ক্যাম্পাসে মুখরিত প্রাঙ্গণ

বৃহস্পতিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০

বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির পাশে ‘হাকিম চত্বর’ অবস্থিত। আবদুল হাকিম নামের এক চা বিক্রেতার নামানুসারে এই স্থানের নামকরণ করা হয়। তিনি শিক্ষার্থীদের কাছে ‘হাকিম ভাই’ হিসেবে পরিচিত ছিলেন। হাকিম ভাই তার বন্ধুসুলভ আচরণের জন্য শিক্ষার্থীদের কাছে অত্যন্ত প্রিয় ছিল। তার মাধ্যমে প্রেমিক-প্রেমিকারা চিঠি চালাচালিও করতেন। তার দোকানের ‘চা’ খেয়ে অনেকে মন্ত্রী, বিচারপতি, বড় বড় আমলা হয়েছেন। ১৯৬৭ সালের দিকে বাবার হাত ধরে দোহার থেকে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে আসেন হাকিম ভাই। তখন তার বয়স ১৫ বছর। তিনি একটি আমগাছের নিচে বসে চা আর পান বিক্রি শুরু করেন। এ সময় টিএসসি ও এর আশপাশের এলাকায় আর কোনো চায়ের দোকান ছিল না। হাকিম ভাই ৫৫ বছর বয়সে মৃত্যুবরণ করেন। বর্তমানে এখানে একটি চায়ের দোকান রয়েছে। দোকানের সামনে রয়েছে একটি বড় রেইন ট্রি। এখানে বসে সাবেক ও বর্তমান শিক্ষার্থীরা আড্ডা দেন। তাদের আড্ডা পরিণত হয় নবীন-প্রবীণের মিলনমেলায়। হাকিম চত্বরে কথা হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই সাবেক শিক্ষার্থী জুলফিকার আলী আর সাজেদুল ইসলামের সঙ্গে। তাদের সঙ্গে ছিলেন বর্তমান শিক্ষার্থী এনামুল হক প্রিন্স। জুলফিকার আলী জানান, কর্মব্যস্ততার ফাঁকে একটু অবসর সময় পেলে ছুটে আসেন এখানে। চা পানের সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের মধুর সময়গুলোর স্মৃতিচারণ করে আনন্দেচিত্তে কাটান অবসর সময়।

খুব সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির সামনে এলে সহজেই একটি দৃশ্য সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করে। সেটি হলো লাইব্রেরিতে প্রবেশ করতে শিক্ষার্থীদের দীর্ঘলাইন। পড়ুয়া শিক্ষার্থীর তুলনায় লাইব্রেরিতে পড়ার জায়গা কম হওয়ায় একটি চেয়ার দখল করতেই তাদের এই লাইনে দাঁড়িয়ে স্থান দখলের প্রতিযোগিতা। পড়ার জন্য প্রতিদিন শত শত শিক্ষার্থী এভাবে প্রতিযোগিতায় নামার দৃশ্য পৃথিবীতে দুর্লভ। লাইব্রেরিতে পড়তে আসা শিক্ষার্থীরা পড়তে পড়তে ক্লান্ত হয়ে গেলে লাইব্রেরির সামনে গিয়ে আড্ডা দেয়। তাদের সেই আড্ডাও পড়ালেখার বাইরে নয়। ‘বিসিএস-সহ অন্য পরীক্ষার জন্য কিভাবে পড়তে হবে’, ‘কার প্রস্তুতি কেমন’, ‘দেশের বর্তমান অবস্থা’, ‘কার একাডেমিক রেজাল্ট কী রকম’ ইত্যাদি বিষয় ঠাঁই পায় তাদের আড্ডায়।

:: ক্যাম্পাস ডেস্ক

ক্যাম্পাস'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj