১৯৮১ সালে ডিন কুন্তজ উপন্যাসে করোনার পূর্বাভাস!

শুক্রবার, ২০ মার্চ ২০২০

সাইফুল্লাহ মাহমুদ দুলাল

ুআজ থেকে প্রায় ৪০ বছর আগে অর্থাৎ ১৯৮১ সালে ডিন রে কুন্তজ তাঁর ‘ঞযব ঊুবং ঙভ উধৎশহবংং’ উপন্যাসে করোনার ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের পূর্বাভাস দিয়েছিলেন বলে বিভিন্ন মিডিয়ায় প্রকাশ করেছে।

কুন্তজ তাঁর দ্য আইজ অফ ডার্কনেস বইটিতে উহান-৪০০ নামক একটি মহামারি ভাইরাসের কথা লিখেন। যদিও তা কোভিড-১৯ নয়। তা রূপান্তর করে খবরে প্রকাশ, এটি আসলে করোনা ভাইরাসের ভবিষ্যদ্বাণী এবং তা প্রথমে রাশিয়া পরে চীনা থেকেই সৃষ্ট বলে উক্ত গ্রন্থে উল্লেখ আছে। সেই উহান-৪০০’এর সাথে করোনার অনেক সাদৃশ্য রয়েছে। যদিও কেউ কেউ তা দ্বিমত প্রকাশ করে বলেছেন, সেটা কাল্পনিক আর করোনা বাস্তব। লেখক উপন্যাসে মহামারি উহান-৪০০’এর ১০০% মৃত্যুর হার বলেছেন আর গবেষকরা এখনো করোনা ভাইরাস সম্পর্কে জানছেন যে, বর্তমান মৃত্যুর হার প্রায় ০২% মাত্র।

তবে রহস্যজনক মিলগুলো হচ্ছে- গ্রন্থের ৩৩৩ পৃষ্ঠায় মারাত্মক উহান-৪০০ বনাম কোভিড-১৯ ভাইরাস, গ্রন্থের ৩১২ পৃষ্ঠায় সময় ২০২০ সাল, উৎপত্তি স্থান চীন থেকে আমেরিকা ইত্যাদি। আরো উল্লেখ্য, কাল্পনিক ‘উহান-৪০০’ কোভিড-১৯’এর তুলনায় প্রায় চার ঘণ্টা একটি চটজল ইনকিউবেশন পিরিয়ড থাকে যা দুটি থেকে ১৪ দিনের মধ্যে স্নানের সময়কাল ধারণ করে।

বইটির চরিত্রগুলোর মধ্যে আরো উল্লেখ আছে যে, উহান ‘ব্যয়বহুল সংযোজন’, একটি বায়োইপোন, যা কেবল মানবকেই আক্রান্ত করে এবং ১২ ঘণ্টার মধ্যে মেরে ফেলে। মানবদেহের বাইরে এক মিনিটেরও বেশি সময় বেঁচে থাকতে পারে না, যার অর্থ এটি অ্যানথ্রাক্স এবং অন্যান্য জীবাণুযুক্ত অণুজীবগুলোতে যেভাবে স্থায়ীভাবে কোনো বস্তু বা পুরো জায়গা দূষিত করতে পারে না। উহান-৪০০ একটি শহর বা একটি দেশ মুছে ফেলবে।

এছাড়াও বইয়ের প্রথম সংস্করণগুলোতে, জৈবিক অস্ত্রের নাম ছিল গোর্কি-৪০০ এবং এটি রাশিয়ানদের দ্বারা দায়ী করা হয়েছিল। আশির দশকের শেষের দিকে, কোন্টজ স্পষ্টতই পরবর্তী সংস্করণগুলোর নাম পরিবর্তন করেছিলেন এবং পরিবর্তে চীনকে অপরাধী করে তোলেন। এ ব্যাপারে কুন্তজের কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে বিভিন্ন জন বিভিন্ন মন্তব্য করেছে। ঢাকার অধ্যাপিকা ঋতা জিয়াসমিন বলেছেন- ‘এই বই পড়েই হয়তো ভাইরাসটা তৈরি করা হয়েছে’! ঋতার কথা উড়িয়ে দেয়ার মতো নয়!

কুন্তজ একজন আমেরিকান লেখক। ১৯৪৫ সালের ১৫ জুলাই পেনসিলভিলিয়ায় তিনি জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর উপন্যাসগুলো সাসপেন্স থ্রিলার তথা ঘন ঘন হরর, ফ্যান্টাসি, সায়েন্স ফিকশন, রহস্য এবং ব্যঙ্গাত্মক উপাদানে অন্তর্ভুক্ত। তিনি কবিতাও লিখেন। তাঁর বই থেকে বেশ কিছু চলচ্চিত্র নির্মিত হয়েছে। দ্য নিউইয়র্ক টাইমসের তাঁর ১৪টি উপন্যাস সেরা বিক্রেতার তালিকায় এসেছে। কোনো কোনো পেপারব্যাক এক নম্বর অবস্থানে পৌঁছেছে। তাঁর রচিত উপন্যাস এবং ছোটগ্রন্থের সংখ্যা ১০৪টি। যা বিক্রি হয়েছে ৪০৫০ মিলিয়ন কপি। ৩৮টি ভাষায় তাঁর লেখা অনূদিত হয়েছে। প্রথম দিকে তিনি একাধিক ছদ্মনামেও [অধৎড়হ ডড়ষভব, ইৎরধহ ঈড়ভভবু, উধারফ অীঃড়হ, উবধহহধ উুিবৎ, ঔড়যহ ঐরষষ, ক.জ. উুিবৎ, খবরময ঘরপযড়ষং, অহঃযড়হু ঘড়ৎঃয, ঙবিহ ডবংঃ, জরপযধৎফ চধরমব] লেখালেখি করেছেন।

সাময়িকী'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj