বাঁশখালী পৌরসভা : কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগ

বৃহস্পতিবার, ২৬ মার্চ ২০২০

বাঁশখালী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি : বাঁশখালী পৌরসভায় ৫টি পদে নিয়োগ প্রক্রিয়ায় পছন্দের প্রার্থীদের নিয়োগ দিতে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। গত রবিবার সুমি ধর নামের এক নারী সহকারী কর আদায়কারী হিসেবে যোগদান করতে গেলে অনিয়মের ঘটনা ফাঁস হয়ে যায়।

জানা যায়, গত ৭ অক্টোবর সহকারী কর আদায়কারী, সহকারী লাইসেন্স পরিদর্শক, সড়কবাতি পরিদর্শক, অফিস সহায়ক (এমএলএসএস) ও জিপ চালক পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রচার করা হয়। নিয়োগ কমিটি যথানিয়মে লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষা গ্রহণের পর যাচাই-বাছাইয়ে নিয়োগ দিতে গিয়ে এই অনিয়মের আশ্রয় নেয়ার অভিযোগ। সহকারী কর আদায়কারী পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ১ম স্থান পাওয়া ব্যক্তিকে বাদ দিয়ে ৫ম স্থান হওয়া ব্যক্তি কর্মস্থলে যোগদান করতে গেলে গণ্ডগোল বেধে যায়। ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য, দুর্নীতি দমন কমিশন, চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার, চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক ও স্থানীয় সরকার

মন্ত্রণালয়ে অভিযোগ দায়ের করেছেন। পরীক্ষায় অংশ নেয়া অনেকে পুনঃরায় লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষার দাবি করেছেন। নিয়োগ পাওয়া কর্মচারী ৫ জনের মধ্যে ৪ জন পূর্বে মাস্টাররোলে (অস্থায়ী কর্মচারী) হিসেবে বাঁশখালী পৌরসভায় কর্মরত ছিলেন। বাঁশখালী পৌরসভায় দীর্ঘদিন থেকে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের শূন্য পদ থাকায় উন্নয়ন কর্মকাণ্ড বাধাগ্রস্ত হয়ে পড়ছিল। এ সময় অস্থায়ীভাবে কর্মরত ছিল অর্ধশতাধিক কর্মকর্তা-কর্মচারী। স্থায়ীভাবে জনবল নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রচার করা হয়। লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষার পর ৮ ফেব্রুয়ারি ৫ জনের নাম উল্লেখ করে নিয়োগপত্র তৈরি করা হয়। তৈরিকৃত নিয়োগপত্রের মধ্যেও সহকারী কর আদায়কারী নওয়াজীশ হোসাইন তানভীর নাম থাকলেও পরবর্তী সময়ে সে বাদ পড়ে যায়।

তার স্থলে গত রবিবার নতুন করে সুমি ধর নামের এক নারী নিয়োগপত্র দেখিয়ে চাকরিতে যোগদান করতে গেলে পৌরসভা নিয়োগ নিয়ে হট্টগোল পড়ে যায়। নিয়োগ কমিটির আহ্বায়ক ও বাঁশখালী পৌরসভার মেয়র শেখ সেলিমুল হকের সঙ্গে মোবাইলে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

তবে নিয়োগ কমিটি সদস্য কাউন্সিলর রুজিয়া সুলতানা বলেন, পৌরসভার ৫টি পদে নিয়োগ নিয়ে অনেক কথা প্রচার হয়েছে। তবে সহকারী কর আদায়কারী পদে নওয়াজীশ হোসাইন তানভীর লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় প্রথম হন। বর্তমানে এক নারীর নিয়োগপত্র নিয়ে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। নিয়োগ পাওয়া অন্য পদগুলো নিয়ে তিনি কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

নিয়োগ পরীক্ষায় প্রথম দাবিকারী নওয়াজীশ হোসাইন তানভীর বলেন, নিয়োগ নিয়ে অনিয়ম ও দুর্নীতির ব্যাপারে আমি বিভিন্ন স্থানে অভিযোগ দায়ের করেছি।

সারাদেশ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj