ধর্ষণ ঠেকাতে অভিনব যত আবিষ্কার

সোমবার, ২ মার্চ ২০২০

অন্যপক্ষ প্রতিবেদক

ধর্ষণ কিংবা যৌন হেনস্তা বিশ্বজুড়েই নারীর নিরাপত্তার ক্ষেত্রে হুমকি। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এসব অপরাধ রুখতে নারীর নিরাপত্তার জন্য নেয়া হচ্ছে বিশেষ উদ্যোগ। নেক দেশেই আত্মসুরক্ষায় নারীরা সঙ্গে রাখছেন পিপার স্প্রে। কিন্তু তাতেও যে চিত্রপট খুব বেশি বদলেছে তেমনটা নয়। সেই উদ্বেগ থেকে ধর্ষণ ঠেকাতে ও নারীদের আত্মরক্ষায় বিজ্ঞানীরা আবিষ্কার করছেন অভিনব সব আবিষ্কার।

স্মার্ট ঝুমকা : স¤প্রতি নারীদের আত্মরক্ষায় অভিনব আবিষ্কার স্মার্ট ঝুমকা। ভারতের বারাণসীর অশোক ইনস্টিটিউটে রিসার্চ এন্ড ডেভেলপমেন্ট বিভাগের গবেষক শ্যাম চৌরাসিয়া দুলটি তৈরি করেছেন। ঝুমকাতে থাকা বিশেষ বোতামে চাপ দিলেই বেরিয়ে আসবে লাল আর সবুজ মরিচের গুঁড়ার বুলেট। এই দুলের আরো একটি বৈশিষ্ট্য হচ্ছে বোতাম টিপলেই ফোন চলে যাবে জরুরি নিরাপত্তা সেবার নম্বরে।

অন্তর্বাস : ধর্ষণ ঠেকাতে নিউইয়র্কের রুথ ও জুভাল নামে দুই নারী বেশ কয়েক বছর গবেষণার পর এক ধরনের বিশেষ অন্তর্বাস তৈরি করেন, যা বৈদ্যুতিক শক দিতে সক্ষম। এছাড়াও ভারতের তিন শিক্ষার্থীও নারীদের জন্য অভিনব এক অন্তর্বাস তৈরি করেন। এটি পরিহিত কেউ আক্রান্ত হলে সঙ্গে সঙ্গে বার্তা চলে যাবে পুলিশ ও পরিবারের সদস্যদের কাছে। আর হামলাকারী পাবে উচ্চমাত্রার শক। বিশেষ এই বক্ষবন্ধনী উদ্ভাবন করেন চেন্নাইয়ের এসআরএম বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন প্রকৌশলী। এরা হলেন- মনীষা মোহন, নীলাদ্রি বসু ও রিম্পি ত্রিপাঠি।

আংটি : ভারতের কর্নাটকের এক ফার্মাসিস্ট ইমরান খান। নারীর নিরাপত্তায় তিনি আবিষ্কার করেন একটি আংটি। যার নাম স্ট্রিং বি সিলভার রিং। এতে ব্যবহার করেছেন একটি রাসায়নিক যৌগের তরল। এটি পরতে হবে নারীদের ডান হাতের তর্জনীতে। কোনো পুরুষ তাকে শারীরিক নির্যাতনের চেষ্টা করলে আংটি থেকে তা পুশ করতে হবে। সঙ্গে সঙ্গে দুর্বল হয়ে পড়বে ওই পুরুষ।

লিপস্টিক গান : ভারতীয় বিজ্ঞানী শ্যাম চৌরাসিয়া তৈরি করেন ‘লিপস্টিক গান’। সাধারণ লিপস্টিকের মতো দেখতে এই জিনিসটি কারো কাছে থাকলে তিনি বিপদে পড়লে সহজে এটি ব্যবহার করে বিস্ফোরণের মতো শব্দ ঘটাতে পারবে। ওই বিকট শব্দ শুনে আক্রমণকারী ঘাবড়ে গিয়ে পালিয়ে যেতে পারে অথবা আশপাশের লোক ছুটে আসতে পারে। এছাড়া ‘লিপস্টিক গান’টির মাধ্যমে চাইলেই পুলিশকে ‘এমার্জেন্সি নম্বর’-এ বিপদ সংকেত পাঠানো যাবে।

জ্যাকেট : মেক্সিকোর চারজন শিক্ষার্থী মিলে ধর্ষণ প্রতিরোধে একটি জ্যাকেট উদ্ভাবন করেন। এই জ্যাকেট পরা অবস্থায় থাকলে কেউ যখন তার ওপর হামলা চালাতে আসবে তখন জ্যাকেটের হাতা থেকে হামলাকারীর গায়ে বৈদ্যুতিক শক লাগবে।

জুতা : ধর্ষণ থেকে বাঁচতে ভারতের হায়দরাবাদে ১৭ বছরের কিশোর সিদ্ধার্থ মণ্ডলার বানানো ‘এলেক্ট্রো সু’। কেউ আক্রমণ করলে এই জুতো পরা পা দুষ্কৃৃতির শরীরে ছোঁয়ালে ওই ব্যক্তির শরীরে ছড়িয়ে পড়বে শূন্য দশমিক ১ এএমপি তড়িৎ প্রবাহ। শুধু তাই নয়, সঙ্গে সঙ্গে খবর পৌঁছে যাবে স্থানীয় পুলিশ স্টেশন এবং পরিবারের কাছে।

নপুংসক ইনজেকশন : মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অ্যালাবামা অঙ্গরাজ্যে শিশু ধর্ষণ রুখতে এক আইন পাস হয়। ওই আইন অনুযায়ী, ১৩ বছরের কম বয়সী কোনো মেয়েকে ধর্ষণ করলে ধর্ষককে ইনজেকশন দিয়ে বা রাসায়নিকভাবে খোজাকরণ (নপুংসক) করে দেয়া হবে।

অন্যপক্ষ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj