বিএসইসির নির্দেশনায় সূচকের রেকর্ড উত্থান

শুক্রবার, ২০ মার্চ ২০২০

কাগজ প্রতিবেদক : অব্যাহত পতনে থাকায় নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এন্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) এক নির্দেশনায় ইতিহাসের সর্বোচ্চ উত্থানের রেকর্ড গড়েছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই)। গতকাল বৃহস্পতিবার মাত্র ৩০ মিনিটের লেনদেনে এই রেকর্ড গড়েছে ডিএসই।

গতকাল ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৩৭১ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩ হাজার ৯৭৫ পয়েন্টে। যা সূচকটি চালুর পর একদিনের ব্যবধানে সর্বোচ্চ বেড়েছে। এর আগে চলতি বছরের ১৯ জানুয়ারি ডিএসইএক্স ২৩২ পয়েন্ট বেড়েছিল। যা ছিল ডিএসইএক্স সূচকের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ উত্থান। এছাড়া এই সূচকটি একদিনের ব্যবধানে তৃতীয় সর্বোচ্চ ১৫৫ পয়েন্ট বেড়েছিল ২০১৫ সালের ১০ মে। ডিএসইর ডিএসইএক্স সূচকটি ২০১৩ সালের ২৭ জানুয়ারি ৪০৫৬ পয়েন্ট দিয়ে যাত্রা শুরু করে। যাত্রা শুরু পর গত ১৮ মার্চ সূচকটি কমে ৩ হাজার ৬০৩ পয়েন্টে অবস্থান করছিল। গতকাল ডিএসইর অন্য সূচকগুলোর মধ্যে শরিয়াহ সূচক ৮৫ পয়েন্ট, ডিএসই-৩০ সূচক ১২২ পয়েন্ট এবং ৬৫ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে যথাক্রমে ৯১৯ পয়েন্টে, ১ হাজার ৩২৬ পয়েন্টে এবং ৭৮৫ পয়েন্টে। দেশের পুঁজিবাজারে ১ বছরের বেশি সময় ধরে মন্দাবস্থায় ছিল। এর মধ্যে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাস আতঙ্কে ধসে পড়ে পুঁজিবাজার। পুঁজিবাজারকে এই অবস্থা থেকে বের করে আনতে অর্থমন্ত্রী, বিএসইসি, ডিএসই, সিএসই দফায় দফায় বৈঠক করেছে। পুঁজিবাজারে প্রত্যেক ব্যাংক ২০০ কোটি টাকা করে বিনিয়োগের ঘোষণাও দিয়েছে। কিন্তু সবশেষ করোনা আতঙ্কে ধসে পড়ে বাজার। এ অবস্থা থেকে পুঁজিবাজারকে বাঁচাতে গতকাল দুপুর ২টা পর্যন্ত বন্ধ রেখে এক নির্দেশনা দেয় বিএসইসি।

বিএসইসির ওই নির্দেশনায় বলা হয়, গতকাল থেকে যে কোনো কোম্পানির শেয়ার লেনদেন শুরু হবে সর্বশেষ ৫ কার্যদিবসের গড় ক্লোজিং দর দিয়ে। আর ওই দরের নিচে শেয়ারের দাম নামতে পারবে না। তবে দাম বাড়ার সীমা অপরিবর্তিত থাকবে। বিএসইসির এই নির্দেশনার পর মাত্র ৩০ মিনিটেই ডিএসইর ডিএসইএক্স সূচকটি বেড়ে রেকর্ড গড়েছে। ডিএসইতে গতকাল ডিএসইতে গতকাল ৩৪২টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ১৪১টির বা ৪১ শতাংশের শেয়ার ও ইউনিট দর বেড়েছে। দর কমেছে ৪৯টির বা ১৪ শতাংশের এবং ১৫২টি বা ৪৫ শতাংশ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দর অপরিবর্তিত রয়েছে। ডিএসইতে মাত্র ৩০ মিনিটে লেনদেন হয়েছে ৪৯ কোটি ১২ লাখ টাকার।

ডিএসইতে টাকার পরিমাণে সবচেয়ে বেশি অর্থাৎ ৪ কোটি ২ লাখ টাকার লেনদেন হয়েছে মুন্নু সিরামিকের। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১ কোটি ১৩ লাখ টাকার উত্তরা ব্যাংকের এবং তৃতীয় সর্বোচ্চ ১ কোটি ১২ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে স্কয়ার ফার্মার। এছাড়া ডিএসইতে টপটেন লেনদেন থাকা অপর কোম্পানিগুলোর মধ্যে রয়েছে- ন্যাশনাল ব্যাংকের, মার্কেন্টাইল ব্যাংকের, আজিজ পাইপসের, প্যারামাউন্ট ইন্স্যুরেন্সের, কন্টিনেন্টাল ইন্স্যুরেন্সের, লিন্ডে বিডির এবং ইন্টারন্যাশনাল লিজিং এন্ড ফাইন্যান্স সার্ভিসেস।

অর্থ-শিল্প-বাণিজ্য'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj