লেনদেন বন্ধ করে ইতিবাচক ধারায় ভারতের পুঁজিবাজার

শনিবার, ১৪ মার্চ ২০২০

কাগজ ডেস্ক : করোনা ভাইরাস আতঙ্কে গতকাল লেনদেনের শুরুতেই বড় ধস নামে ভারতের পুঁজিবাজারে। ফলে লেনদেন শুরুর কিছুক্ষণ পরেই পুঁজিবাজারের লেনদেন বন্ধ করে দেয়া হয়। ৪৫ মিনিট বন্ধ থাকার পর আবার লেনদেন শুরু হলে পতন কাটিয়ে ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতায় ফেরে ভারতের পুঁজিবাজার।

এর আগে করোনা ভাইরাস আতঙ্কে গত সোমবার বিশ্ব পুঁজিবাজারে বড় ধস নামে। যুক্তরাষ্ট্র থেকে শুরু করে ইউরোপ, এশিয়া থেকে অস্ট্রেলিয়া-প্রতিটি অঞ্চলের পুঁজিবাজারে বিরাট ধস দামায় দিনটিকে ‘ব্লু্যাক মানডে’ বলা হয়।

২০০৯ সালে বিশ্বজুড়ে যে আর্থিক সংকট দেখা গিয়েছিল, তারপর এরকম বিপর্যয় আর পুঁজিবাজারে দেখা যায়নি বলে ওইদিন বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়। বিবিসির ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বড় ধসের পর ওয়াল স্ট্রিটের পুঁজিবাজারে লেনদেন বন্ধ রাখা হয় কিছুক্ষণের জন্য। তার আগে বড় ধসের মুখে পড়লে পাকিস্তানের পুঁজিবাজারেও লেনদেন কিছু সময়ের জন্য বন্ধ রাখা হয়।

বিশ্ব পুঁজিবাজারের এই নাজুক পরিস্থিতির মধ্যে বাংলাদেশের পুঁজিবাজারেও স্মরণকালের সব থেকে বড় ধস দেখা যায়। সোমবার শেয়ারবাজারে লেনদেনের শুরুতেই বড় ধরনের নেতিবাচক প্রভাব পড়ে। দিনভর থাকে সেই ধারা। ফলে প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ মাত্র দুটি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দাম বাড়ার তালিকায় নাম লেখায়। এতে ডিএসইর প্রধান মূল্য সূচক ডিএসইএক্স আগের দিনের তুলনায় ২৭৯ পয়েন্ট কমে যায়।

এরপর গত কয়েকদিন বিশ্ব পুঁজিবাজারে নেতিবাচক প্রবণতা থাকলেও লেনদেন বন্ধ করে দেয়ার ঘটনা ঘটেনি।

তবে গতকাল শুক্রবার ভারতের পুঁজিবাজারে লেনদেনের শুরুতে দরপতন এতটাই ভয়াবহ রূপ নেয় যে লেনদেন বন্ধ করে দিতে বাধ্য হয় কর্তৃপক্ষ।

এ বিষয়ে আনন্দবাজারের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, করোনা ভাইরাসের ধাক্কায় বাজারের পতন এতটাই যে ৪৫ মিনিটের জন্য বন্ধ রাখতে হলো শেয়ার কেনাবেচা। সেনসেক্স ও নিফটি দুই সূচকই ‘লোয়ার সার্কিট’-এ পৌঁছে যাওয়ায় বন্ধ করে দেয়া হয়েছিল বম্বে স্টক এক্সচেঞ্জ (বিএসই) এবং ন্যাশনাল ফিফটি (নিফটি)।

তবে সেই ৪৫ মিনিট কাটতেই ঘুরে দাঁড়াল পুঁজিবাজার। ৩০০০ পয়েন্টেরও বেশি নেমে যাওয়া সেনসেক্স পতন কাটিয়ে ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতায় ফিরেছে। স্থানীয় সময় দুপুর ১টা ৩৩ মিনিটে সেনসক্স ১৫৮৪ পয়েন্ট বেড়ে ৩৪ হাজার ৫৭৮ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে।

গতকাল সকালে ১৫০০ পয়েন্ট নিচে নেমে খোলে সেনসেক্স। কয়েক মিনিটের মধ্যেই সেই পতন ছাড়িয়ে যায় ৩০০০ পয়েন্টেরও বেশি। আর নিফটিও খোলে প্রায় ৫০০ পয়েন্ট নিচে। ৯৬৬ পয়েন্ট নেমে ৮৬২৪ পয়েন্টে থেমেছিল নিফটির সূচক। এরপরই ৪৫ মিনিটের জন্য পুঁজিবাজারে লেনদেন বন্ধ করে দেয় হয়।

এর আগে ২০০৪, ২০০৮ এবং ২০০৯ সালে ভারতের পুঁজিবাজারে লেনদেন বন্ধ রাখা হয়। এর মধ্যে ২০০৯ সালে অবশ্য উল্টো পরিস্থিতি ছিল। ওই সময় বাজার ব্যাপক হারে ওপরে ওঠার জন্য বন্ধ রাখা হয়েছিল লেনদেন।

অর্থ-শিল্প-বাণিজ্য'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj