নির্দিষ্ট সময়েই বাফুফে নির্বাচন

রবিবার, ২২ মার্চ ২০২০

কাগজ প্রতিবেদক : বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) নির্বাচন পেছানো হচ্ছে না। নির্ধারিত সময় অর্থাৎ ২০ এপ্রিল অনুষ্ঠিত হবে বাফুফে নির্বাচন। আর এ উপলক্ষে আগামী ৩ এপ্রিল নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হবে। গতকাল বাফুফে ভবনে মেজবাহ উদ্দিনের নেতৃত্বে ৩ সদস্যের বাফুফে নির্বাচন কমিশনের সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভা শেষে এসব সিদ্ধান্ত প্রকাশ করা হয়।

চলমান করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি দিনকে দিন নাজুক হচ্ছে। এরই মধ্যে গতকাল দেশের ৩টি সংসদীয় আসনে উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। যদিও ২৯ মার্চ অনুষ্ঠেয় সব নির্বাচন বাতিল করেছে নির্বাচন কমিশন। কিন্তু আগামী ২০ এপ্রিল অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচনের তারিখ পেছাতে রাজি নয় বাফুফে। তারা এই নির্বাচন আয়োজনের সব প্রস্তুতি অব্যাহত রেখেছে।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার মেজবাহ উদ্দিন বলেন, ‘২০২০ বাফুফে নির্বাচনকে সামনে রেখে আমরা প্রথম সভা করলাম। এখন পর্যন্ত ২০ এপ্রিলকে সামনে রেখে আমরা সব ধরনের প্রস্তুতি নিচ্ছি। ৩ এপ্রিল শুক্রবার আমরা তফসিল ঘোষণা করব। এর আগে বাফুফে আমাদের ভোটার তালিকা হস্তান্তর করবে।’

দেশের বর্তমান দুর্যোগপূর্ণ অবস্থা নির্বাচন কমিশনের বিবেচনায় রয়েছে বলে জানান মেজবাহ, ‘করোনা পরিস্থিতি নিয়েও আমরা আলোচনা করেছি। সভা-সমাবেশ সীমিত করা হয়েছে এরই মধ্যে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে বাফুফে নির্বাচনের ভোটের স্থান নির্বাহী কমিটিই ঠিক করবে পাশাপাশি পরিস্থিতি নাজুক হলে পরবর্তী করণীয় কী হবে, সেটাও তারা নির্ধারণ করবে। নির্বাচন কমিশন এর মধ্যে হস্তক্ষেপ করবে না।’

এ প্রসঙ্গে বাফুফে সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম সোহাগ বলেন, ‘বাফুফে ভবনেই নির্বাচন করার পরিকল্পনা রয়েছে আমাদের। তবে প্রয়োজন হলে আমরা ভেন্যু পরিবর্তন করতে পারি।’

যদিও ইতোমধ্যে বাফুফের দুই সভাপতি প্রার্থী মহিউদ্দিন আহমেদ মহি ও বাদল রায় নির্বাচন পেছানোর আবেদন জানিয়েছেন। সেই পরিপ্রেক্ষিতে বাফুফে সাধারণ সম্পাদক জানান, তারা ফিফা-এএফসির সঙ্গে যোগাযোগ করছেন। ভবিষ্যতে বাফুফে সভাপতি এ ব্যাপারে অবহিত করবেন। ৩০ মার্চের মধ্যে বাফুফে তাদের অধিভুক্ত সংস্থাগুলোকে কাউন্সিলরের নাম পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে। আর গঠনতন্ত্রের নিয়ম অনুযায়ী, সংস্থাগুলোকে নির্বাহী কমিটির সভার মাধ্যমে কাউন্সিলরের নাম চূড়ান্ত করতে হয়।

বিশেষ করে জেলা ফুটবল এসোসিয়েশনে এ নিয়ে বিপত্তিতে রয়েছে। কারণ নির্বাহী কমিটির সভায় প্রায় ১৫-২০ জন লোকের উপস্থিতি হয়। সেক্ষেত্রে করোনার একটা ঝুঁকি থেকেই যায়। এ প্রসঙ্গে বাফুফে সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘আমরা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছি। প্রয়োজন হলে ২/১ দিন সময় বাড়িয়ে দেয়া যাবে। চলমান পরিস্থিতিতে সংস্থা চাইলে টেলিকনফারেন্স বা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে তাদের প্রয়োজনীয় সভা করতে পারে।’

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে দেশের সব ক্রীড়া আসর ইতোমধ্যে বন্ধ রাখা হয়েছে। তবে বাফুফে নির্বাচন পেছানো হচ্ছে না। বাফুফের বর্তমান এই একগুঁয়েমি অবস্থানকে অবশ্য সমালোচনা করছেন ফুটবল সংশ্লিষ্টরা।

খেলা-ধূলা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj