উইম্বলডন চ্যাম্পিয়নশিপ

মঙ্গলবার, ১১ ফেব্রুয়ারি ২০২০

টেনিস বিশ্বের ৪টি গ্র্যান্ড ¯ø্যামের মধ্যে ‘উইম্বলডন’ ঐতিহ্য, আভিজাত্য ও মর্যাদার দিক দিয়ে সবার উপরে। ৪টি গ্র্যান্ড ¯ø্যামের মধ্যে এটি অন্যতম। বাকি ৩টি হচ্ছে অস্ট্রেলিয়ান ওপেন, ফ্রেঞ্চ ওপেন এবং ইউএস ওপেন। উইম্বলডন চ্যাম্পিয়নশিপ এটিই একমাত্র গ্র্যান্ড ¯ø্যাম যেটি ঘাসের কোর্টে খেলা হয়। ১৮৬৮ সালে প্রতিষ্ঠিত অল ইংল্যান্ড লন টেনিস এন্ড ক্রোকুয়েট ক্লাব একটি ব্যক্তি মালিকানাধীন ক্লাবরূপে গড়ে ওঠে যা অল ইংল্যান্ড ক্রোকুয়েট ক্লাব নামে পরিচিত। ক্লাবটির প্রথম মাঠ ছিল উইম্বলেডনের ওরপল রোডে।

১৮৭৬ সালে মেজর ওয়াল্টার ক্লপটন উইংফিল্ড কর্তৃক আবিষ্কৃত লন টেনিস খেলা যা তিনি স্টিকি বা স্ফেইরিস্টিক নামে বলতেন, তা ক্লাবের কর্মকাণ্ডে যুক্ত হয়। ১৮৭৭ সালের বসন্তে দলটির নাম পুনরায় পরিবর্তিত হয়ে দি অল ইংল্যান্ড ক্রোকুয়েট এন্ড লন টেনিস নাম ধারণ করে। নাম পরিবর্তন করে এটি প্রথমবারের মতো লন টেনিস প্রতিযোগিতায় অবতীর্ণ হয়। মেরিলেবোন ক্রিকেট ক্লাবের পরিচালনায় অনুসৃত নিয়মাবলি পরিবর্তিত করে এ খেলার উপযোগী আইন-কানুন তৈরি করা হয়। বর্তমানে প্রচলিত আইন-কানুনের মধ্যে তৎকালীন নেট বা জালের উচ্চতা ও খুঁটি এবং নেট থেকে সার্ভিস লাইনের দূরত্ব বহাল রয়েছে।

উইম্বলডন শুরু হয় ১৮৭৭ সালে। প্রথম সাত বছরে শুধু পুরুষরাই অংশ নিয়েছেন। প্রথম বছর পুরুষ এককের শিরোপা জিতেছিলেন ব্রিটেনের স্পেনসর গোর মহিলা একক শুরু ১৮৮৪ সালে। ১৯৮৬ সালে প্রথমবারের মতো ব্যবহৃত হয় হলুদ বল। ১৯২২ সাল পর্যন্ত চ্যাম্পিয়নরা পরের আসরে সরাসরি ফাইনালে খেলতেন। মেয়েদের এককে সবচেয়ে বেশি ৯ বার চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন মার্টিনা নাভ্রাতিলোভা। মেয়েদের এককে টানা শিরোপা জয়ের রেকর্ডও নাভ্রাতিলোভার। ১৯৮২ থেকে ১৯৮৭ পর্যন্ত টানা ৬ বার চ্যাম্পিয়ন হন নাভ্রাতিলোভা।

বর্তমানে নারী দ্বৈত ও মিশ্র দ্বৈতসহ উইম্বলডনে মোট ৫টি প্রধান ইভেন্ট রয়েছে। ট্রফি হিসেবে পুরুষদের কাপ দেয়া হয় এবং নারীদের প্লেট দেয়া হয়। পুরুষ এককে বিজয়ী খেলোয়াড়কে এই পুরস্কার দেয়া হয়। এটি রুপার নকশা করা এবং একটি ঢাকনাও থাকে এতে। লম্বায় ১৮ ইঞ্চি এবং ব্যাস ৭ ইঞ্চি। দুপাশে দুটি হাতল রয়েছে। সোনালি রং এবং কাপে বিভিন্ন রকম নকশা করা রয়েছে।

:: কামরুজ্জামান ইমন

গ্যালারি'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj