ক্রীড়াপ্রেমী প্রধানমন্ত্রী

মঙ্গলবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২০

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন একজন ক্রীড়াপ্রেমী মানুষ। আমাদের দেশের ক্রীড়া অঙ্গনে বঙ্গবন্ধুর অবদান বলে বা লিখে শেষ করা যাবে না। বাবা শেখ মুজিবুরের কাছ থেকে তেমনি ক্রীড়া অনুরাগটা পেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একটি দেশের প্রধানমন্ত্রী সব সময় ব্যস্ত থাকেন এটা সবাই জানেন। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শত ব্যস্ততার মাঝে খেলোয়াড়দের উৎসাহ জোগাতে ছুটে যান মাঠে। ক্রীড়াঙ্গনে দেশের মুখ উজ্জ্বল করা ক্রীড়াবিদদের নানা সময়ে অর্থ এবং ফ্ল্যাট দিয়ে সহায়তা করেছেন। নিষেধাজ্ঞার কারণে মাঠের বাইরে থাকা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের পরিবারকে গত রবিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজ হাতে খাবার রান্না করে পাঠিয়েছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নিজেদের প্রোফাইলে এটি জানিয়েছেন সাকিব ও তার স্ত্রী উম্মে আহমেদ শিশির। যেখানে খাবারের ছবিতে দেখা গেছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজ হাতে রান্না করা পোলাও, রোস্টসহ রসগোল্লা, গুড়ের সন্দেশ, ছানা ও শীতের পিঠা পাঠিয়েছেন সাকিব দম্পতির জন্য। দেশের প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে এমন ভালোবাসা পেয়ে সাকিব ও শিশির দুজনই আপ্লুত।

কিছুদিন আগে ২০১৬ সালে সাউথ এশিয়ান গেমসে তিন স্বর্ণজয়ী ক্রীড়াবিদ-সাঁতারু মাহফুজা খাতুন শিলা, ভারোত্তোলক মাবিয়া আক্তার সীমান্ত এবং শ্যুটার শাকিল আহমেদকে পুরস্কারের ফ্ল্যাট বুঝিয়ে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এমনকি ২০১৯ সালে ডিসেম্বরে এসএ গেমসে বাংলাদেশের সেরা সাফল্যেও উচ্ছ¡সিত দেশের সরকারপ্রধান। নেপালে পদক জয়ীদের অভিনন্দন জানান প্রধানমন্ত্রী, দাওয়াত দেন গণভবনে। এমনকি এশিয়ান র‌্যাঙ্কিং আচারিতে সোনাজয়ী রোমান সানাকে মুখে মিষ্টি তুলে দিয়ে বরণ করে নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। দেশকে ভবিষ্যতে যেন আরো বড় সাফল্য উপহার দিতে পারে, সে জন্য সব রকম সহায়তার আশ্বাসও দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। এ ছাড়া দেশ সেরা এই আচারের মায়ের চিকিৎসার দায়িত্ব নেন প্রধানমন্ত্রী।

২০১৭ সালের ৩১ আগস্ট মিরপুরে ঐতিহাসিক টেস্টে টাইগাররা অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে যে অনন্য নজির স্থাপন করেছেন তা মাঠে বসে উপভোগ করেছেন প্রধানমন্ত্রী। ২০১৯ সালের ত্রিদেশীয় সিরিজে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সহজ ম্যাচ কঠিন করে জিতে টাইগাররা। ওই ম্যাচে আফিফ হোসেন ৫২ রানের নান্দনিক ইনিংস খেলে দলকে জয়ের বন্দরে নোঙর করান। ম্যাচ শেষে প্রধানমন্ত্রী বিসিবি সভাপতিকে ফোন করে আফিফকে আগের ম্যাচে কেন নেয়া হয়নি জানতে চান। ফোনে আফিফের সঙ্গে কথা বলেন। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ঘরের মাঠে টেস্টে ১৯ উইকেট নেয়া মেহেদি হাসানকে মিরাজকে খুলনায় জমি দিয়েছেন।

ফুটবলারদেরও বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন পুরস্কার প্রদান করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বাংলাদেশ নারী ফুটবল দলের সদস্যদের নগদ অর্থ পুরস্কার দিয়েছেন ক্রীড়াপ্রেমী প্রধানমন্ত্রী। ২০১৮ সালে বাংলাদেশের মেয়েরা অনূর্ধ্ব-১৮ সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হয়। তাই সাফ অনূর্ধ্ব-১৮ চ্যাম্পিয়নশিপ দলের ১০ নারী ফুটবলারকে ১০ লাখ টাকা পুরস্কার দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

:: কামরুজ্জামান ইমন

গ্যালারি'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj