বিসিএলে রান বন্যা

মঙ্গলবার, ৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০

বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগের (বিসিএল) অষ্টম আসরে চলছে রানের বন্যা। তৃতীয় বাংলাদেশি হিসেবে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে রবিবার ট্রিপল সেঞ্চুরি করেন তামিম ইকবাল খান। সর্বোচ্চ ৩৩৪ রানের রেকর্ড গড়েছেন দেশসেরা এ ওপেনার। পাকিস্তানের বিপক্ষে টেস্ট ম্যাচ দিয়ে আবার টেস্টে ফিরতে যাচ্ছেন ড্যাশিং তামিম ইকবাল। এর মাঝে বাংলাদেশ ভারতে গিয়ে টেস্ট খেলে এলেও তিনি যাননি।

বিসিএলের চলমান রাউন্ডে প্রথম শতক হাঁকান দক্ষিণাঞ্চলের তারকা ব্যাটসম্যান ফজলে মাহমুদ রাব্বি। তিনি উত্তরাঞ্চের বিপক্ষে ১২৫ রান করেন। এরপর ডাবল সেঞ্চুরি করেন পূর্বাঞ্চলের ওপেনার তামিম ইকবাল। তার সঙ্গে সেঞ্চুরি করেন সবশেষ ভারত সফর এবং ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে পাকিস্তানের রাওয়ালপিন্ডিতে অনুষ্ঠিতব্য টেস্ট দলের নেতৃত্বে থাকা মুমিনুল হক সৌরভ।

ওদিকে চট্টগ্রাম জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে এবারের বিসিএলের সেঞ্চুরি করেছেন দক্ষিণাঞ্চলের তিন তারকা ব্যাটসম্যান শাহরিয়ার নাফীস, শামসুর রহমান শুভ ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। তাদের তিন সেঞ্চুরিতে ৩ উইকেটে ৩৯৮ রান নিয়ে দ্বিতীয় ইনিংস ঘোষণা করে দক্ষিণাঞ্চল। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ১১১ রান করেন মুমিনুল হক। জাতীয় দলের এ টেস্ট অধিনায়ক ২৫১ বল খেলে ১২টি চারের সাহায্যে এ রান করেন। ২২২ বলে ১১টি চারের সাহায্যে ১০৯ রান করেন শামসুর রহমান শুভ, টি-টোয়েন্টির আদলে ব্যাটিং করে ৭০ বলে সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। তিনি ৭০ বলে ৮ চার ও ৫ ছক্কায় অপরাজিত ১০০ রানের ইনিংস খেলেন।

বিসিএলে মিরপুর শেরেবাংলায় ইতিহাস গড়েছেন তামিম ইকবাল। আগের দিনের করা ২২২ রান নিয়ে ফের ব্যাটিংয়ে নেমে দিনের শেষ সেশন তথা চা বিরতির ঠিক আগ পর্যন্ত ব্যাটিং করে ইতিহাস গড়েন তামিম। প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে সর্বোচ্চ ৩৩৪ রানের ইনিংস খেলেন তামিম। পূর্বাঞ্চলের এ ওপেনার ৪২৬ বলে ৪২টি চার ও তিন ছক্কায় ৩৩৪ রানের হার না মানা ইনিংস খেলেন। তার ট্রিপল সেঞ্চুরিতে ২ উইকেটে ৫৫৫ রানের পাহাড় গড়ে ইনিংস ঘোষণা করে পূর্বাঞ্চল।

তামিম শুধু বাংলাদেশি ব্যাটসম্যান হিসেবেই নয়, বাংলাদেশের মাটিতে সর্বোচ্চ রান করার রেকর্ডও গড়েছেন। এতদিন বাংলাদেশের মাটিতে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক ছিলেন সাবেক শ্রীলঙ্কান ব্যাটসম্যান কুমার সাঙ্গাকারা। তিনি ২০১৪ সালে চট্টগ্রামে বাংলাদেশের বিপক্ষে টেস্টে ৩১৯ রান করেন। পাশাপাশি ৩৩৪ রান করার মধ্য দিয়ে অস্ট্রেলিয়ান কিংবদন্তি ডন ব্রাডম্যানকে ছুঁয়েছেন তামিম। ১৯৩০ সালে ব্র্যাডম্যানের করা প্রথম ট্রিপল সেঞ্চুরিটি থামে ৩৩৪ রানে। তামিমও তার ক্যারিয়ারের প্রথম ট্রিপল সেঞ্চুরিটি ৩৩৪ রানেই থামান। হয়তো ব্রাডম্যানের প্রতি সম্মান রেখেই তার ইনিংসটি ৩৩৪ রানে থামিয়ে দেন তামিম। যেমনটি একবার করেছিলেন অজি ব্যাটসম্যান মার্ক টেলর। ১৯৯৮ সালে পেশোয়ারে পাকিস্তানের বিপক্ষে ৩৩৪ রান করে ইনিংস ঘোষণা করেন তিনি। কিংবদন্তির প্রতি সম্মান জানাতেই এটি করেন টেইলর।

এর আগে ২০০৭ সালে বাংলাদেশি ব্যাটসম্যান হিসেবে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ট্রিপল সেঞ্চুরির রেকর্ড গড়েছিলেন রকিবুল হাসান। জাতীয় দলের হয়ে ৯টি টেস্ট, ৫৫টি ওয়ানডে আর ৫টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলা এ তারকা ব্যাটসম্যান ২০১১ সালের নভেম্বরের পর থেকেই জাতীয় দলের বাইরে থেকে ঘরোয়া ক্রিকেট খেলে যাচ্ছেন।

তারও আগে ১৯৮৫ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হয়ে জাতীয় ক্রিকেট চ্যাম্পিয়নশিপের সেমিফাইনালে ৩০৮ রানের ইনিংস খেলেছিলেন তারিকুজ্জামান মুনীর। বাংলাদেশের টেস্ট মর্যাদা পাওয়ার আগে মুনীর ট্রিপল সেঞ্চুরি করায় স্বীকৃতির তালিকায় তার নাম নেই।

:: আ ত ম মাসুদুল বারী

গ্যালারি'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj