করোনা ভাইরাস : শিবচরের ৭৮ হাজার মানুষ প্রশাসনের কড়া নজরদারিতে

সোমবার, ২৩ মার্চ ২০২০

জাহাঙ্গীর আলম, মাদারীপুর থেকে : করোনা ভাইরাস সংক্রমণ এড়াতে মাদারীপুরের শিবচরের ৪টি এলাকার প্রায় ৭৮ হাজার মানুষ প্রশাসনের কড়া নজরদারিতে দিন অতিবাহিত করছেন। শিবচর পৌর বাজারসহ ঝুঁকিপূর্ণ ২টি ওয়ার্ড ও ২টি ইউনিয়নের ২ গ্রামের ৪টি স্থানে ২৫০ জন পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। সার্বক্ষণিক মনিটরিং করছেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। সরকারি নির্দেশনা মেনে চলার জন্য জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য চিফ হুইপ নূর-ই আলম চৌধুরী। দফায় দফায় ওই এলাকা পরিদর্শনে আসছেন জেলা প্রশাসক, সিভিল সার্জনসহ প্রশাসনের কর্মকর্তারা।

বিশ^স্ত সূত্রে জানা গেছে, করোনা ভাইরাসের চরম ঝুঁকিতে থাকা শিবচর উপজেলার ৪টি এলাকার প্রায় ৭৮ হাজার মানুষ আতঙ্কের মধ্যে জীবনযাপন করছেন। খুব বেশি প্রয়োজন ছাড়া কাউকে ঘর থেকে বের হতে দেখা যায় না। এলাকার রাস্তাগুলোতে প্রশাসন ও পুলিশের রয়েছে কড়া নজরদারি। ৪র্থ দিনের মতো বন্ধ রয়েছে নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রীর দোকান ছাড়াও বেশির ভাগ বাজার। শুধু ওই ৪ এলাকায়ই নয় করোনা আতঙ্কে আশপাশের মানুষও ঘর থেকে বের হচ্ছে না। চিহ্নিত এলাকা ছাড়াও আশপাশের এলাকায় প্রশাসন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য ও জনপ্রতিনিধিরা টহল দিচ্ছেন। বাজারগুলো স্বতঃস্ফ‚র্তভাবে জনশূন্য হয়ে পড়েছে। ৪ দিন ধরে উপজেলায় সব বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। জনসচেতনতা বাড়ায় জনশূন্য হয়ে পড়েছে বাজারঘাট।

সম্প্রতি জেলায় শিবচর উপজেলার ৬৮৪ জনসহ ইতালি ছাড়াও বিভিন্ন দেশ থেকে সাড়ে ৩ হাজার প্রবাসী প্রবেশ করে। মাদারীপুরে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে মোট ২৯৮ জন কোয়ারেন্টাইনে আছে। যার মধ্যে হোম কোয়ারেন্টাইনে ২৯৫ জন এবং হাসপাতালের কোয়ারেন্টাইনে আছে ৩ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে হোম কোয়ারেন্টাইনে যুক্ত হয়েছেন ৫৫ জন। সদর হাসপাতালের আইসোলেশনে আছেন ৩ জন। এ পর্যন্ত হোম কোয়ারেন্টাইন থেকে রিলিজ পেয়েছেন ২৬১ জন। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন জেলা সিভিল সার্জন অফিস।

এদিকে প্রবাসীদের আনাগোনা হওয়ায় মাদারীপুরে ফাস্টফুড ও চাইনিজ রেস্টুরেন্ট বন্ধ করেছে দিয়েছে মালিকপক্ষ। জেলার সব বিনোদনকেন্দ্রগুলো এখন মানুষ শূন্য হয়ে পড়েছে। খুব বেশি প্রয়োজন ছাড়া শহরের কাউকে ঘর থেকে বের হতে দেখা যায়নি। রাস্তায় বিভিন্ন ধরনের ছোট-বড় যানবাহনের সংখ্যাও অনেক কম। মানুষ চরম আতঙ্কের মধ্য দিয়ে দিন অতিবাহিত করছে।

শিবচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান বলেন, শিবচরের ৪টি এলাকা সংলগ্ন মোট প্রায় ৭৮ হাজার মানুষকে আমরা নজরদারিতে রেখেছি। এ এলাকাগুলোর মানুষদের চলাচল সীমিত করা হয়েছে। হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা কারো বাজার লাগলে আমরা তাদের সহায়তা করব। শুকনো খাবার দেয়া হবে।

স্থানীয় সংসদ সদস্য চিফ হুইপ নূর-ই আলম চৌধুরী বলেন, ভাইরাসটি থেকে মুক্ত থাকতে জনগণকে সতর্কতা মেনে সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী চলার জন্য অনুরোধ করছি।

শেষ পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj