পুঁজিবাজারে লেনদেনের ৭০ ভাগই রেনাটার

শুক্রবার, ২৭ মার্চ ২০২০

কাগজ প্রতিবেদক : করোনা ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে টানা বন্ধের আগে গত ২৫ মার্চ দেশের পুঁজিবাজারে ঊর্ধ্বমুখিতার দেখা মিলেছে। প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) এবং অপর পুঁজিবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সূচক ও লেনদেন উভয় বেড়েছে।

এদিন লেনদেন বাড়াতে প্রধান ভূমিকা রেখেছে রেনাটা লিমিটেড। মূলত এই কোম্পানিটির ওপর ভর করেই লেনদেন বেড়েছে। ডিএসইর মোট লেনদেনের ৭০ শতাংশই হয়েছে ওষুধ খাতের এই কোম্পানির শেয়ারের। এদিন রেনাটা লিমিটেড এমন ভূমিকায় অবতীর্ণ না হলে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের মোট লেনদেনের পরিমাণ ১০০ কোটি টাকার মধ্যে আটকে থাকত। তথ্য পর্যালোচনায় দেখা যায়, গত বুধবার ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৩৪৮ কোটি ১৩ লাখ টাকা। এর মধ্যে রেনাটার শেয়ার লেনদেন হয়েছে ২৪৩ কোটি ৮৮ লাখ টাকা। অবশ্য রেনাটার শেয়ারের সিংহভাগ লেনদেন হয়েছে ব্লুক মার্কেটে। ব্লুক মার্কেটে কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ২৩৬ কোটি ৯০ লাখ টাকা। বাকি ৬ কোটি ৯৮ লাখ টাকা লেনদেন হয়েছে মূল মার্কেটে। ডিএসইর এক কর্মকর্তা বলেন, যদি রেনাটার শেয়ার ব্লুক মার্কেটে লেনদেন না হতো তাহলে হয়তো লেনদেন ১০০ কোটির মতো হতো। এই কর্মকর্তা আরো বলেন, সার্কিট ব্রেকার নতুন নিয়ম করার কারণে পুঁজিবাজারে লেনদেন কমা দেখা দিয়েছে।

শেয়ারের দাম একটি নির্দিষ্ট সীমার নিচে নামতে না পারায় বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের দাম অপরিবর্তিত থাকছে।

নতুন নিয়ম অনুযায়ী, কোম্পানির শেয়ারের লেনদেন শুরু হবে শেষ পাঁচ কার্যদিবসের ক্লোজিং প্রাইজের গড় মূল্য দিয়ে। এর নিচে কোনো কোম্পানির শেয়ারের দাম নামতে পারবে না। এই নিয়মে প্রথম দিন ১৯ মার্চ ডিএসইতে লেনদেন হয় ৪৯ কোটি টাকা। আর চলতি সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবস রবিবার লেনদেন হয় ১৪৫ কোটি টাকা। এছাড়া গত সোমবার ২৫৪ কোটি ও মঙ্গলবার ১৩৯ কোটি টাকা লেনদেন হয়।

অর্থ-শিল্প-বাণিজ্য'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj