বিনিয়োগকারীদের চাহিদার শীর্ষে ওরিয়ন ফার্মা

রবিবার, ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০

কাগজ প্রতিবেদক : বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের জন্য ব্যাংকগুলোকে ২০০ কোটি টাকা করে বিশেষ তহবিল গঠনের সুযোগ দেয়ায় গত সপ্তাহে দেশের শেয়ারবাজারে বড় ধরনের উত্থান হয়েছে।

ঊর্ধ্বমুখী বাজারে সপ্তাহজুড়ে পুঁজিবাজারের বিনিয়োগকারীদের কাছে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে চাহিদার শীর্ষে ছিল ওরিয়ন ফার্মা। ফলে সপ্তাহজুড়ে প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে কোম্পানিটির শেয়ারের দামে বড় ধরনের উত্থান ঘটেছে।

মূল্যে বড় ধরনের উত্থান হওয়া বিনিয়োগকারীদের একটি অংশ তাদের হাতে থাকা কোম্পানিটির শেয়ার বিক্রি করে দিয়েছেন। ফলে সপ্তাহজুড়ে লেনদেন হয়েছে ২০ কোটি ৮৭ লাখ ৭৩ হাজার টাকা। প্রতি কার্যদিবসে গড়ে লেনদেন হয়েছে ৪ কোটি ১৭ লাখ ৫৪ হাজার টাকা। এদিকে কোম্পানিটির শেয়ারের দাম সপ্তাহজুড়ে বেড়েছে ৩৪ দশমিক ৮৯ শতাংশ। টাকার অঙ্কে বেড়েছে ৯ টাকা ৭০ পয়সা। সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস শেষে কোম্পানিটির শেয়ারের দাম দাঁড়িয়েছে ৩৭ টাকা ৫০ পয়সা, যা আগের সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে ছিল ২৭ টাকা ৮০ পয়সা।

ডিএসইর তথ্য অনুযায়ী, কোম্পানিটির মোট শেয়ারের ৩১ দশমিক ৯৮ শতাংশ ইউনিট রয়েছে উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের হাতে। বাকি অংশের মধ্যে ১৮ দশমিক শূন্য ১ শতাংশ আছে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে। প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে ৪৮ দশমিক ১৪ শতাংশ এবং বিদেশিদের কাছে ১ দশমিক ৮৭ শতাংশ।

পুঁজিবাজারে টানা দরপতনের মধ্যে স্টেকহোল্ডারদের একটি অংশের দাবির প্রেক্ষিতে গত সোমবার বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে ব্যাংকগুলোকে বিশেষ তহবিল গঠনের সুযোগ দেয়া হয়। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশনা অনুযায়ী, পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের জন্য প্রত্যেকটি ব্যাংক ২০০ কোটি টাকার বিশেষ তহবিল গঠন করতে পারবে।

নিজস্ব উৎস অথবা ট্রেজারি বিল বন্ডের মাধ্যমে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে ব্যাংকগুলো এ তহবিলের অর্থ সংগ্রহ করতে পারবে। বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে ৫ শতাংশ সুদে এ তহবিলের অর্থ সংগ্রহ করতে পারবে ব্যাংকগুলো, যা পরিশোধের সময় পাবে পাঁচ বছর। ব্যাংকগুলো সর্বোচ্চ ৭ শতাংশ সুদে এ তহবিল থেকে ঋণ দিতে পারবে।

বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে এ সুবিধা দেয়ার পর গত মঙ্গলবার থেকে পুঁজিবাজারে উল্লম্ফন দেখা দেয়। সেই সঙ্গে লেনদেন বেড়ে ৫০০ কোটি টাকার ঘরে পৌঁছে। পরের কার্যদিবস গত বুধবার ডিএসইতে ৬০০ কোটি টাকার ওপরে লেনদেন হয়।

গত বৃহস্পতিবার লেনদেন হয় সাতশ কোটি টাকার ওপর। সেই সঙ্গে টানা তিনদিনই বাড়ে মূল্যসূচক।

৫০ শতাংশ বহুজাতিক কোম্পানির শেয়ারে পতন

কাগজ প্রতিবেদক : গত সপ্তাহে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) বহুজাতিক কোম্পানিগুলোর মধ্যে দর কমেছে ৬টি বা ৫০ শতাংশের। অন্যদিকে দর বেড়েছে ৫টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১টির।

ইবিএল সিকিউরিটিজ লিমিটেড সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। সূত্র মতে, গত সপ্তাহে সবচেয়ে বেশি দর কমেছে গøাক্সোস্মিথক্লাইন লিমিটেটের। এই কোম্পানির ১.৭ শতাংশ দর কমেছে। আলোচ্য সপ্তাহে কোম্পানিটি সর্বশেষ এক হাজার ৮১৭ টাকা ৫০ পয়সা দরে লেনদেন হয়। রেকিট বেনকিজারের ১.৫ শতাংশ দর বেড়ে তালিকার দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে। আলোচ্য সপ্তাহে কোম্পানিটি সর্বশেষ ৩ হাজার ৩৭ টাকা ৪০ পয়সা দরে লেনদেন হয়। গ্রামীণফোনের দশমিক ৭০ শতাংশ দর বেড়ে তালিকার তৃতীয় স্থানে রয়েছে। আলোচ্য সপ্তাহে কোম্পানিটি সর্বশেষ ২৫৮ টাকা ৮০ পয়সা দরে লেনদেন হয়। এ ছাড়া বাটা সু’র দশমিক ২ শতাংশ, বার্জার পেইন্টসের দশমিক ১ শতাংশ, ম্যারিকোর দশমিক ৬০ শতাংশ দর কমেছে।

অন্যদিকে দর বেড়েছে বিএটিবিসির ১.৫ শতাংশ, হাইডেলবার্গ সিমেন্টের ১.৬ শতাংশ, লাফার্জহোলসিমের ৪.১ শতাংশ, আরএকে সিরামিকসের ৭.৩ শতাংশ ও সিঙ্গারিবিডির ১.৬ শতাংশ।

অর্থ-শিল্প-বাণিজ্য'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj