বাবা-মায়ের কাছে ফিরলেন জামাল ভূঁইয়া

শুক্রবার, ২৭ মার্চ ২০২০

কাগজ প্রতিবেদক : নিজ উদ্যোগেই টিকেট কেটে ঢাকা ছেড়েছেন বাংলাদেশ ফুটবল দলের অধিনায়ক জামাল ভঁ‚ইয়া। থাই এয়ারওয়েজের ফ্লাইটে ২৪ মার্চ ঢাকা ছেড়ে ইতোমধ্যে ডেনমার্কে মা-বাবার কাছে পৌঁছেছেন তিনি। জামালের ঢাকা ছাড়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সাইফ স্পোর্টিংয়ের সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান। জানা গেছে, সুযোগ পেলে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে জার্মানিও যেতে পারেন জামাল।

করোনা ভাইরাসের কারণে অনির্দিষ্টকালের জন্য পিছিয়ে গেছে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার ফুটবল লিগ (বিপিএল)। আর পুরো বিশ^জুড়ে চলা লকডাউনে আটকা পড়েছেন লিগের বিদেশি ফুটবলাররা। অনাকাক্সিক্ষত ছুটি মিললেও তাই কোচ-খেলোয়াড়দের সময় কাটছে ঢাকায়। বাকিদের তুলনায় নিজেদের ভাগ্যবান ভাবতে পারেন বাংলাদেশ অধিনায়ক জামাল ভঁ‚ইয়া ও বসুন্ধরা কিংসের আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকার হের্নান বার্কোস। জামাল ডেনমার্ক গেছেন পরিবারের কাছে, আর বার্কোস পৌঁছেছেন ব্রাজিলে। তবে দুজনের জন্য বিদেশ ভ্রমণটা হয়েছে দুরকম।

থাই এয়ারওয়েজের একটি ফ্লাইটে ডেনমার্কের উদ্দেশে রওয়ানা হয়েছিলেন জামাল। ডেনমার্ক পৌঁছে তাকে কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হচ্ছে না। তবে বার্কোসকে ব্রাজিল ফিরে ১৪ দিনের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইন পালন করতে হচ্ছে পুরো পরিবার নিয়ে। গেল সপ্তাহে ঢাকা ছেড়েও তাই বসুন্ধরা কিংস স্ট্রাইকার রয়েছেন ‘একঘরে’ হয়ে। জামালের ডেনমার্ক ফেরাটা পারিবারিক কারণে। সেখান থেকে জার্মানিতেও যেতে পারেন জামাল। বাংলাদেশ অধিনায়কের স্ত্রী রয়েছেন সেখানে। আর আর্জেন্টাইন বার্কোসের ব্রাজিল ফেরা মূলত ‘ঘরে ফেরার’ মতো। স্ত্রী ব্রাজিলিয়ান বলে বহুদিন ধরেই সেখানে বাস করছেন বার্কোস। বিপিএলের বাকি দলগুলোর বিদেশি খেলোয়াড় বা কোচ- কেউই দেশ ছাড়তে পারেননি। আবাহনী কোচ মারিও লেমোস, মোহামেডানের অস্ট্রেলিয়ান কোচ শেন লন, বসুন্ধরা কিংসের অস্কার ব্রুজোনরা ঢাকাতেই রয়েছেন।

বিপিএল বন্ধ থাকায় ছবি এঁকে সময় কাটছিল জামাল ভঁ‚ইয়ার। তবে মন পড়েছিল ডেনমার্ক ও জার্মানিতে। করোনা ভাইরাসের কারণে পরিবার-পরিজন নিয়ে চিন্তিত ছিলেন তিনি। বিপিএল অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা হওয়ায় জামাল আর বসে থাকেননি। নিজ উদ্যোগে টিকেট কেটে ঢাকা ছেড়েছেন। এ প্রসঙ্গে তার ক্লাব সাইফ স্পোর্টিংয়ের সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান বলেছেন, ‘জামাল মঙ্গলবার ডেনমার্কে ফেরার টিকেট কেটেছে নিজ উদ্যোগে। থাইল্যান্ডে ট্রানজিট নিয়ে এরই মধ্যে সে ডেনমার্কে পৌঁছেও গেছে। এখন সে পরিবারের সঙ্গে।’

জার্মানিতে তার সদ্যবিবাহিত স্ত্রী আছেন। ডেনমার্ক থেকে সুযোগ পেলে জার্মানিও যেতে পারেন বাংলাদেশ জাতীয় দলের অধিনায়ক। ঢাকা ছাড়ার আগে সাইফ স্পোর্টিংয়ের এই মিডফিল্ডার পরিবার-পরিজনের কথা বারবারই বলেছেন। বিশেষ করে তার বয়স্ক বাবা-মাকে নিয়ে ছিলেন চিন্তিত।

ষাটের দশকের শেষ দিকে বাংলাদেশ থেকে ডেনমার্কের কোপেনহেগেনে গিয়ে বসত গড়েন জামাল ভঁ‚ইয়ার বাবা-মা। সেখানেই তার জন্ম। ছেলেকে চিকিৎসক কিংবা আইনজীবী বানাতে চাইলেও ছেলে হন ফুটবলার। বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত জামাল ভঁ‚ইয়া ডেনমার্কের শীর্ষস্থানীয় লিগেও খেলেছেন। এছাড়া সেখানে একটি হাইস্কুলে ইতিহাস এবং ইংরেজি বিষয়ে শিক্ষকতা করেন জামাল।

খেলা-ধূলা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj