দল বাড়ল নারী ফুটবল লিগে

মঙ্গলবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২০

আসন্ন নারী ফুটবল লিগ থেকে সাবেক দুই চ্যাম্পিয়ন মুখ ফিরিয়ে নেয়ার পরও অংশগ্রহণকারী দল বেড়েছে। ৩১ জানুয়ারি থেকে শুরু হতে যাওয়া নারী ফুটবলের তৃতীয় আসর ৭ দলের পরিবর্তে এখন ৮ দল নিয়ে শুরু হতে যাচ্ছে। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) মিডিয়া প্রধানের বরাতে এ তথ্য জানা গেছে। তবে নতুন খবর হচ্ছে জানুয়ারির শেষদিন মাঠে গড়াচ্ছে না দীর্ঘ প্রতিক্ষীত এ টুর্নামেন্ট। মেয়র নির্বাচনের কারণে ওইদিন পৃষ্ঠপোষক চুক্তি স্বাক্ষর (স্পন্সর সাইনিং) অনুষ্ঠানে লিগ শুরুর তারিখ জানা যাবে। ক্লাবগুলোর অনুরোধের প্রেক্ষিতেই এমন সিদ্ধান্ত- জানান বাফুফে মিডিয়া প্রধান।

নতুন দল স্প্যাটার্ন এন কে গ্যালটিকো সিলেট এফ সিসহ অন্য দলগুলো হচ্ছে- বসুন্ধরা কিংস, এফসি উত্তরবঙ্গ, বেগম আনোয়ারা স্পোর্টিং ক্লাব, নাসরিন স্পোর্টিং ক্লাব, কাঁচারিপাড়া একাদশ, কুমিল্লা ইউনাইটেড ও স্বপ্নচূড়া অ্যান্ড আখিলপুর ফুটবল একাডেমি। প্রায় ৭ বছর এবারের আসরের ম্যাচগুলো কমলাপুর বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহি মোহাম্মদ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে। অর্ধযুগ ধরে চেষ্টা করেও পারেনি বাফুফে। ২০১৩ সালের পর আর নারী ফুটবল লিগ মাঠে নামাতে পারেনি দেশের ফুটবল নিয়ন্ত্রণের এই সর্বোচ্চ সংস্থা সংস্থাটি। সে হিসেবে দীর্ঘ প্রায় ৭ বছর পর মেয়েদের ফুটবল লিগ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। সর্বশেষ নারী ফুটবল লিগ অনুষ্ঠিত হয়েছিল ২০১২ ও ২০১৩ সালে। ওই দুই আসরের পর এবার আয়োজন হচ্ছে তৃতীয় আসর। শেখ রাসেল নাম প্রত্যাহার করে নিলেও দল বেড়েছে নারী লিগে। নারী ফুটবল লিগে শেখ রাসেল দল গঠনের উদ্যোগ নিয়েও শেষ পর্যন্ত না খেলার সিদ্ধান্ত নেয়। আগে লিগ হওয়ার কথা ছিল ৭ দল নিয়ে, এখন হবে ৮ দলের।

ওদিকে সর্বোচ্চ ৫ লাখ টাকা পারিশ্রমিকে সাবিনা খাতুন বসুন্ধরায় নাম লিখিয়েছেন। কৃষ্ণা, সানজিদারা পাচ্ছেন ৪ লাখ টাকা করে। দেশে বা বিদেশের মাটিতে প্রায় মুড়ি মুড়কির মতো গোল করেন সাবিনা। প্রতিপক্ষের কাছে সমীহ জাগানো এক নাম জাতীয় নারী দলের এই অধিনায়ক। পেয়েছেন ‘গোল মেশিন’ খেতাবও। ২০১৩ সালে অনুষ্ঠিত শেষ লিগে শেখ জামালের জার্সিতে খেলেছিলেন তিনি। সাবিনাসহ বয়সভিত্তিক ও জাতীয় দলের ১৯ জন খেলোয়াড় বসুন্ধরায় নাম লিখিয়েছেন। সে তালিকায় রয়েছেন কৃষ্ণা রানী সরকার, সানজিদা খাতুন, শিউলি আজিম ও শামসুন্নাহারও। এ ছাড়া অনূর্ধ্ব-১৬ জাতীয় দলের বেশির ভাগ ফুটবলারকে দেখা যেতে পারে ক্লাবটিতে। অধিনায়ক মারিয়া মান্দা, মিডফিল্ডার মনিকা চাকমা, রুপনা চাকমা, সামসুন্নাহারদের (ছোট) দেখা যাবে বসুন্ধরার জার্সি গায়ে খেলতে।

বেশ কয়েক বছর ধরেই দেশের বাইরের লিগগুলোয় নিয়মিত হয়ে উঠেছেন সাবিনা। বাংলাদেশের প্রথম নারী ফুটবলার হিসেবে খেলেছেন মালদ্বীপ ও ভারতের লিগে।

:: আ ত ম মাসুদুল বারী

গ্যালারি'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj