করোনা আতঙ্ক : স্থবির সংস্কৃতি ও বিনোদন অঙ্গন

শনিবার, ২১ মার্চ ২০২০

নভেল করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে স্থবিরতা নেমেছে দেশের সংস্কৃতি ও বিনোদন অঙ্গনে। বন্ধ রাখা হয়েছে টিভি নাটক ও সিনেমার শুটিং। পাশাপাশি সিনেমা হল বন্ধ ঘোষণা করেছেন হল মালিকরা। জাতীয় নাট্যশালায় হচ্ছে না নাটকের প্রদর্শনী। সংস্কৃতিকর্মী ও শিল্পীদের কেউ কেউ নিজ উদ্যোগে বাসায় অবস্থান করছেন। এ অবস্থায় সচেতনতার মাধ্যমে করোনা প্রতিরোধের আহ্বান জানিয়েছেন দেশের শিল্পী ও সংস্কৃতিকর্মীরা। প্রতিবেদন সাজিয়েছেন হেমন্ত প্রাচ্য

টিভি নাটকের শুটিং বন্ধ

দেশের টেলিভিশন নাটকের ১৩টি সংগঠন করোনা সংক্রমণ রোধে ২২-৩১ মার্চ কর্মবিরতি পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বৃহস্পতিবার তথ্য মন্ত্রণালয়ে ডিরেক্টরস গিল্ড, নাট্যকার সংঘ, অভিনয়শিল্পী সংঘের নেতারা তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদের সঙ্গে বৈঠক করেন। এর আগে এসব সংগঠনের নেতারা নিজেদের মধ্যে একাধিক বৈঠক করেন। নাট্যব্যক্তিত্ব মামুনুর রশীদ বলেন, ‘বর্তমান পরিস্থিতিতে সবার নিরাপত্তার কথা ভেবে কর্মবিরতি পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। কিন্তু কোনো নির্মাতা ও শিল্পী এখনও শুটিং করছেন। এই মুহূর্তেই শুটিং বন্ধ করলে তারা আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়বেন। এজন্য ২২ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত কর্মবিরতি থাকবে। পরে পরিস্থিতি বুঝে নতুন সিদ্ধান্ত জানানো হবে।’

বন্ধ সিনেমার শুটিং, মুক্তি স্থগিত

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনীনির্ভর ‘বঙ্গবন্ধু’ সিনেমার শুটিং ১৭ মার্চ শুরু হওয়ার কথা থাকলেও করোনার আতঙ্কে সেটি পিছিয়েছেন সিনেমাটির ভারতীয় নির্মাতা শ্যাম বেনেগাল। অন্যদিকে কামার আহমাদ সাইমনের নতুন সিনেমা ‘নীল মুকুট’ মুক্তির কথা ছিল ২৭ মার্চ। কিন্তু সেই সিদ্ধান্ত থেকে পিছিয়ে এলেন নির্মাতা। কারণ একটাই- করোনা ভাইরাস। কামার সেই সিদ্ধান্ত জানান এভাবে, ‘সবাই বলছে করোনা, করোনা ঠিক আছে, করব না। নীল মুকুট এখন রিলিজ করব না।’ ১৩ মার্চ মাসুদ হাসান উজ্জ্বলের প্রথম পরিচালিত সিনেমা ‘ঊনপঞ্চাশ বাতাস’ মুক্তি পাওয়ার কথা ছিল। সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে উজ্জ্বল সিদ্ধান্ত নিয়েছেন এ অবস্থায় সিনেমাটি মুক্তি দেবেন না। এ নির্মাতা বলেন, ‘মানুষের জীবন নিয়ে যেখানে সংশয় তৈরি হয়েছে সেখানে ছবি মুক্তি দেয়ার প্রশ্নই ওঠে না।’ দেবাশীষ বিশ্বাসের ‘শ্বশুরবাড়ি জিন্দাবাদ ২’ মুক্তি পাওয়ার কথা ২০ মার্চ। সেটি পেছানো হয়েছে। চলতি মাসের ১৫ তারিখ থেকে নেপালে ‘কানামাছি’ সিনেমার শুটিং শুরুর কথা ছিল। কিন্তু সেখানে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ায় পিছিয়ে গেছে সিনেমাটির কাজ। এছাড়া শুটিং বাতিল করেছেন নির্মাতা অনিরুদ্ধ রাসেল, আহমেদ আলভী, সাজু মুনতাসির, আলী বশির, বোরহান উদ্দিনসহ কয়েকজন প্রযোজকও। অনেক তারকা বিদেশ সফর বাতিল করেছেন।

যারা দেশের বাইরে যাচ্ছেন, তারাও খুব সতর্ক। সম্প্রতি ইনস্টাগ্রামে একটি ছবি দিয়েছেন ‘আয়নাবাজি’খ্যাত অভিনয়শিল্পী মাসুমা রহমান নাবিলা। সেখানে নাবিলা ও তার স্বামীকে দেখা গেছে মাস্ক পরা অবস্থায়। হ্যাশট্যাগ দিয়ে লিখেছেন- ‘স্টে ইন সেফ’। আরেক তারকা নুসরাত ফারিয়া বলেন, সম্প্রতি ভারতে শো করে এলাম। দেশে ফিরেই শুনি আমাদের দেশেও করোনা আক্রান্ত রোগী পাওয়া গেছে। তাই এখন আর দেশের বাইরে যাওয়ার ইচ্ছা নেই।

দেশজুড়ে সিনেমা হল বন্ধ ঘোষণা

করোনা ভাইরাসের কারণে কমে গেছে সিনেমা হলের দর্শক সংখ্যা। এমন পরিস্থিতিতে সিনেমা হল বন্ধের ঘোষণা দিয়েছেন হল মালিকরা। চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মিয়া আলাউদ্দিন বলেন, ‘করোনা ভাইরাসের কারণে এমনিতেই দর্শক কমে গেছে। এ পরিস্থিতিতে ১৮ মার্চ থেকে ২ এপ্রিল পর্যন্ত সিনেমা হল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। দেশের পরিস্থিতি বুঝে আমরা পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেব।’ অন্যদিকে করোনা ভাইরাস নিয়ে উদ্ভূত পরিস্থিতির কারণে ২০ মার্চ থেকে ২ এপ্রিল পর্যন্ত দেশের চেইন মাল্টিপ্লেক্স সিনেমা হল স্টার সিনেপ্লেক্স বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এ সময় স্টার সিনেপ্লেক্সের সব শাখায় সিনেমা প্রদর্শন বন্ধ থাকবে। দর্শকদের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানান স্টার সিনেপ্লেক্সের মিডিয়া ও বিপণন বিভাগের জ্যেষ্ঠ ব্যবস্থাপক মেসবাহ উদ্দিন আহমেদ। পরিস্থিতি বিবেচনায় পরবর্তী সিদ্ধান্ত জানানো হবে বলেও জানান তিনি।

বাতিল হচ্ছে গানের শো

সংগীতশিল্পী কনা জানিয়েছেন, ১৩ মার্চ চাঁদপুরে গিয়ে গান করার কথা ছিল। ১৯ মার্চ গাওয়ার কথা ছিল ঢাকার পরীবাগের আরেকটি শোতে। কিন্তু এখন কোনোটাই হচ্ছে না। সংগীতশিল্পী ন্যানসিরও এ মাসে দুটি শো বাতিল হয়েছে। অন্যদিকে পটুয়াখালী এবং কুমিল্লায় গান করার কথা ছিল সালমার। এ গায়িকা বলেন, মাঝে ক্যাসিনোকাণ্ডসহ নানা কারণে শো বাতিল হয়েছে। শিল্পীরা এই সময়টার অপেক্ষায় ছিলেন। কিন্তু সবার আগে সুস্থতা। সুস্থ থাকার জন্যই শোগুলো বাতিল করতে হচ্ছে। অপর শিল্পী কর্নিয়া জানিয়েছেন, পাঁচটি শো বাতিল হয়েছে তার। এছাড়া অনেক তারকা শিল্পীই এখন নতুন কোনো কনসার্টে গান না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

সারাদেশে বন্ধ নাট্য প্রদর্শনী

করোনা ভাইরাসের প্রভাব পড়েছে দেশের নাট্যাঙ্গনেও। ১৮ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত রাজধানীর জাতীয় নাট্যশালাসহ শিল্পকলা একাডেমির পাঁচটি মিলনায়তন বন্ধ রাখার সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন শিল্পকলা একাডেমির জনসংযোগ কর্মকর্তা হাসান মাহমুদ। অন্যদিকে পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত সারাদেশে নাট্য প্রদর্শনীসহ নাট্যদলগুলোর আয়োজনে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, মহড়া বন্ধ রাখার আহ্বান জানিয়েছে বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশন।

নাট্যদলগুলো নেতৃত্ব দেয়া গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক কামাল বায়েজিদ বলেন, ‘সারাদেশে নাট্যশিল্পীদের আমরা আহ্বান জানিয়েছেন এই পরিস্থিতিতে নাট্য প্রদর্শনী, মহড়া এবং অন্যান্য অনুষ্ঠান আয়োজন না করতে। সবার আগে তো মানুষের জীবন।’

জনসমাগম হয় এমন অনুষ্ঠান না করতে সাংস্কৃতিক জোটের আহ্বান

জনসমাগম তৈরি হয় এমন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজন না করার আহ্বান জানিয়েছে বাংলাদেশ সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট। সারাদেশে সদস্যভুক্ত বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনকে এ বিষয়ে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ। তিনি বলেন, ‘পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত সারাদেশে জনসমাগম তৈরি হয় এমন সব ধরনের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজন থেকে বিরত থাকার জন্য সংশ্লিষ্ট সাংস্কৃতিক সংগঠনকে অনুরোধ জানাই। তবে স্বাধীনতা দিবসসহ জাতীয় বিভিন্ন দিবসের অনুষ্ঠান প্রতীকীভাবে আয়োজন করা যেতে পারে। আমরা সাংস্কৃতিক জোটের পক্ষ থেকেও সেভাবেই স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠান করার প্রস্তুতি নিচ্ছি।’

মেলা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj