জানা অৎানা : অ্যাথলেটিক্স

মঙ্গলবার, ৩ মার্চ ২০২০

অ্যাথলেটিক্স একটি প্রতিযোগিতাপূর্ণ ট্র্যাক ও ফিল্ড ইভেন্ট। ইন্টারন্যাশনাল অ্যাসোসিয়েশন অব অ্যাথলেটিকস ফেডারশেনস (আইএএএফ) (ওহঃবৎহধঃরড়হধষ অংংড়পরধঃরড়হ ড়ভ অঃযষবঃরপং ঋবফবৎধঃরড়হং) বা আন্তর্জাতিক অ্যাথলেটিকস ফেডারেশন আন্তর্জাতিক অ্যাথলেটিকস ক্রীড়াঙ্গনের সর্বোচ্চ ক্রীড়া পরিচালনাকারী সংস্থা। এ সংস্থাটি বিভিন্ন ধরনের দৌড়, ঝাঁপ ও নিক্ষেপ ক্রীড়া পরিচালনা করে থাকে। দৌড়ের মধ্যে রয়েছে স্বল্প দূরত্বের স্প্রিন্ট, হার্ডলস, ম্যারাথন ইত্যাদি। জাম্পিং ইভেন্টসমূহের মধ্যে রয়েছে হাইজাম্প, লংজাম্প, ট্রিপলজাম্প ও পোলভল্ট। থ্রোয়িং ইভেন্টসমূহের মধ্যে রয়েছে বর্শা, গোলক, চাকতি ও হ্যামার নিক্ষেপ। ১৭ জুলাই, ১৯১২ তারিখে সুইডেনের স্টকহোমে ১৭টি দেশের জাতীয় অ্যাথলেটিকস ফেডারেশনের সম্মতিক্রমে আন্তর্জাতিক শৌখিন অ্যাথলেটিকস ফেডারেশন নামে সংস্থাটি প্রতিষ্ঠিত করেছিল। পরবর্তী সময়ে অক্টোবর, ১৯৯৩ সালে মোনাকোয় এর সদর দপ্তর স্থানান্তর করা হয়।

বাংলাদেশ অ্যামেচার অ্যাথলেটিক্স ফেডারেশন ১৯৭২ সালে গঠিত হয়। এই ফেডারেশন ১৯৭৩ সালে আইএএএফ ও এশিয়ান অ্যামেচার অ্যাথলেটিক্স ফেডারেশনের সদস্যপদ লাভ করে। বাংলাদেশ স্থানীয় পর্যায়ে অ্যাথলেটিক্সের যেসব ইভেন্ট অনুশীলন করে থাকে তার মধ্যে বিভিন্ন দূরত্বের স্প্রিন্ট ও দৌড়, স্টেপল চেজ হার্ডলস, বর্শা, গোলক, চাকতি ও হ্যামার নিক্ষেপ, ট্রিপলজাম্প, দীর্ঘ ও উচ্চলম্ফ, ম্যারাথন, রিলে, পোলভল্ট, শটপুট ইত্যাদি। বাংলাদেশ এ পর্যন্ত অ্যাথলেটিক্সের অনেকগুলো আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ করেছে। আন্তর্জাতিক পর্যায়ে অনেকগুলো ইভেন্টে অংশ নিলেও সাফল্য এসেছে হাতেগোনা কয়েকটি ইভেন্ট থেকে। বাংলাদেশ অ্যামেচার অ্যাথলেটিক্স ফেডারেশনের উদ্যোগে যেসব অ্যাথলেটিক্স প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয় তার মধ্যে জাতীয় অ্যাথলেটিক্স প্রতিযোগিতা, জাতীয় সামার অ্যাথলেটিক্স প্রতিযোগিতা, জাতীয় জুনিয়র অ্যাথলেটিক্স প্রতিযোগিতা, মিনি ম্যারাথন ইত্যাদি।

১৯৮২ সালের শুরুতে আইএএএফ অনেকগুলো অধ্যাদেশ জারির মাধ্যমে বেশকিছু নিয়ম-কানুন পরিবর্তন করে। এর ফলে আন্তর্জাতিক অ্যাথলেটিকস প্রতিযোগিতায় ক্রীড়াবিদদের অংশগ্রহণ সহজতর হয়। এছাড়াও, ২০০১ সালের আইএএএফ কংগ্রেসে অ্যামেচার শব্দটির বিলোপন ঘটিয়ে বর্তমান নামে পরিচিতি পায়। বর্তমানে আইএএএফের ২১৪টি সদস্য সংগঠন রয়েছে। প্রতিযোগিতার মান বজায় রাখার স্বার্থে সময়সংরক্ষণ পদ্ধতি ও বিশ্বরেকর্ড সংরক্ষণ করে থাকে আইএএএফ।

:: কামরুজ্জামান ইমন

গ্যালারি'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj