প্রত্যক্ষ বিদেশি বিনিয়োগ বেড়েছে সাড়ে ৪ শতাংশ

বৃহস্পতিবার, ১৯ মার্চ ২০২০

কাগজ প্রতিবেদক : মন্দা অর্থনীতিতেও প্রত্যক্ষ বিদেশি বিনিয়োগের (এফডিআই) বেড়েছে বাংলাদেশের। গত অর্থছরের জুলাই-জানুয়ারি সময়ে ৩০৮ কোটি ৫০ লাখ ডলারের এফডিআই পেয়েছিল বাংলাদেশে। এই অর্থবছরের একই সময়ে এসেছে ৩২২ কোটি ৮০ লাখ ডলার। এ হিসাবে ৭ মাসে এফডিআই বেড়েছে ৪ দশমিক ৬৪ শতাংশ। জুলাই-জানুয়ারি সময়ে বাংলাদেশে নিট এফডিআই এসেছে ১৬৮ কোটি ২০ লাখ ডলার। আগের বছরে একই মাসে এসেছিল ১৬১ কোটি ৮০ লাখ ডলার। বাংলাদেশের বিভিন্ন খাতে মোট যে সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগ আসে তা থেকে বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান মুনাফার অর্থ দেশে নিয়ে যাওয়ার পর যেটা অবশিষ্ট থাকে সেটাকেই নিট এফডিআই বলা হয়ে থাকে।

চলতি অর্থবছরের প্রথম ৭ মাসে (জুলাই-জানুয়ারি) পণ্য বাণিজ্যে সামগ্রিক ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৯৬৪ কোটি ৩০ লাখ (৯.৬৪ বিলিয়ন) ডলার। গত বছরের একই সময়ে ঘাটতি ছিল প্রায় একই, ৯৮৭ কোটি ৩০ লাখ কোটি ডলার। আমদানি কমায় অর্থবছরের তিন মাস পর্যন্ত পণ্য বাণিজ্যে ঘাটতি আগের অর্থবছরের চেয়ে কম ছিল। ২০১৮-১৯ অর্থছরের জুলাই-সেপ্টেম্বর সময়ে ঘাটতি ছিল ৩৮৫ কোটি ২০ লাখ ডলার। ২০১৯-২০ অর্থবছরের জুলাই-সেপ্টেম্বর সময়ে ছিল তার থেকে কম ৩৭১ কোটি ৭০ লাখ ডলার।

তবে রপ্তানি আয়ে ধসের কারণে এর পর থেকেই বাণিজ্য ঘাটতি বাড়ছে। এমনকি আমদানি ব্যয় কমার পরও বাড়ছে এই ঘাটতি। ২০১৯-২০ অর্থবছরের জুলাই-জানুয়ারি সময়ে বিভিন্ন পণ্য আমদানিতে (এফওবি ভিত্তিক, ইপিজেডসহ) মোট ৩ হাজার ২০০ কোটি ২০ লাখ (৩২ বিলিয়ন) ডলার ব্যয় করেছে বাংলাদেশ। আর পণ্য রপ্তানি থেকে (এফওবি ভিত্তিক, ইপিজেডসহ) আয় করেছে দুই হাজার ২৩৫ কোটি ৯০ লাখ (২২.৩৬ বিলিয়ন) ডলার। এ হিসাবেই বাণিজ্য ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৯৬৪ কোটি ৩০ লাখ ডলার। তথ্যে দেখা যায়, এই সাত মাসে আমদানি ব্যয় কমেছে ৪ দশমিক ৪৩ শতাংশ। আর রপ্তানি আয় কমেছে ৫ দশমিক ৩১ শতাংশ। গত ২০১৮-১৯ অর্থবছরের পুরো সময়ে বাণিজ্য ঘাটতির পরিমাণ ছিল এক হাজার ৫৪৯ কোটি ৪০ লাখ (১৫.৪৯ বিলিয়ন) ডলার। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে এই ঘাটতি ছিল আরো বেশি ১৮ দশমিক ১৮ বিলিয়ন ডলার।

অর্থ-শিল্প-বাণিজ্য'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj