ে সবচেয়ে সহজ ও দ্রুতগতিতে দূর থেকে বসেই নিজের ফোনের বা ল্যাপটপের মাধ্যমে অন্যের কম্পিউটার অথবা স্মার্টফোনে প্রবেশ করা যায় টিমভিউয়ার অ্যাপটি দিয়ে। এটি ব্যবহারের জন্য শুরুতেই অ্যাপ ইনস্টল করতে হবে। পরে কম্পিউটারে প্রবেশের আগে দুজনের কাছে একটি নিরাপত্তা কোড যাবে, যা ব্যবহার করে নিশ্চিত করা হয় যে আপনি আপনার কম্পিউটার বা স্মার্টফোনের অন্যকে প্রবেশের অনুমতি দিয়েছেন কিনা।

অফিসিয়াল কাজের জন্য যেমন কম্পিউটারগুলোয় নেটওয়ার্কিং করা থাকে, তেমনি টিমভিউয়ারের মাধ্যমে একটি নেটওয়ার্ক স্থাপনের মাধ্যমে অন্য ডিভাইসের ফাইলে প্রবেশের সুযোগ পাওয়া যায়। ফলে অফিসের কাজের মতো একই নেটওয়ার্কের মাধ্যমে থেকে কাজ সম্পাদন সম্ভব হয়।

জুম

জুম, মূলত ভিডিও কনফারেন্সিং অ্যাপ। বাসায় বসে অফিসের কাজের জন্য বেশ সহায়ক এটি। অ্যান্ড্রয়েড, আইওএস ও উইন্ডোজ প্ল্যাটফর্মের ব্যবহারকারীরা এ অ্যাপ বিনামূল্যে ডাউনলোড করে ব্যবহারের সুবিধা পাবেন। এটি স্ক্রিন শেয়ারিংয়ের পাশাপাশি ক্রস-প্লাটফর্ম ইনস্ট্যান্ট মেসেজিং সমর্থন করে। জুম অ্যাপের মাধ্যমে একযোগে ১০০ জন ভিডিও কনফারেন্সে অংশ নেয়া যাবে।

মাইক্রোসফট টিমস

অফিসের কার্যক্রম পরিচালনার জন্য এই অ্যাপটিতে ডকুমেন্ট শেয়ারিং, কলিগদের সঙ্গে চ্যাটিং করার সুবিধা, ভিডিও চ্যাট, মাইক্রোসফট অফিস ৩৬৫-এ প্রবেশের সুবিধা রয়েছে। অ্যান্ড্রয়েড, আইওএস ও উইন্ডোজ প্লাটফর্মে এ অ্যাপ বিনা মূল্যে ব্যবহার করা যাবে। বিশ্বব্যাপী অসংখ্য প্রতিষ্ঠানের কর্মী টিমস অ্যাপ ব্যবহার করে বাসায় বসে কাজ করে আসছেন।

বেজক্যাম্প ৩

বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয় একটি কোলাবরেশন অ্যাপ বেজক্যাম্প ৩। অ্যাপটির অ্যান্ড্রয়েড, আইওএস, উইন্ডোজ ও ম্যাক সংস্করণ খুব সহজে মিলবে। রয়েছে পেইড ও বিনামূল্যের সংস্করণ ব্যবহারের সুবিধা। এতে মেসেজ বোর্ড, চ্যাট রুম ও ফাইল অর্গানাইজারের মতো বিভিন্ন অফিস কাজের সহায়ক ফিচার আছে। কেউ চাইলে ৯৯ ডলার পরিশোধের মাধ্যমে অ্যাপটির পেইড সংস্করণ ব্যবহার করতে পারবেন।

¯ø্যাক

বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের মধ্যে মেসেজিং, ডকুমেন্ট শেয়ারিং ও ডকুমেন্ট সম্পাদনার জন্য ব্যাপক পরিসরে ব্যবহার হয় এ অ্যাপ। যে কোনো স্মার্ট ডিভাইসে এ অ্যাপ সমর্থন করবে। অ্যান্ড্রয়েড, আইওএস ও উইন্ডোজ প্ল্যাটফর্মের ব্যবহারকারীরা এ অ্যাপ বিনামূল্যে ব্যবহারের সুবিধা পাবেন। তবে আরো ফিচারের জন্য রয়েছে পেইড সংস্করণও।

গোটুমিটিং

অডিও-ভিডিও যোগাযোগের অন্যতম একটি মাধ্যম হতে পারে গোটুমিটিং। এ অ্যাপটির মাধ্যমে ইউজাররা ভিডিও কলের মাধ্যমে যে কোনো স্থান থেকে অফিসের মিটিংয়ে অংশগ্রহণ করতে পারবেন। মিটিং শুরুর আগে সংকেত ও বার্তা পাঠানোর মাধ্যমে ব্যবহারকারীকে সজাগ করা যায়। পরবর্তী কোনো ইভেন্ট আছে কিনা সে বিষয়েও জানতে পারবেন এই অ্যাপ ব্যবহারকারী। ভিডিও মিটিং চলাকালে এর কাউড রেকর্ডিং ফিচার ইউজারকে মিটিং মিনিট নোট করার সুযোগ করে দেবে। এর মাধ্যমে ব্যবহারকারি বাসায় অফিসের কর্মীদের সঙ্গে ভার্চুয়ালি যুক্ত থাকতে পারবেন। কাজ ও যোগাযোগ সহজ করতে এটি দারুণ একটি অ্যাপ্লিকেশন।

নয়েসলি

গুরুত্বপূর্ণ কাজ করা দরকার। এজন্য সম্পূর্ণ অফিসের পরিবেশ খুঁজছেন। কিন্তু অফিসে গিয়ে কাজটা করবেন সে সুযোগ নেই। এক্ষেত্রে বাড়িতে বসে অফিসের পরিবেশে যাবতীয় কাজ করার সুবিধা দেবে নয়েসলি অ্যাপ। এটি অ্যান্ড্রয়েড ও আইওএস উভয় প্ল্যাটফর্মে ব্যবহার করা যাবে। তবে অ্যাপটি ব্যবহারের জন্য নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ পরিশোধ করতে হবে।

ট্রেলো

অ্যান্ড্রয়েড, আইওএস ও উইন্ডোজ প্ল্যাটফর্মে ব্যবহার করা যায় এ কোলাবরেশন অ্যাপ। বিভিন্ন বোর্ড ব্যবহার করে এ অ্যাপের মাধ্যমে টু-ডু লিস্ট অর্গানাইজ করা, টাস্ক ও প্রজেক্ট ব্যবস্থাপনার সুবিধা মিলবে।

পাশাপাশি ট্রেলো অ্যাপের মাধ্যমে অফিসের গুরুত্বপূর্ণ ডকুমেন্ট শেয়ার করা যাবে সহজে। কাজেই বাড়িতে বসে কাজ করার ক্ষেত্রে দারুণ সহায়ক অ্যাপ হতে পারে ট্রেলো।

ড্রপবক্স

জনপ্রিয় একটি ফাইল হোস্টিং সার্ভিস ড্রপবক্স, যা ড্রপবক্স ইনকরপোরেশন দ্বারা পরিচালিত হয়। ড্রপবক্সের মাধ্যমে ক্লাউড স্টোরেজ, ফাইল সিনক্রোনাইজেশন ও ক্লায়েন্ট সার্ভিস সরবরাহ করা যায়। বাড়িতে বসে অফিসের কাজের ক্ষেত্রে দারুণ সহায়ক একটি অ্যাপ ড্রপবক্স। অ্যান্ড্রয়েড ও আইওএস প্ল্যাটফর্মের জন্য অ্যাপটির বিনামূল্যের ও পেইড সংস্করণ রয়েছে।

হারভেস্ট

অ্যান্ড্রয়েড ও আইওএস প্ল্যাটফর্ম সমর্থিত এ অ্যাপ ব্যবহার করে সহজে ইনভয়েস ব্যবস্থাপনার কাজ করা যাবে। বাড়িতে বসে কাজ করার জন্য এ অ্যাপে রয়েছে একাধিক প্রয়োজনীয় ফিচার। বাড়িতে বসে কর্মীরা ঠিকঠাকমতো কাজ করছেন কিনা, তা ট্র্যাক করার অপশন রয়েছে অ্যাপটিতে। অর্থাৎ বাড়িতে বসে অফিসের সব কাজ মনিটর করা এবং হালনাগাদ থাকতে হারভেস্ট অ্যাপের জুড়ি নেই।

ডুডল

অ্যান্ড্রয়েড ও আইওএস প্ল্যাটফর্ম সমর্থিত ডুডল অ্যাপে যে কেউ পোল ক্রিয়েট করতে পারেন। একইসঙ্গে অন্যদের এ পোলে অংশ নিতে আমন্ত্রণ জানাতে পারবেন। এতে অংশ নিয়ে বাড়িতে বসেই অফিসের কলিগদের নির্দিষ্ট কোনো টপিক বা প্রকল্পের ওপর মন্তব্য নেয়া এবং পরবর্তী সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেয়া যাবে। অর্থাৎ সহকর্মী বা অধীনস্থদের কাছ থেকে নিয়মিত ফিডব্যাক পাওয়ার দারুণ একটি অ্যাপ ডুডল।

জি-স্যুট অ্যাপস

অ্যান্ড্রয়েড ও আইওএস প্ল্যাটফর্মে বিনামূল্যে ব্যবহার করা যাবে গুগলের বহুল ব্যবহৃত জি-স্যুট অ্যাপস। বৈশ্বিক সার্চ জায়ান্টটির জি-স্যুট অ্যাপস তালিকায় রয়েছে ডকস, হ্যাংআউটস ও ড্রাইভ। প্রডাক্টিভিটি অ্যাপ হিসেবে এগুলো বাসায় বসে অফিসের কার্যক্রম পরিচালনার জন্য সহযোগিতা ও ফাইল শেয়ারিং অনেক সহজ করবে। তবে, গুগল এন্টারপ্রাইজ প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য নিজেদের এ অ্যাপগুলোর পেইড সংস্করণও বাজারে ছেড়েছে।

:: আশরাফুল ইসলাম রানা

ডট নেট'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj