আক্রান্ত ৮০ হাজার ছুঁই ছুুঁই

মঙ্গলবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০

কাগজ ডেস্ক : সিঙ্গাপুরে নভেল করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত এক বাংলাদেশি শ্রমিকের পরিবারকে ১০ হাজার ডলার আর্থিক সহায়তা দিচ্ছে দেশটির বেসরকারি সংস্থা মাইগ্রেন্ট ওয়ার্কার্স সেন্টার (এমডব্লিউসি)। সিঙ্গাপুরের দ্য স্ট্রেইটস টাইমস জানায়, অভিবাসী শ্রমিকদের সুরক্ষায় কাজ করা এমডব্লিউসির সঙ্গে মিলে ৩৯ বছর বয়সী ওই শ্রমিকের নিয়োগদাতা প্রতিষ্ঠান ওয়াই-কে ইনোভেশন্স এবং লিও ডরমিটরি পরিচালনাকারী মিনি এনভায়রনমেন্ট সার্ভিসেস এ আর্থিক সহায়তা দিচ্ছে। গত ৮ ফেব্রুয়ারি শরীরে করোনা ভাইরাসের অস্তিত্ব ধরার পর থেকে ওই বাংলাদেশি শ্রমিককে কাকি বুকিতের লিও ডরমিটরিতে রেখে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। সিঙ্গাপুরে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ৪২তম ব্যক্তি ওই শ্রমিক। ওই শ্রমিকসহ বাংলাদেশি আরো চারজনের হাসপাতালে চিকিৎসার খরচ মেটাচ্ছে সিঙ্গাপুর সরকার।

এদিকে বিশে^ করোনা ভাইরাসে ২৬১৯ জনের মৃত্যু ঘটেছে এ পর্যন্ত। এদের মধ্যে ২৭ জনের মৃত্যু হয়েছে চীনের বাইরে। বিশ^জুড়ে আক্রান্তের সংখ্যা ৮০ হাজার ছুঁই ছুঁই। গত রবিবার চীনের মূল ভূখণ্ডে ৪০৯ জনের শরীরে নতুন করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়েছে। আগের দিন এই সংখ্যাটি ছিল ৬৪৮ জন। এদিন চীনে মোট ১৫০ জনের মৃত্যু হয়েছে নতুন এ করোনা ভাইরাসে, যাদের বেশিরভাগই হুবেই প্রদেশের বাসিন্দা। অন্যদিকে আলজাজিরা জানিয়েছে, ইরানের পবিত্র শহর হিসেবে পরিচিত কোমে করোনা ভাইরাস আক্রান্ত হয়ে অর্ধশত মানুষের মৃত্যু হয়েছে। ইরান সরকার আনুষ্ঠানিকভাবে করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর যে সংখ্যা জানিয়েছিল এই সংখ্যা তার চেয়ে চারগুণ বেশি। এ ছাড়া নতুন রোগীর দেশের তালিকায় যুক্ত হয়েছে পশ্চিম এশিয়ার দেশ কুয়েত, মধ্যপ্রাচ্যের দেশ বাইরাইন এবং দক্ষিণ এশিয়ার দেশ আফগানিস্তান। খবরে বলা হয়, কুয়েতে তিনজন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। বাহরাইন ও আফগানিস্তানে আক্রান্তের সংখ্যা একজন করে দুজন। তবে তাদের বিষয়ে বিস্তারিত কোনো তথ্য জানানো হয়নি। এ ছাড়া চীনের বাইরে দক্ষিণ কোরিয়ায় সাতজন, জাপানে চারজন, ইতালিতে তিনজন, হংকংয়ে দুজন এবং ফিলিপাইন, ফ্রান্স ও তাইওয়ানে একজন করে আক্রান্তের মৃত্যু ঘটেছে।

এই পরিস্থিতিতে ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে ৩৮০ জন বিদেশিকে কোয়ারান্টাইনে রেখেছে উত্তর কোরিয়া। বিদেশিদের অধিকাংশই রাজধানী পিয়ংইয়ংয়ে অবস্থানরত ক‚টনীতিক বলে জানায় বার্তা সংস্থা ইয়োনহাপ। দেশটিতে করোনা ভাইরাস জনিত রোগ কভিড-১৯ এ কারো আক্রান্তের খবর পাওয়া যায়নি। বিদেশিদের কতদিন কোয়ারান্টাইনে থাকতে হবে তাও জানা যায়নি। এ ছাড়া করোনার কারণে দেশটির কর্তৃপক্ষ বার্ষিক পিয়ংইয়ং ম্যারাথন বাতিল করেছে। স্বাভাবিক সময়ে সারা বিশ^ থেকে আসা লোকজন এই ম্যারাথনে অংশ নিত। উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম জানায়, সন্দেহজনক লক্ষণে দেখা যায় চীনের সীমান্তবর্তী উত্তর প্রিয়ংগন প্রদেশের ৩,০০০ লোককে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে।

এদিকে সর্বোচ্চ সতর্কতা জারির একদিন পর দক্ষিণ কোরিয়ায় নতুন করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৭৬৩ জনে দাঁড়িয়েছে। গত রবিবার নতুন করে আরো ১৬১ জন ভাইরাসটির সংক্রমণের শিকার হন। কভিড-১৯ এ দেশটির চেংডু শহরের একটি হাসপাতালে ৬২ বছর বয়সী আরেক পুরুষ রোগীর মৃত্যু ঘটেছে। এ নিয়ে দক্ষিণ কোরিয়ার কভিড-১৯ এ মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল সাতজনে।

প্রথম পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj