নারীর প্রিয় বাহন স্কুটিগত এক দশকে প্রজন্মের বাহন হিসেবে মোটর সাইকেলের জনপ্রিয়তা বেড়েছে কয়েক গুণ। চলতি পথে কম সময়ে গন্তব্যে পৌঁছানো ও গতিময়তার সম্মিলনে প্রিয় বাহন হিসেবে জায়গা করে নিয়েছে মোটর সাইকেল। বর্তমানে কোথাও যেতে হলে পোহাতে হয় যানজটের ঝক্কি, তার ওপর সময়মতো গাড়ি পাওয়া যায় না, আর পেলেও প্রায়ই গুনতে হয় ডাবল ভাড়া। ফলে অফিস কিংবা গন্তব্যে যেতে প্রায়ই দেরি হয়ে যায়, পোহাতে হয় সীমাহীন দুর্ভোগ। এ সব ঝামেলা থেকে মুক্তি পেতে নিজের একটি বাহন এখন বেশ দরকারি। তাই পুরুষের পাশাপাশি আধুনিক অনেক নারীরই বাহন হিসেবে বেছে নিচ্ছেন পছন্দসই একটি মোটর সাইকেল। এ ক্ষেত্রে স্কুটিই এখন অনেক নারীর প্রথম পছন্দ-

রবিবার, ৮ মার্চ ২০২০

বিশ্বব্যাপী স্কুটির ব্যাপক ব্যবহার ও জনপ্রিয়তা থাকলেও বাংলাদেশে এর ব্যবহার খুব বেশি দিনের নয়। তবে দ্রুতগামী এবং ফ্যাশনেবল বলে এটি এই সময়ের নারীদের প্রিয় একটি বাহন।

কারণ, প্রয়োজন-অপ্রয়োজনে কোথাও যেতে হলে কোনো প্রকার ঝামেলা ছাড়াই যাওয়া যায়। অনেক সময় ছেলেদেরও তাদের লিফট দিতে দেখা যায়। বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়–য়া ছাত্রীরা বা অফিসে যাওয়ার ক্ষেত্রে নারীরা এই বাহনটিকে বেছে নিয়েছে। স্কুটি যেমন সময় বাঁচায়, টাকাও বাঁচায়। স্কুটি বিভিন্ন রঙেরও হয়ে থাকে। বিশেষ করে মেয়েদের গোলাপি রঙের স্কুটি বেশি পছন্দ। মডার্ন মেয়েরা স্কুটির প্রতি আগ্রহী; আসলে ব্যাপারটা এ রকম নয়। আজকালকার মেয়েরা বেশ সচেতন। নিজেদের স্বাবলম্বী করার পাশাপাশি ছেলেদের সঙ্গে সমান তালে এগিয়ে চলছে। স্বাধীনতাপ্রিয়, ফ্যাশন-সচেতন তরুণীরা স্কুটির প্রতি বেশি আকৃষ্ট হচ্ছেন। রাজধানীর গুলশান, বনানী, বারিধারা, ধানমন্ডিতে আজকাল অহরহ মেয়েদের স্কুটি চালাতে দেখা যায়। প্রায় সব ধরনের পোশাক পরেই স্কুটি চালানো যায়।

কিনতে চাইলে : স্কুটি মূলত দুই ধরনের। এক ধরনের হলো ব্যাটারিচালিত এবং অন্যটি তেলচালিত। বাংলাদেশে হিরো হোন্ডা, টিভিএস, ইয়ামাহা, টাইগার, মাহিন্দ্রা ইত্যাদি ব্র্যান্ডের স্কুটি পাওয়া যায়। স্কুটি সাধারণত ১০৫-১৫০ সিসির হয়। বাহনটির দাম ৫২ হাজার থেকে ২ লাখ টাকার মধ্যে। বাংলামোটর, বংশাল, তেজগাঁও শিল্প এলাকায় স্কুটির বেশকিছু শোরুম আছে। তাছাড়া প্রায় সব বাইকের দোকানে এখন স্কুটি বিক্রি হয়। তবে কোম্পানি অনুমোদিত ডিলার থেকে কেনাই ভালো। স্কুটি প্রস্তুতকারক ও বিক্রয়কারী কোম্পানিগুলোও সুলভ মূল্যে এখন ¯ু‹টি পৌঁছে দিচ্ছে নারীদের কাছে। তারা ক্রেতাদের সুবিধার্থে এতে বিভিন্ন ফিচার যোগ করছে বিভিন্ন সময়ে। কি কি সুবিধা থাকছে ¯ু‹টিগুলোতে এমন প্রশ্নের জবাবে একটি খ্যাতনামা মোটরবাইকের মার্কেটিং ইনচার্জ বলেন, আমাদের ¯ু‹টিগুলো প্রতি লিটার তেলে ৫০ কি.মি. পর্যন্ত চলে। ¯ু‹টির পেছনের চাকা মোটা হওয়ায় এটি কন্ট্রোল করা যায় খুব সহজে। আরো আছে উজ্জ্বল লাইট ও ¯ু‹টিতে মোবাইল চার্জের ব্যবস্থাও। এ ছাড়াও কেউ আমাদের স্কুটি কিনলে তার লাইসেন্স পেতে ও স্কুটি চালানো শেখাতেও আমরা সাহায্য করে থাকি।

সতর্কতা : যে পোশাক পরে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করবেন, সেটাই বেছে নেয়া ভালো। শাড়ি ও ওড়না পরে চালানোর সময় সচেতন থাকতে হবে। স্টার্ট নেয়ার আগে ওড়না, শাড়ির আঁচল ঠিক করে নিন। স্কুট চালানোর সময় শাড়ি বা থ্রি পিস অস্বস্তিকর মনে হলে জিন্স-গ্যাবার্ডিনের সঙ্গে ঢিলেঢালা শার্ট বা টি-শার্ট কিংবা ফতুয়া পরাই ভালো। স্কুটি চালাবার সময় হেলমেট পরে নেয়া উচিত। কখনো অতি দ্রুত স্কুটি চালানো উচিত নয়। নিয়মিত অনুমোদিত সার্ভিসিং সেন্টারে নিয়ে যান স্কুটি। প্রতি ১ হাজার কিলোমিটার পর পর ইঞ্জিন তেল পরিবর্তন করুন। সর্বোচ্চ জ্বালানি ক্ষমতা পাওয়ার জন্য ঘণ্টায় ৪৫ থেকে ৫৫ কি.মি. বেগে স্কুটি চালানো উচিত। অবশ্যই নির্দিষ্ট সময় পরপর ব্যাটারি চেক করে নেবেন।

ফ্যাশন (ট্যাবলয়েড)'র আরও সংবাদ

নারীর প্রিয় বাহন স্কুটিগত এক দশকে প্রজন্মের বাহন হিসেবে মোটর সাইকেলের জনপ্রিয়তা বেড়েছে কয়েক গুণ। চলতি পথে কম সময়ে গন্তব্যে পৌঁছানো ও গতিময়তার সম্মিলনে প্রিয় বাহন হিসেবে জায়গা করে নিয়েছে মোটর সাইকেল। বর্তমানে কোথাও যেতে হলে পোহাতে হয় যানজটের ঝক্কি, তার ওপর সময়মতো গাড়ি পাওয়া যায় না, আর পেলেও প্রায়ই গুনতে হয় ডাবল ভাড়া। ফলে অফিস কিংবা গন্তব্যে যেতে প্রায়ই দেরি হয়ে যায়, পোহাতে হয় সীমাহীন দুর্ভোগ। এ সব ঝামেলা থেকে মুক্তি পেতে নিজের একটি বাহন এখন বেশ দরকারি। তাই পুরুষের পাশাপাশি আধুনিক অনেক নারীরই বাহন হিসেবে বেছে নিচ্ছেন পছন্দসই একটি মোটর সাইকেল। এ ক্ষেত্রে স্কুটিই এখন অনেক নারীর প্রথম পছন্দ-

Bhorerkagoj