ল্যাঙ্গেভেল্টের উত্তরসূরি গিবসন

সোমবার, ২০ জানুয়ারি ২০২০

কাগজ প্রতিবেদক : টাইগারদের পেস বোলিং কোচের তালিকার সেরা প্রার্থী ক্যারিবীয় সাবেক দ্রুতগতির বোলার ওটিস গিবসন। যিনি ওয়েস্ট ইন্ডিজ, দক্ষিণ আফ্রিকা এবং কুমিল্লা ওয়ারিয়র্স দলের প্রধান কোচ ছিলেন। ভিন্ন ভিন্ন দুই মেয়াদে ইংল্যান্ডের পেস বোলিং কোচ ছিলেন এই ক্যারিবিয়ান। রুবেল-শফিউলদের কোচ হিসেবে ওটিস গিবসনই সেরা পছন্দ হতে পারেন। বিসিবির একটি সূত্রে জানা গেছে, গিবসনকেই চার্ল ল্যাঙ্গেভেল্টের উত্তরসূরি হিসেবে বেছে নেয়া হয়েছে। রিয়াদ-তামিমদের সঙ্গে পাকিস্তানেও যাচ্ছেন তিনি।

সদ্য সমাপ্ত বঙ্গবন্ধু বিপিএলে প্রথমবারের মতো কাজ করতে এসে খেলোয়াড়দের মন জয় করেছেন গিবসন। আল আমিন হোসেনরাও তাদের কোচের প্রশংসা করেছেন। বিপিএলের চট্টগ্রাম পর্বের খেলা চলাকালে এক সাক্ষাৎকারে গিবসন বাংলাদেশের পেস বোলারদের পিছিয়ে থাকার ব্যাপারে কিছু পর্যবেক্ষণ দিয়েছিলেন। তিনি বলেছিলেন, বাংলাদেশে প্রতিভার অভাব নেই। সমস্যা ফিটনেস ও স্কিলে। বিসিবির কোচ করা হলে এই জায়গাগুলোয় ফোকাস করার কথা বলেন তিনি। বিপিএল শেষ হওয়ার আগে এক ব্রিফিংয়ে গিবসন জানিয়েছিলেন, টাইগারদের পেস বোলিং কোচ হওয়ার দৌড়ে আছেন তিনি। বোর্ড কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা চলছে।

ওদিকে গতকাল মিরপুরে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন জানিয়েছেন, দুএকদিনের মধ্যেই বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের বোলিং কোচের নাম ঘোষণা করা হবে।

পাকিস্তানের তুলনামূলক দ্রুত গতির ও বাউন্সি পিচে বাংলাদেশের পেস বোলিং কোচ হিসেবে ১৭ জানুয়ারি রাত পর্যন্ত এইচপির কোচ সাবেক লঙ্কান ফাস্টবোলার চম্পকা রামানায়েকের নাম শোনা যাচ্ছিল। হেড কোচ রাসেল ডোমিঙ্গোর সঙ্গে চম্পকাই নাকি পেস বোলিং কোচ হয়ে লাহোর যাবেন। এমন খবর ছড়িয়ে পরার পর ১৮ জানুয়ারি সকালে গুঞ্জন ওঠে, চম্পকা রামানায়েকে নন, ওটিস গিবসন বাংলাদেশের পেস বোলিং কোচ হয়ে পাকিস্তান যাচ্ছেন!

বঙ্গবন্ধু বিপিএলে কুমিল্লা ওয়ারিয়র্সের দায়িত্ব পালন করতে এসেই বাংলাদেশ দলের বোলিং কোচ হওয়ার প্রস্তাব পান তিনি। বাংলাদেশের পেস বোলিং কোচ হবার আশা প্রকাশ করেন গিবসনও। সংবাদ মাধ্যমে সরাসরি তিনি বলেছেন, ‘বিসিবির সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। আমি বাংলাদেশের পেস বোলারদের দিয়ে কাজ করতে চাই।’

তবে একদম ভেতরের খবর, বিসিবি কায়মনে গিবসনকেই চাচ্ছে। এখন কথাবার্তা চূড়ান্ত হওয়ার পরেই তার নাম প্রকাশ করা হবে এবং সেটা যদি পাকিস্তানের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজের আগে হয়, তাহলে হয়ত টি-টোয়েন্টি সিরিজেই গিবসনকে জাতীয় দলের সঙ্গে দেখা যেতে পারে। আর তারপরে হলে পাকিস্তানগামী দ্বিতীয় সফরে টেস্ট দলের সঙ্গী হতে পারেন তিনি।

গিবসন কোচ হিসেবে সফল, ২০১২ সালে তার কোচিংয়েই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জেতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। এ ছাড়া খেলোয়াড়ি জীবনে গিবসন ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে দুটি টেস্ট ও ১৫টি ওয়ানডে খেলেছেন। ২ টেস্টে তিনি নিয়েছেন ৩ উইকেট ও ১৫ ওয়ানডেতে তার শিকার ৩৪ উইকেট।

শেষ পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj