সিইসি কে এম নূরুল হুদা : সিটি নির্বাচনে অনিয়ম দেখতে চাই না

বৃহস্পতিবার, ২৩ জানুয়ারি ২০২০

কাগজ প্রতিবেদক : প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা বলেছেন, ঢাকার দুই সিটি নির্বাচনে কোনো ধরনের অনিয়ম দেখতে চাই না। জনগণ যাতে পছন্দের প্রার্থীকে নির্বিঘ্নে ভোট দিয়ে বাড়ি ফিরতে পারে এবং এজেন্টরা যাতে কেন্দ্রে থেকে দায়িত্ব পালন করতে পারে সে ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হবে।

গতকাল বুধবার বিকেলে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন কমিশন ভবনের অডিটরিয়ামে (বেইজমেন্ট-২) ঢাকা উত্তর ও দক্ষিন সিটি করপোরেশনে নির্বাচন উপলক্ষে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে বৈঠকে তিনি এসব কথা বলেন। সিইসি কে এম নূরুল হুদার সভাপতিত্বে বৈঠকে চার নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার, রফিকুল ইসলাম, কবিতা খানম, ইসির সিনিয়র মো. আলমগীর, ঢাকার দুই সিটির রিটার্নিং কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়াও বৈঠকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব, মহাপুলিশ পরিদর্শক, র‌্যাবের মহাপরিচালক, ডিএমপি কমিশনার, বিজিবি মহাপরিচালক, ডিজিএফআই পরিচালকসহ বিভিন্ন আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

কে এম নূরুল হুদা বলেন, আমি চাই না, নির্বাচনে কোনো রকমের অভিযোগ, অনিয়ম ত্রুটিবিচ্যুতি নির্বাচন কমিশন পর্যন্ত আসুক। মাঠপর্যায়ে যারা দায়িত্ব পালন করছেন, তারাই যে কোনো অনিয়ম ত্রুটিবিচ্যুতি কঠোরভাবে দমন করবেন। নির্বাচন কমিশনে কারো বিরুদ্ধে অভিযোগ আসলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সিইসি বলেন, প্রায়ই বলা হয়ে থাকে, এজেন্টদের ভোটকেন্দ্রে যেতে দেয়া হয় না। কিংবা ভোটকেন্দ্র থেকে বের করে দেয়া হয়। এই ধরনের অভিযোগ যাতে আর না আসে। ভোটকেন্দ্রে এজেন্ট প্রবেশ করলে তার নিরাপত্তা দেয়ার দায়িত্ব আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর। তবে কোনো এজেন্ট বাড়ি থেকে না আসলে তাকে নিয়ে আসার দায়িত্ব আমাদের না।

তিনি বলেন, সুষ্ঠু নির্বাচন পরিচালনার জন্য আমাদের প্রত্যয় রয়েছে, দৃঢ়তা রয়েছে, নিষ্ঠা এবং একাগ্রতা রয়েছে। নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য আমরাই একমাত্র কর্তৃপক্ষ। যাদের নির্দেশে এবং ব্যবস্থাপনায় বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তারা তাদের দায়িত্ব পালন করছে। যে যার অবস্থান থেকে তার দায়িত্ব পালন করতে হবে। এটা করা গেলেই নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু হবে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে এক সরকার, এক দেশ, এক রাজধানী। সেই প্রেক্ষাপটে ঢাকা সিটি দুইটি অংশে বিভক্ত। রাজধানীর দুইটি অংশে নির্বাচন হচ্ছে। এই নির্বাচনের দিকে আন্তর্জাতিক মহল থেকে শুরু করে দেশের সর্বস্তরের জনগণ তাকিয়ে রয়েছে। ঢাকা সিটি নির্বাচন নিয়ে জনগণ, প্রার্থী এবং ভোটারদের মাঝে একটা মহাউৎসব আমেজ চলছে। এই আমেজের প্রতি যথেষ্ট গুরুত্ব দিয়ে বলব- নির্বাচন যাতে অবাধ সুষ্ঠু হয়। পছন্দের প্রার্থীকে যেন ভোট দিতে পারেন সেই ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে। আর এই জন্য যার যার অবস্থান থেকে আইন দেখে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে হবে।

এখন পর্যন্ত ভোটের পরিবেশে সন্তোষ মন্তব্য করে সিইসি বলেন, এর যথাযথ গুরুত্ব অনুধাবন করে নিজ নিজ অবস্থানে থেকে সঠিক দায়িত্ব পালন করতে হবে। কোনো অভিযোগ পেলে পদক্ষেপ নিতে হবে। বিএনপি মেয়র প্রার্থীর প্রচারে হামলার বিষয়ে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেয়ার পদক্ষেপ সন্তোষ প্রকাশ করেন সিইসি। তিনি বলেন, এটা অনাকাক্সিক্ষত ঘটনা ঘটেছে। অভিযোগ দেয়ার আগে রিটার্নিং কর্মকর্তা তাৎক্ষণিকভাবে খতিয়ে দেখার জন্যে বলেছে।

ইভিএমে ভোট প্রক্রিয়ার বিষয়ে সর্বোচ্চ প্রযুক্তির সফলতাও তুলে ধরেন সিইসি বলেন, ইভিএমের মাধ্যমে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন করা সম্ভব। এতে করে কেন্দ্র দখল করার কোনো সুযোগ নেই।

দ্বিতীয় সংস্করন'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj