তৈরি পোশাক খাতে করোনার প্রভাব : ২২৫ কোটি ডলারের অর্ডার বাতিল

বুধবার, ২৫ মার্চ ২০২০

কাগজ প্রতিবেদক : নভেল করোনা ভাইরাসের প্রভাবে পশ্চিমা বিশে^র দেশগুলো একের পর এক লকডাউন ঘোষণা করছে। বন্ধ হয়ে যাচ্ছে পোশাক খাতের ব্র্যান্ডগুলোর একের পর এক বিক্রয়কেন্দ্র। জীবন-মরণ দোলাচলের এই পরিস্থিতিতে ভোক্তা চাহিদায়ও ব্যাপক প্রভাব পড়েছে। ফলে আসছে না নতুন ক্রয়াদেশ। এরই মধ্যে আগের দেয়া ক্রয়াদেশের পরিমাণও কমাচ্ছে কোনো কোনো ক্রেতা। কেউ কেউ স্থগিত করছে অর্ডার। বাংলাদেশের পোশাক শিল্পসংশ্লিষ্ট সংগঠন বাংলাদেশ গার্মেন্ট ম্যানুফ্যাকচারার্স এন্ড এক্সপোর্টার্স এসোসিয়েশনের (বিজিএমইএ) তথ্যমতে, করোনার প্রভাবে ইতোমধ্যে ৮৪৩ কারখানায় প্রায় ২ দশমিক ২৫ বিলিয়ন ডলার বা ২২৫ কোটি ডলারের ক্রয়াদেশ বাতিল ও স্থগিত হয়েছে।

জানা গেছে, করোনার প্রভাবে প্রথমে কাঁচামাল সরবরাহ সংকটে পড়তে হয়েছিল পোশাক খাতকে। চীননির্ভর কাঁচামালগুলো আসতে পারছিল না। কারণ করোনা ভাইরাসের প্রভাবে দেশটির বাণিজ্যিক কার্যক্রম বন্ধ ছিল। ধীরগতিতে হলেও কাঁচামাল সরবরাহ পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে শুরু করলেও এখন চাহিদা সংকটে পড়েছে দেশের পোশাক খাত। পশ্চিমা দেশগুলোর ক্রেতারা একের পর এক অবরুদ্ধ হয়ে পড়ায় ভোক্তা চাহিদা কমে বিক্রি বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। এ পরিস্থিতিতে একের পর এক ক্রয়াদেশ বাতিল ও স্থগিতাদেশ দিচ্ছে ক্রেতারা। বিরূপ পরিস্থিতিতে ক্রেতাদের ক্রয়াদেশ বাতিলের তথ্য সংগ্রহ শুরু করেছে বিজিএমইএ। গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যা পর্যন্ত পাওয়া তথ্যমতে, বিজিএমইএর সদস্য ৮৪৩ কারখানার ২ দশমিক ২৫ বিলিয়ন ডলার বা ২২৫ কোটি ডলারের ক্রয়াদেশ বাতিল ও স্থগিত হয়েছে। এসব কারখানায় কর্মরত আছেন ১৪ লক্ষাধিক শ্রমিক।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিজিএমইএ সভাপতি ড. রুবানা হক বলেন, করোনার কারণে ক্রেতারা ২.২৫ বিলিয়ন ডলারের অর্ডার বাতিল করেছেন। আগামী এপ্রিল, মে ও জুন মাসের অর্ডারও বাতিল করা হচ্ছে। তবে পরিস্থিতি যাই হোক, পোশাক শ্রমিকরা সময়মতো মজুরি পাবেন। সরকারের সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে আমাদের আশ^স্ত করা হয়েছে, সরকার পোশাক শিল্পের পাশে আছে।

এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) বলেছে, করোনা ভাইরাসের প্রভাবে বাংলাদেশের অর্থনীতির সম্ভাব্য ক্ষতির পরিমাণ সর্বোচ্চ ৩ দশমিক ২১ বিলিয়ন ডলার বা ২৫ হাজার ৬শ কোটি টাকা ছাড়িয়ে যেতে পারে। এটি বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) শূন্য দশমিক ১ শতাংশের সমান।

দ্বিতীয় সংস্করন'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj