পুঁজিবাজারে টানা ৫ কার্যদিবস উত্থান

মঙ্গলবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০

কাগজ প্রতিবেদক : বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্কুলার জারির পর থেকে দেশের পুঁজিবাজারের পালে হাওয়া বইতে শুরু করেছে। টানা উত্থানের ধারাবাহিকতায় গতকাল সোমবারও উত্থানে শেষ হয়েছে পুঁজিবাজারের লেনদেন। এ নিয়ে টানা ৫ কার্যদিবস সূচক বেড়েছে। একই সঙ্গে প্রতি কার্যদিবসই বেড়েছে লেনদেনের পরিমাণও।

পুঁজিবাজারের উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রী গত ১৬ জানুয়ারি বাজার সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে বৈঠক করেন এবং কয়েকটি নির্দেশনা দেন। প্রধানমন্ত্রীর ওই বৈঠকের পর ১৯ জানুয়ারি ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ইতিহাসের সর্বোচ্চ বাড়ে। কিন্তু পরবর্তী সময়ে আবার পতন হয়। সর্বশেষ গত ১০ ফেব্রুয়ারি পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের জন্য প্রত্যেক ব্যাংককে ২০০ কোটি টাকা করে ফান্ড গঠনের জন্য কেন্দ্রীয় ব্যাংক এক সার্কুলার জারি করে। ওই সার্কুলারের পর থেকে সূচক ও লেনদেন বাড়তে থাকে। গত রবিবার ডিএসইর ডিএসইএক্স সূচকটি ইতিহাসের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ উত্থান হয়েছ। গতকালও পুঁজিবাজারে উত্থানের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রয়েছে।

গতকাল ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৩৪ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪ হাজার ৭৬৮ পয়েন্টে। অপর সূচকগুলোর মধ্যে শরিয়াহ সূচক ৮, ডিএসই-৩০ সূচক ৭ এবং নতুন চালু হওয়া সিডিএসইটি সূচক ৪ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে যথাক্রমে ১০৮৪, ১৫৯৯ ও ৯৫৬ পয়েন্টে।

ডিএসইতে টাকার পরিমাণে লেনদেন হয়েছে ৯৭৬ কোটি ৩৮ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট। যা ১ বছর ১৪ দিন বা ২৪৭ কার্যদিবসের মধ্যে সর্বোচ্চ। এর আগে ২০১৯ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি গতকালের চেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছিল। ওইদিন ডিএসইতে লেনদেন হয়েছিল ৯৮৪ কোটি টাকার।

ডিএসইতে আজ ৩৫৫টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ১৯৫টির বা ৫৫ শতাংশের শেয়ার ও ইউনিট দর বেড়েছে। দর কমেছে ১২৮টির বা ৩৬ শতাংশের এবং ৩২টি বা ৯ শতাংশ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দর অপরিবর্তিত রয়েছে।

অপর পুঁজিবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই এ দিন ১০৬ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৪ হাজার ৫৪৩ পয়েন্টে। এ দিন সিএসইতে হাত বদল হওয়া ২৭৩টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শেয়ার দর বেড়েছে ১৫৫টির, কমেছে ৮৭টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩১টির দর। সিএসইতে ৩২ কোটি ৫১লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে।

অর্থ-শিল্প-বাণিজ্য'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj