বসুন্ধরা কিংসে মেসির সতীর্থ বার্কোস

মঙ্গলবার, ১১ ফেব্রুয়ারি ২০২০

একজন দক্ষ স্ট্রাইকারের অভাব পূরণ করতে বসুন্ধরা কিংস দলে ভিড়িয়েছে লিওনেল মেসির সতীর্থ হার্নান বার্কোসকে। আর্জেন্টিনার হয়ে চার ম্যাচ খেলা এই স্ট্রাইকার সঙ্গে ৯ ফেব্রুয়ারি আনুষ্ঠানিক চুক্তি সম্পাদন করে কর্পোরেট ক্লাবটি।

ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা, কোস্টারিকা, লেবাননসহ বিদেশি স্ট্রাইকার দলভুক্ত করাকে চমক বলতে নারাজ বসুন্ধরা কিংসের সভাপতি ইমরুল হাসান। মূলত দর্শকদের ফুটবল খেলামুখী করতে তাদের এ উদ্যোগ। স্টেডিয়ামের ফাঁকা গ্যালারিতে দর্শক ফেরাতেই নামি এবং বিখ্যাত এসব দেশ ও ক্লাবের ফুটবলারদের অন্তর্ভুক্তি তাদের।

বসুন্ধরার সঙ্গে বার্কোসের আপাতত চুক্তি ১০ মাসের মাসিক ২০ হাজার ডলার পারিশ্রমিকে যা বাংলাদেশি টাকায় ১৬ লাখ ৯৬ হাজার। আর কলিনড্রেস মাসে পাচ্ছেন ১৮ হাজার ডলার। তবে ৩৫ বছর বয়সী বার্কোস ক্যারিয়ারের পড়ন্ত বেলায় কতটুকু জ্বলে উঠতে পারবেন, এ নিয়ে কিছুটা সংশয় থাকলেও ইমরুল হাসান তাকে নিয়ে খুব আশাবাদী। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, রোনালদো যদি এই বয়সে দুর্দান্ত খেলতে পারেন, তাহলে বার্কোসও নিশ্চয়ই পারবেন। আমরা বুঝে-শুনেই তাকে নিয়েছি।

৩৫ বছর বয়সী এই স্ট্রাইকার এখনো কতটা ক্ষুরধার, সেটা বোঝা যায় ম্যারাডোনার মতো কিংবদন্তির আগ্রহ দেখানোর মাধ্যমেই। কিন্তু তিনি কেন সেই সুযোগ হাতছাড়া করে বাংলাদেশে এলেন? উত্তরে জানিয়েছেন, মূলত বসুন্ধরা কিংসের সম্পর্কে ইন্টারনেট থেকে খোঁজখবর নিয়েই তিনি আকৃষ্ট হয়েছেন। দলে গত বিশ্বকাপ খেলে আসা ড্যানিয়েল কলিনদ্রেসের উপস্থিতিটাও কিছুটা প্রভাব রেখেছে বলে বোঝা যায় তার কথায়, ‘প্রথমবারের মতো এই অঞ্চলের ফুটবল খেলতে এলাম। ইন্টারনেট ঘেঁটে বাংলাদেশ সম্পর্কে অনেক খোঁজখবর নিয়েছি। বসুন্ধরা কিংস সম্পর্কে অনেক তথ্য নিশ্চিত হয়েই এখানে খেলার জন্য রাজি হয়েছি। আমাদের দলে তো শেষ বিশ্বকাপ খেলা কলিনদ্রেসও আছেন। আশা করি খুব ভালো একটা দল হতে পারব আমরা।’ আর্জেন্টিনা জাতীয় দলের জার্সিতে বার্কোসের অভিষেক হয় আলেসান্দ্রো সাবেলার সময়ে। ২০১৩ বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে চিলি ও উরুগুয়ের ম্যাচে বদলি খেলোয়াড় হিসেবে খেলেন তিনি। পরে একই বছরের সেপ্টেম্বরে ব্রাজিলের বিপক্ষে সুপার ক্লাসিকো দিয়ে আকাশি-নীল জার্সিতে অভিষেক হয় বার্কোসের। এরপর অক্টোবর মাসে বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে উরুগুয়ে ও চিলির বিপক্ষে দুটি ম্যাচ খেলেছিলেন এই স্ট্রাইকার। সব মিলিয়ে আর্জেন্টিনার হয়ে চার ম্যাচ খেললেও বার্কোস কোনো গোল করতে পারেননি। তবে ক্লাব ক্যারিয়ার কম সমৃদ্ধ নয় বার্কোসের। ব্রাজিলের পালমেইরাস, গ্রেমিও এবং ক্রুজেইরোর হয়ে খেলেছেন। ২০১২-১৩ মৌসুমে পালমেইরাসের হয়ে ২৯ ম্যাচে করেছিলেন ১৪ গোল। পরের দুই মৌসুমে গ্রেমিওর জার্সিতে ৬৯ ম্যাচে ২৩ গোল। ২০১৭ মৌসুমে ইকুয়েডর প্রিমিয়ার লিগের ক্লাব এলডিইউ কুইটোর হয়ে ২১ গোল করতে ম্যাচ খেলেছেন ২৬টি। ঢাকায় আসার আগে সর্বশেষ খেলেছেন কলম্বিয়ান প্রিমিয়ার লিগের ক্লাব অ্যাটলেটিকো ন্যাসিওনালে। সেখানে ১৪ ম্যাচে করেছেন ৬ গোল।

ঢাকার মাঠে বার্কোসের সতীর্থ মেসি নাইজেরিয়ার বিপক্ষে খেলে গেছেন। তার আর্জেন্টিনাইন দলে অভিষেক হয় ২০১২ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর চিরপ্রতিদ্ব›দ্বী ব্রাজিলের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে। এছাড়াও তিনি আর্জেন্টিনার জার্সি গায়ে ২০১৪ ব্রাজিল বিশ্বকাপের বাছাইয়ের চারটি ম্যাচ খেলেছেন প্যারাগুয়ে, পেরু, চিলি ও উরুগুয়ের বিপক্ষে। বাংলাদেশে তার আগমন প্রথম হলেও এশিয়াতে প্রথম নয়। ২০০৯ সালে চাইনিজ সুপার লিগে সাংহাই সেনহুয়ায় খেলেছেন এই আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড।

এবারই প্রথমবারের মতো এএফসি কাপে খেলতে যাচ্ছে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন বসুন্ধরা কিংস। প্রতিযোগিতাকে সামনে রেখে আর্জেন্টিনার জাতীয় দলের সাবেক স্ট্রাইকার হার্নান বার্কোসকে দলে টানতে তাদের দলে থাকা লেবাননের স্ট্রাইকার জালাল কদুকে বিদায় দেয়। বসুন্ধরায় আর্জেন্টিনার আরেক সতীর্থকে দেলমন্তেকে পাচ্ছেন হার্নান। এছাড়া গত মৌসুমে অভিষেকেই কোস্টারিকার বিশ্বকাপে খেলা দানিয়েল কলিনদ্রেস তো রয়েছেনই। নিজের ফুটবল ক্যারিয়ারে ৬০৮ ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতা রয়েছে বার্কোসের। ক্যারিয়ারে সর্বমোট ২৫৯ গোল করা এই স্ট্রাইকারকে মার্চে এএফসি কাপে বসুন্ধরা কিংসের হয়ে মাঠে নামবেন। মার্চের ১১ তারিখ থেকে এএফসি কাপের ‘ই’ গ্রুপের ম্যাচগুলো শুরু হবে। ভারতের আই-লিগ চ্যাম্পিয়ন চেন্নাই সিটি ও মালদ্বীপের প্রিমিয়ার লিগ চ্যাম্পিয়ন টিসি স্পোর্টসকে প্রতিপক্ষ হিসেবে পেয়েছে বিপিএলের ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন বসুন্ধরা।

:: আ ত ম মাসুদুল বারী

গ্যালারি'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj