নিজ ভুবনের গল্প

বৃহস্পতিবার, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০

ঘড়ির কাঁটায় সকাল সাড়ে ৭টা। মাত্রই ঝাঁপি খুলেছে টিএসসির টং দোকানগুলোর। উনুনে চড়েছে চায়ের কেটলি। গরম গরম চা খেয়ে ক্লাসে ঢুকবেন তারা। এ জন্যই বসে আছেন সাব্বির, নিশি, রিয়া। একটু পরই ক্লাস। লেকচার শিটে চোখ বোলাচ্ছেন সাব্বির। গরম চায়ে চুমুক দিতে দিতে জানালেন, সকাল থেকে টানা দুপুর পর্যন্ত ক্লাস। যাও একটু ফুরসত মিলবে, অ্যাসাইনমেন্ট তৈরির কাজে সেটাও শেষ হয়ে যাবে। কথা শেষ করেই তিন বন্ধু ব্যাগ হাতে ছুটবেন কার্জন হলের দিকে। তাই নিশি ও রিয়া সেরে নিচ্ছেন প্রয়োজনীয় কথাবার্তা। আধঘণ্টা বাদে উদ্ভিদবিজ্ঞানের নিশি ছুটলেন কার্জন হলে, ইতিহাসের রিয়া কলা ভবনে। ততক্ষণে শিক্ষার্থীদের আনাগোনায় মুখরিত হয়ে উঠেছে ক্যাম্পাস-

ক্লাসরুমের গল্প : আড্ডাবাজি ছেড়ে দস্যিছেলের দল ঢুকে পড়েছেন ক্লাসরুমে। ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ ক্লাস, তাই সবাই মনোযোগ দিয়ে শুনছেন। স্যারের কঠিন লেকচার কোনোভাবেই মাথায় ঢুকছে না মামুনের। মাথা ধরে আসছে। তবুও দাঁত-মুখ খিঁচে ক্লাস করছেন। স্যার ওদিকে পড়া ধরে বসলেন মোহনকে। আমতা আমতা করায় টানা তিন মিনিট ঝাড়লেন। রেগে অগ্নিশর্মা হয়ে তিনি চেঁচিয়ে উঠলেন, ‘বাসায় তো মোটেও বই খুলে দেখ না। যা পড়াই, এক কান দিয়ে ঢোকে, আরেক কান দিয়ে বেরিয়ে যায়।’ মাথা নিচু করে মোহন যখন স্যারের অপমান গিলছেন, গোটা ক্লাস তখন মাথা নিচু করে মিটিমিটি হাসছে। কখন ক্লাস শেষ হবে, কখন দলবল নিয়ে ঢুঁ মারবেন কোনো রেস্টুরেন্টে এ চিন্তায় অস্থির ছেলেমেয়েদের মুক্তি দিলেন স্যার। হুড়মুড়িয়ে ক্লাস থেকে বেরোতে থাকল ছেলেমেয়েরা। জবির গণিত বিভাগ ঘটনাস্থল।

আড্ডা-গল্পে : ক্লাসের ফাঁকে একটু ফুরসত মিলতেই ব্যাংকিং প্রথম বর্ষের তানভীর, তাহনিয়াত, তাশমিম বেরিয়েছেন ক্যাম্পাস ভ্রমণে।

রিকশায় চেপে তারা ঘুরে বেড়াচ্ছেন টিএসসি, কার্জন হল, ফুলার রোড। ক্যাম্পাসের রং তাড়িয়ে তাড়িয়ে ভোগ করছেন প্রথম বর্ষের ছেলেমেয়েরা। এ দলের সরদার তাশমিম জানালেন, প্রথম বর্ষে পড়াশোনার চাপ কম। তাই এখনই সময় ক্যাম্পাস লাইফ উপভোগ করার।

ঠিক এর উল্টো চিত্র দেখা গেল পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের রায়হান-অনন্যাদের গ্রুপে। চতুর্থ বর্ষের এ ছেলেমেয়েরা দিন গুনছেন ক্যাম্পাস লাইফের ইতি টানার। একদিকে রেজাল্ট, অন্যদিকে চাকরির চিন্তায় অস্থির রায়হান জানালেন, ক্যাম্পাস লাইফের আসল মাজেজা বোঝা যায় তৃতীয় বর্ষে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি ক্যাফেটারিয়ার সামনে চলছে ধুম আড্ডা-গান।

উইমেন অ্যান্ড জেন্ডার স্টাডিজের নিশিতা, আরিফ, চৈতি মেতেছেন গালগল্পে। ফটোগ্রাফার বন্ধু হ্যাপি হাজির হলেন ক্যামেরা নিয়ে। বন্ধুদের নিয়ে তিনি চলে গেলেন সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে। টিএসসি অডিটরিয়ামের দিকে যেতেই দেখা মিলল শিশির-তনিমার। মান-অভিমানের পর্ব শেষে তারা মেতে উঠেছেন খুনসুটিতে।

দুপুর গড়াতেই মাথাচাড়া দিয়ে উঠল খিদে। ডাকসু ক্যাফেটারিয়ার সামনে লম্বা লাইনে খাবারের টোকেন নিচ্ছেন বাংলার মামুন, আলমগীর। অন্যদিকে ক্লাসমেটরা যখন ক্যাম্পাস ক্যাফেতে গ্রোগ্রাসে বার্গার, সমুচা গিলছেন, তখন অভি ঢুঁ মারছেন প্রযুক্তি দুনিয়ায়। দুপুরের খাবারের পর ফের ক্লাস। নীরস বদনে ক্লাসে ঢুকে পড়েন ছেলেমেয়েরা। ক্লান্তিতে চোখ বুজে এলেও ঘুমানো বারণ। থাকে ল্যাব ক্লাসের বিড়ম্বনাও।

:: ক্যাম্পাস ডেস্ক

ক্যাম্পাস'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj